Inqilab Logo

রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৮ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

করোনায় আতঙ্ক নয়, সতর্কতা

কোয়ারেন্টিনের প্রয়োজন নেই তবে মাস্ক পড়তে হবে মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

১৪ জন কোভিড-১৯ জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মানার পরামর্শ দিয়েছেন। তারা বলেছেন, আতঙ্কের কিছু নেই; মাস্ক ব্যবহার ও স্বাস্থ্যবিধি মানলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে। ফের করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গতকাল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এক প্রজ্ঞাপনে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং মাস্ক পরিধানের বিষয়ে সব মসজিদে জুমার নামাজে খুতবায় ইমামরা সংশ্লিষ্টদের সচেতন করা নির্দেশনা দিয়েছে। এতে বলা হয়, দোকান, শপিংমল, বাজার, ক্রেতা-বিক্রেতা, হোটেল রেস্টুরেন্টে সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরিধান করতে হবে এবং অন্যথায় তাকে আইনানুগ শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাসে ভয়ের কিছু নেই; কোয়ারেন্টিনের প্রয়োজন নেই। তবে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। গতকাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, কোভিড এখন মানুষের জন্য ‘জীবন বিনাশী’ হুমকি নয়, এটা একটি সমস্য মাত্র। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ প্রসঙ্গে বলেন, করোনা শনাক্ত ব্যাক্তি ৫ দিন পর করোনা নমুনা পরীক্ষা করে কর্মস্থলে যোগ দিতে পারবেন। টিকা নেয়ায় এখন করোনার ভয়াবহতা নেই মৃত্যুর ঝুঁকিও কম। তবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়, সাম্প্রতিককালে সারাদেশে কোভিড-১৯ আক্রান্তের হার দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে ও জনসাধারণের মধ্যে মাস্ক পরিধান এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণে যথেষ্ট শৈথিল্য পরিলক্ষিত হচ্ছে মর্মে সরকারের উচ্চ মহলে আলোচনা হচ্ছে। কোভিড-১৯ জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির ১৪ জুনের সভায় গৃহিত সুপারিশ প্রতিপালনের জন্য এবং কোভিড প্রতিরোধকল্পে নির্দেশনা বাস্তবায়নের অনুরোধ করা হলো। সব মন্ত্রণালয়, বিভাগের সচিব-সিনিয়র সচিব এবং সংশ্লিষ্টদের এসব নির্দেশনা দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ৬ দফা নির্দেশনা দিয়েছে এক আদেশ জারি করা হয়েছে। নির্দেশনা গুলো হচ্ছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করতে সব গণমাধ্যমে অনুরোধ জানাতে হবে। সব ক্ষেত্রে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা। ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি প্রয়োগ করা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসমাগম যথাসম্ভব বর্জন করতে হবে। ধর্মীয় প্রার্থনারত স্থানসমূহে (মসজিদ, মন্দির, গির্জা ইত্যাদি) মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। জ্বর, সর্দি, কাশি বা কোভিড-১৯ এর উপসর্গ দেখা দিলে কোভিড টেস্ট করার জন্য উদ্বুদ্ধ করতে হবে। দোকান, শপিংমল, বাজার, ক্রেতা-বিক্রেতা, হোটেল রেস্টুরেন্টে সবাইকে বাধ্য তামূলকভাবে মাস্ক পরিধান করতে হবে। অন্যথায় তাকে আইনানুগ শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং মাস্ক পরিধানের বিষয়ে সব মসজিদে জুমার নামাজে খুতবায় ইমামরা সংশ্লিষ্টদের সচেতন করবেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ