Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

ইউক্রেনের ওদেসায় হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা, নিহত ১০

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ জুলাই, ২০২২, ৯:৫১ এএম

ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর ওদেসায় রুশ বাহিনী ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। এতে অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছেন। ওদেসার একজন আঞ্চলিক কর্মকর্তা বলেছেন, স্নেক আইল্যান্ড থেকে সেনা প্রত্যাহার করার পর স্থানীয় সময় শুক্রবার ভোরবেলা রুশ বাহিনী এ হামলা চালিয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওদেসার আঞ্চলিক প্রশাসনের মুখপাত্র সেরহি ব্রাচুক টেলিগ্রাম পোস্টে বলেছেন, একটি আবাসিক ভবনে রাতের বেলা হামলায় তিন শিশুসহ ছয়জন মারা গেছেন। পরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০ জনে দাঁড়িয়েছে। তবে রয়টার্স জানিয়েছে, তারা এ হামলার বিস্তারিত নিশ্চিত হতে পারেনি।
বৃহস্পতিবার রাশিয়া বলেছে, তারা ইউক্রেন থেকে শস্য পাঠানোর অনুমতি দিয়ে মানবিক করিডর খুলে দেওয়ার জন্য স্নেক আইল্যান্ড থেকে সেনা প্রত্যাহার করেছে। তবে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি তাঁর নিয়মিত ভাষণে বলেছেন, ইউক্রেনের সেনারা রুশদের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ঠেকিয়ে দেওয়ার পর তারা স্নেক আইল্যান্ড থেকে পালিয়ে গেছে।

তবে রুশ সেনারা আবার স্নেক আইল্যান্ডে ফিরে আসবে না, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। একই সঙ্গে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এই বলে, ‘আমরা দখলদারদের কোণঠাসা করে ফেলব এবং আমাদের ভূখণ্ড, আকাশ ও সমুদ্র পুনরুদ্ধার করব।’
এদিকে আঞ্চলিক গভর্নর সেরহি গাইদাই ইউক্রেনের টেলিভিশনে বলেছেন, ‘বিভিন্ন দিক থেকে রুশ বাহিনী কামানের গোলা বর্ষণ করছে। গত সপ্তাহে সেভেরোদনেৎস্ক দখলের পর রুশ বাহিনী এখন লাইসিচেনস্ক ঘেরাও করার চেষ্টা করছে।’

সেভেরোদনেৎস্কের বাসিন্দা ৬৫ বছর বয়সী সের্গেই ওলিনিক রয়টার্সকে বলেছেন, শহরের প্রায় সব বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে। মে মাস থেকে আমরা পানি, গ্যাস ও বিদ্যুৎ ছাড়াই বাস করছিলাম। এখন কিছুটা স্বস্তি পাচ্ছি এটা ভেবে যে, আপাতত এ শহরে যুদ্ধ থেমেছে। আমরা আবার বাড়িঘর ঠিক করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারব। সূত্র : রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ