Inqilab Logo

সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

ইউক্রেন যুদ্ধ কেবল শুরু করেছে রাশিয়া : পুতিন

আলাস্কা ফেরত চাইতে পারে মস্কো

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ জুলাই, ২০২২, ১২:০০ এএম

বাণিজ্যের জন্য ইরান দিয়ে নতুন করিডোর খুলেছে ভারত : রাশিয়া :: বিশ্বজুড়ে ‘ক্ষুধার বিপর্যয়ের’ হুঁশিয়ারি জাতিসংঘের :: কিয়েভের আপত্তি সত্ত্বেও তুরস্কের বন্দর ছেড়েছে শস্যবাহী রাশিয়ান জাহাজ

ইনকিলাব ডেস্ক
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কিয়েভকে বলেছেন যে, তাদের দ্রুত মস্কোর শর্তাবলী মেনে নেয়া উচিত অথবা সবচেয়ে খারাপের পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকা উচিত। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যে, রাশিয়া সবেমাত্র ইউক্রেনে তার পদক্ষেপ শুরু করেছে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পশ্চিমা ও তাদের মিত্রদেরও শত্রুতা বাড়াতে অভিযুক্ত করেছেন এবং অভিযোগ করেছেন যে, ‘পশ্চিম আমাদের সাথে শেষ ইউক্রেনীয় থাকা পর্যন্ত যুদ্ধ করতে চায়’। পার্লামেন্টের নেতাদের সাথে এক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘এটি ইউক্রেনের জনগণের জন্য একটি ট্র্যাজেডি, তবে মনে হচ্ছে বিষয়টি সেই দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে।’ ‘প্রত্যেকেরই জানা উচিত যে বড়ভাবে বলতে গেলে, আমরা এখনও খুব গুরুত্ব দিয়ে কিছু শুরু করিনি।’ তিনি জোর দিয়েছিলেন যে, রাশিয়া যুদ্ধের অবসান ঘটাতে আলোচনার জন্য বসতে প্রস্তুত রয়েছে - তবে ‘যারা তা করতে অস্বীকার করে তাদের জানা উচিত যে এটি যত দীর্ঘ হবে তাদের পক্ষে আমাদের সাথে চুক্তি করা তত কঠিন হবে’। তিনি আরও বলেন, আমরা শুনছি যে, তারা আমাদের যুদ্ধক্ষেত্রে পরাজিত করতে চায়। ‘তাদের চেষ্টা করতে দিন। তাদের ক্ষমতা থাকলে যুদ্ধক্ষেত্রে আমাদের পরাজিত করুক।’

রাশিয়ার অভিযোগ, পশ্চিমা বিশ্ব নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রাশিয়ার অর্থনীতিকে দুর্বল করার মধ্য দিয়ে মস্কোর বিরুদ্ধে ছায়া যুদ্ধ চালাচ্ছে। ইউক্রেনে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সরবরাহ জোরদার করেছে পশ্চিমা বিশ্ব। ইউক্রেনের প্রধান আলোচক মিখাইলো পোদোলিয়াক চলতি সপ্তাহে এক টুইটার পোস্টে বলেন, এ সপ্তাহে মস্কোর সঙ্গে আলোচনা শুরুর জন্য তাদের কিছু শর্ত রয়েছে। সেগুলো হলো ‘অস্ত্রবিরতি, জেড প্রতীকযুক্ত সেনা প্রত্যাহার, অপহৃত নাগরিকদের ফিরিয়ে দেয়া, যুদ্ধাপরাধীদের বহিষ্কার, ক্ষতিপূরণ প্রক্রিয়া এবং ইউক্রেনের সার্বভৌমত্বের অধিকারের স্বীকৃতি।’

আলাস্কা ফেরত চাইতে পারে মস্কো : রাশিয়ার পার্লামেন্ট স্টেট ডুমার স্পিকার ভ্যাচেভ্লাভ ভোলোডিন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করেছেন যে, তারা যদি বিদেশে রাশিয়ার সম্পদ দখল করতে থাকে তবে, রাশিয়া আলাস্কা ফেরত চাইতে পারে। বুধবার তিনি বলেন, ‘শালীনতা কোনো দুর্বলতা নয়। সবসময় একটি প্রতিক্রিয়া হিসাবে কিছু থাকে। আমেরিকাকে সর্বদা মনে রাখতে হবে যে, তার ভূখণ্ডের একটি অংশ রয়েছে, আলাস্কা,’ তিনি বলেছিলেন, ‘যখন তারা বিদেশে আমাদের সম্পদের নিষ্পত্তি করার চেষ্টা শুরু করে, এটি করার আগে, তাদের মনে করা উচিত যে, আমাদেরও দাবি করার কিছু আছে।’

রাশিয়ান রাজনীতিবিদ নরওয়ের জলসীমার মধ্য দিয়ে কিছু জাহাজ চলাচলে বাধা দেয়ায় হলে নরওয়ে এবং রাশিয়ার মধ্যে একটি সামুদ্রিক চুক্তির নিন্দা করার আগে তিনি একটি হুমকির কথা উল্লেখ করেছিলেন, বলেছিলেন যে, নরওয়ে তখন চালানগুলিকে যাওয়ার অনুমতি দেয়। ‘ভাবুন যদি আমরা (আলাস্কা সম্পর্কে) নির্দেশ দিই আপনি দেখুন, এবং আমেরিকা যেখানে মাছ সরবরাহ করা উচিত সেখানে সরবরাহ করা শুরু করবে,’ ভলোডিনের বরাত দিয়ে বলেছে আরআইএ নোভোস্টি। ভোলোডিন আরও জোর দিয়েছিলেন যে, রাশিয়া আমেরিকার বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না, এই বলে যে আমেরিকান রাজনীতিবিদরা দেশে যা কিছু ঘটছে তার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করছেন।

তার এ দাবির একদিন পরে দেশটির বিভিন্ন স্থানে দেখা গেছে একাধিক বিলবোর্ড দেখা গেছে, যেখানে ঘোষণা করা হয়েছে ‘আলাস্কা আমাদের!’ ক্রাসনোয়ার্স্ক নিউজ এজেন্সি এনজিএস২৪ এর মতে, বৃহস্পতিবার দেখা যাওয়ার পর সাইবেরিয়ান শহর ক্রাসনোয়ার্স্কের বাসিন্দাদের বিস্মিত করেছে সেøাগান বহনকারী একাধিক বিলবোর্ড। একজন কর্মকর্তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আক্রমণের পরামর্শ দেয়ার পরে বিলবোর্ডগুলি উপস্থিত হলেও, সেগুলি রাশিয়ান সরকার দ্বারা স্থাপন করা হয়েছে বলে মনে হয় না। ক্রাসনোয়ারস্ক রেস্তোরাঁর মালিক ভ্লাদিমির ভ্লাদিমিরভ এনজিএস২৪ কে বলেছেন যে, ‘শহরের বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকটি বিলবোর্ড ছিল’ কিন্তু তিনি ধরে নিয়েছিলেন যে, সেগুলো ‘কিছু দেশপ্রেমিক’ লাগিয়েছিল। ‘আলাস্কা’ নামে একটি ক্রাসনোয়ারস্ক কোম্পানির একজন মুখপাত্র, যারা ট্রেলার তৈরি করে, শীঘ্রই বিলবোর্ড-এ মন্তব্যে বিলবোর্ডগুলির জন্য দায় স্বীকার করে। মুখপাত্র ব্যাখ্যা করেছেন যে, কোম্পানির পরিচালক ‘খুব দেশপ্রেমিক’ ছিলেন এবং শহরের চারপাশে বিলবোর্ড স্থাপন করে ‘আমরা যে দেশপ্রেমের পক্ষে তা দেখানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন’।

উল্লেখ্য, রাশিয়া আলাস্কাকে উপনিবেশ স্থাপন করে এবং সেখানে বেশ কয়েকটি বসতি স্থাপন করে যতক্ষু না মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৮৬৭ সালে ৭২ লাখ ডলারে রাশিয়ার কাছ থেকে এটি কিনে নেয়। এখন যা আলাস্কা হাজার হাজার বছর ধরে বিভিন্ন আদিবাসীদের আবাসস্থল; এটি ব্যাপকভাবে বিশ্বাস করা হয় যে, এই অঞ্চলটি বেরিং স্ট্রেইট স্থল সেতুর মাধ্যমে উত্তর আমেরিকার প্রাথমিক বসতি স্থাপনের প্রবেশ বিন্দু হিসাবে কাজ করেছিল।

বাণিজ্যের জন্য ইরান দিয়ে নতুন করিডোর খুলেছে ভারত-রাশিয়া : রাশিয়ার সাথে ভারতের বাণিজ্য যথেষ্ট সস্তা এবং দ্রুততর হতে চলেছে। দুই দেশের মধ্যে ইরান একটি নতুন পরিবহন করিডোরের মূল কেন্দ্রে পরিণত হতে চলেছে। ৫ জুলাই, উচ্চ পর্যায়ের আলোচনার একটি সিরিজে, ভারত ইরানকে ৭,২০০ কিলোমিটার ইন্টারন্যাশনাল নর্থ-সাউথ ট্রান্সপোর্টেশন করিডোর (আইএনএসটিসি) সক্রিয় করার আহ্বান জানায়, দ্য ট্রিবিউন পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। আইএনএসটিসি হল রাশিয়া ও ভারতের মধ্যে সমুদ্র, সড়ক ও রেলপথের একটি বহুমুখী পরিবহন নেটওয়ার্ক, যে দুটি দেশ ২০২১ সালের শেষে ১ হাজার ৩০০ কোটি ডলার (প্রায় ১ লাখ কোটি টাকা) পর্যন্ত দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য করেছে। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে এই বাণিজ্য তেল এবং অন্যান্য পণ্যের ক্ষেত্রে দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

রাশিয়া ছাড়াও আর্মেনিয়া, আজারবাইজান এবং জর্জিয়ার মতো মধ্য এশিয়ার ডজন খানেক দেশগুলিও আইএনএসটিসি-এর মাধ্যমে বাণিজ্য থেকে উপকৃত হবে। পানি কমে যাওয়ায় এ রুটে ট্রানজিট সময় আগের ৪০-৪৫ থেকে ২৫ দিন পর্যন্ত কমেছে, যা গাড়ির খরচ ৩০ শতাংশ কমিয়ে এনেছে। আইএনএসটিসি এছাড়াও নিষেধাজ্ঞা-মুক্ত কারণ এটি সুয়েজ খালের একটি বিকল্প এবং পশ্চিমা দেশগুলোর দ্বারা প্রভাবিত নয়। দ্য ইকোনমিক টাইমস জানিয়েছে, রাশিয়া আইএনএসটিসি-এর পূর্ব শাখার মাধ্যমে ভারতে পূর্ণ-কন্টেইনার ট্রেন পরিবহন শুরু করেছে। দীর্ঘ মেয়াদে, সুয়েজ খাল, ভূমধ্যসাগর এবং বসপোরাসের মতো ঐতিহ্যবাহী রুটের বিকল্প হতে পারে আইএনএসটিসি।

বিশ্বজুড়ে ‘ক্ষুধার বিপর্যয়ের’ হুঁশিয়ারি জাতিসংঘের : জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির নির্বাহী পরিচালক ডেভিড বিসলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যে, আগামী দুই বছরের মধ্যেক্ষুধার বিপর্যয় বিস্ফোরিত হতে চলেছে, যা নজিরবিহীন বৈশ্বিক রাজনৈতিক চাপের ঝুঁকি তৈরি করবে। স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী সংস্কারের আহ্বান জানিয়ে - রাশিয়ার অবরোধে আটকে পড়া ২৫ মিলিয়ন টন ইউক্রেনীয় শস্যের উপর থেকে অবরোধ তুলে নেয়া সহ - ডেভিড বিসলে বলেছেন যে, বর্তমান খাদ্য ক্রয়ক্ষমতার সঙ্কট সমাধান পাওয়া না পরবর্তীতে আরও বিপজ্জনক খাদ্য প্রাপ্যতা সঙ্কটে পরিণত হতে পারে।

ক্ষুধার সঙ্কটের উপর ব্লেয়ার ইনস্টিটিউটের একটি নতুন প্যামফলেটের ভূমিকা লিখে, বিসলে বলেছেন, ‘ইউক্রেন সঙ্কটের কারণে এই সংখ্যা বেড়েছে ৩৪ কোটি ৫০ লাখে। এবং ৪৫টি দেশের ৫ কোটি মানুষ এখন দুর্ভিক্ষ থেকে মাত্র এক ধাপ দূরে। তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই এ ক্ষুধার বিপর্যয় থামাতে পদক্ষেপ নিতে হবে – নতুবা এই সংখ্যাগুলি বিস্ফোরিত হবে। ইউক্রেনের সীমানা থেকে অনেক দূরে ছড়িয়ে পড়া মূল্যবৃদ্ধি, রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা এবং মৌলিক খাদ্যদ্রব্যের ঘাটতি সহ বিশ্বব্যাপী খাদ্য বাজারগুলি অশান্তিতে নিমজ্জিত হয়েছে। আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া এমনকি লাতিন আমেরিকার দেশগুলোও এই সংঘাতের উত্তাপ অনুভব করছে।’

কিয়েভের আপত্তি সত্ত্বেও তুরস্কের বন্দর ছেড়েছে শস্যবাহী রাশিয়ান জাহাজ : ‘জিবেক ঝোলি’ নামের একটি রাশিয়ান পতাকাবাহী বাণিজ্য জাহাজ বুধবার গভীর রাতে তুরস্কের উত্তর-পশ্চিম বন্দর কারাসু ছেড়ে গেছে বলে জাহাজ ট্র্যাকিং ডেটা থেকে জানা গেছে। জাহাজটিতে ইউক্রেন থেকে মুক্ত করা ডনবাস অঞ্চলের শস্য বহন করা হচ্ছিল বলে মনে করা হচ্ছে। রোববার তুরস্কে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ভাসিল বোডনার বলেছেন যে, তুর্কি কর্তৃপক্ষ জাহাজটিকে আটক করেছে, যা কিয়েভ বলেছে যে, বারদিয়ানস্কের দখলকৃত বন্দর থেকে শস্য বহন করছিল। রয়টার্স এর আগে জানিয়েছে যে, ইউক্রেন তুরস্ককে জাহাজটিকে আটক করতে বলেছিল।

তবে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বুধবার তুর্কি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক জাহাজ আটকের গুজবকে মিথ্যা প্রতিবেদন বলে উড়িয়ে দিয়েছে। তারা বলেছে যে, ৭ হাজার ১৪৬ টন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন জাহাজটি ‘স্ট্যান্ডার্ড পদ্ধতির মধ্য দিয়ে চলছে।’ মেরিনট্রাফিক ওয়েবসাইটটি দেখায় যে, জাহাজটি দৃশ্যত অদৃশ্য হওয়ার আগে কারাসুর কৃষ্ণ সাগর বন্দর থেকে কমপক্ষে ২০ কিলোমিটার (১২ মাইল) দূরে সরে যাচ্ছে। ইউক্রেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার বলেছে যে, রাশিয়ান জাহাজটি যাত্রা করার পরে তারা তুরস্কের রাষ্ট্রদূতকে ব্যাখ্যা করতে তলব করবে। ইউক্রেনের মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জাহাজটিকে ছেড়ে যাওয়ার অনুমতি দেয়া ‘অগ্রহণযোগ্য’ ছিল। সূত্র : ডেইলি সাবাহ, দ্য গার্ডিয়ান, কোয়ার্টজ, নিউজউইক, গ্রিকরিপোর্টার, স্কাই নিউজ।



 

Show all comments
  • Habib ৯ জুলাই, ২০২২, ৫:৪৭ এএম says : 0
    পুতিনের লক্ষ্য হওয়া উচিত ইউক্রেন দখলের পর পোল্যান্ড ও বাল্টিক সাগরের তীরবর্তী সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র সমূহ দখল করা।
    Total Reply(0) Reply
  • Jahanara Begum ৯ জুলাই, ২০২২, ৫:৪৬ এএম says : 0
    যুদ্ধ যতদিন চলবে যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রবিক্রি তত বাড়বে, একদিকে যুক্তরাষ্ট্র চাচ্ছে তার অস্ত্র বিক্রি বাড়ুক এবং রাশিয়া দূর্বল হয়ে যাক। অন্য দিকে পশ্চিমা দেশগুলো আমাদের মত দূর্বলের হাড্ডির উপর জয়পতাকা উড়াবে। যুদ্ধ যেই করুক এটা অন্যায়, কিন্তু প্রশ্ন হলো যুদ্ধ ছাড়া পশ্চিমারা কি থাকতে পারবে? তাদের অস্ত্র কার কাছে বিক্রি করবে? শান্তি শব্দ টা তাদের অভিধানে নেই। ইউক্রেনকে আজ বাঘের মুখে ঠেলেদিয়ে নিজেদের একত্রিত করার জন্য দৌড় প্রতিযোগিতা শুরু করেছে,অন্যদিকে ইউক্রেনের সাধারণ মানুষের কান্নায় আকাশ বাতাস প্রকম্পিত হচ্ছে। বাহ্! সুপার পাওয়ার বাহ্।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন যুদ্ধ কেবল শুরু করেছে রাশিয়া : পুতিন
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ