Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ০৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

রাবি শিক্ষককে লাঞ্ছিতের অভিযোগে শিক্ষার্থী বহিষ্কার

রাবি সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০২২, ৪:২০ পিএম

রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের (রাবি) আইন বিভাগের ক্লাস চলাকালীন সময়ে শিক্ষককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ ওঠে একই বিভাগের মাস্টার্সের এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন।

বুধবার (২৯ জুন) বেলা সাড়ে ১১ টায় বিশ^বিদ্যালয়ের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাডেমিক ভবনের আইন বিভাগের একটি শ্রেণিকক্ষে শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা ঘটে।
ভুক্তভোগী শিক্ষক হলেন অধ্যাপক ড. বেগম আসমা সিদ্দিকা। তিনি বিশ^বিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সিনিয়র অধ্যাপক। অভিযুক্ত শিক্ষার্থী হলেন একই বিভাগের মাস্টার্সের শির্ক্ষাথী আসিক উল্লাহ।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ক্লাস চলাকালীন অভিযুক্ত আশিক উল্লাহ তার মাস্টার্সের পরীক্ষা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ওই শিক্ষকের কাছে আসেন। তখন তিনি ওই শিক্ষার্থীকে বলেন এগুলো আমার বিষয় নয়, এগুলো বিভাগ চেয়ারম্যানের বিষয়। এটা বলে তিনি ক্লাস থেকে বের হতে চাইলে ক্লাসের দরজা বন্ধ করে দেন আশিক উল্লাহ। এতে ক্লাসের ভিতরে থাকা শিক্ষার্থীরা ক্ষেপে যান এবং শিক্ষককে বের করে বিভাগের চেয়ারম্যানের রুমে পৌছে দেন।
এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষার্থীকে বিশ^বিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে বিভাগের সামনে অবস্থান নেন শির্ক্ষার্থীরা। পরে দুপুরে শির্ক্ষার্থীদের আন্দোলন ও দাবির মুখে বিশ^বিদ্যালয়ের সুষ্ঠু পরিবেশ রক্ষার্থে বিশ^বিদ্যালয় শৃঙ্খলা কমিটি ও সিন্ডিকেট রিপোর্ট সাপেক্ষে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আইন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. হাসিবুল আলম প্রধান বলেন, এর আগেও এই শিক্ষার্থী বিভাগের শিক্ষক-শির্ক্ষার্থীদেরকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা রকম মানহানিকর বক্তব্য দিয়ে বিভাগের ইমেজ নষ্ট করেছে। সে দীর্ঘদিন যাবৎ নানা বিশৃঙ্খলা করে আসছে। যার কারণে বিভাগের একাডেমিক কমিটির মাধ্যমে তার অপকর্মের বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি করে আমরা বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে সুপারিশ পাঠিয়েছিলাম। এর আগের তদন্তের রিপোর্ট এবং আজকের বিষয়টি আমলে নিয়ে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন।
উল্লেখ্য, এর আগে অভিযুক্ত আসিক উল্লাহ তারই এক সহপাঠিকে অপহরণ করে মারধর করেন। এছাড়া বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক তারেক নূরের বাসায় এক রাতে ঢুকে ফেসবুক লাইভে এসে তাকে নিয়ে অশোভন কথাবার্তা বলেন ওই শিক্ষার্থী।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন