Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

রাশিয়ান পণ্যের জন্য বিনামূল্যে ট্রানজিট চায় জার্মানি

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ জুলাই, ২০২২, ৪:৪০ পিএম

রাশিয়া থেকে তার কালিনিনগ্রাদ ছিটমহলে পণ্য পরিবহনের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে লিথুয়ানিয়া এবং যুক্তরাজ্যের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ। বৃহস্পতিবার বাল্টিক অঞ্চলে উত্তেজনা কমাতে তিনি এ আহ্বান জানান। তিনি বলেন, মস্কোর বিরুদ্ধে ইইউ নিষেধাজ্ঞা সেখানে প্রয়োগ করা উচিত নয়।

লিথুয়ানিয়া এবং পোল্যান্ডের মধ্যে অবস্থিত কালিনিনগ্রাদে রাশিয়ান রেল পরিবহন নিয়ে সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে উত্তেজনা চলছে। সঙ্কট শুরু হয়েছিল যখন ইইউ জুনের মাঝামাঝি সময়ে মস্কোর বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করেছিল, যার অধীনে ব্লক রাশিয়ান ইস্পাত এবং লৌহঘটিত উপকরণ আমদানি নিষিদ্ধ করেছিল। রাশিয়া থেকে কালিনিনগ্রাদ পর্যন্ত পণ্য সরবরাহকারী ট্রেন লাইনটি লিথুয়ানিয়ার মধ্য দিয়ে যায়, তাই কাস্টমস এজেন্টরা চেকের জন্য মালবাহী ট্রেন থামাতে শুরু করে। এর ফলে, ইইউ ট্রানজিটে আটকে থাকা ধাতব পণ্যগুলিকে অবরোধ করলে মস্কো ‘ব্যবহারিক’ প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপের হুমকি দেয়।

মাদ্রিদে ন্যাটো সম্মেলনের এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতাকালে, শলৎজ বলেছিলেন যে, রাশিয়া থেকে তার ছিটমহল পর্যন্ত মাল পরিবহনের জন্য ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রয়োজনীয় কাঠামো এবং নিয়ম নির্ধারণ করা’ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ‘এবং, অবশ্যই, এ নিয়মগুলি সর্বদা এই সত্যের আলোকে সেট করা উচিত যে, আমরা এখানে রাশিয়ার দুটি অংশের মধ্যে ট্র্যাফিক নিয়ে কাজ করছি,’ তিনি যোগ করেন, ‘রাশিয়ান পণ্যগুলির বিরুদ্ধে ইইউ নিষেধাজ্ঞাগুলি প্রযোজ্য নয় কারণ এই পণ্যগুলি আমদানি হিসেবে ব্লকে প্রবেশ করছিল না, শুধু ট্রানজিট দিয়ে যাচ্ছিল।’

ইইউ কর্মকর্তারা বর্তমানে রাশিয়া এবং এর কালিনিনগ্রাদ ছিটমহলের মধ্যে মালবাহী যানবাহনকে নিষেধাজ্ঞা থেকে অব্যাহতি দেয়ার জন্য লিথুয়ানিয়ার সাথে আলোচনা করছেন। ‘আমি বিশ্বাস করি যে, জড়িত সমস্ত পক্ষ বর্তমানে এখানে একটি গতিশীল ডি-এস্কেলেশনের জন্য দুর্দান্ত প্রচেষ্টা করছে,’ শলৎজ বলেছেন। সূত্র: পলিটিকো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জার্মানি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ