Inqilab Logo

বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ০২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৮ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

ভাসমান মাইনে উড়ে গেছে ইউক্রেনের জাহাজ

নর্ড স্ট্রিম ২ এর অপারেশনকে সমর্থন করেন জার্মান এমপি ম্যাখোঁ আফ্রিকার দেশগুলোকে অপমান করেছেন যে কেউ মার্কিন নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসতে পারে : লাভরভ ওয়াগনার নিয়মিত সেনা ইউনিটের মতো মো

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ আগস্ট, ২০২২, ১২:১১ এএম

রাশিয়ান ন্যাশনাল ডিফেন্স মনিটরিং সেন্টারের প্রধান, কর্নেল মিখাইল মেজিনসেভ বলেছেন যে, একটি ইউক্রেনীয় হাইড্রোগ্রাফিক জাহাজ দানিয়ুবের মুখে ভেসে যাওয়া একটি মাইনে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। তার মতে, জাহাজটি যখন ‘দানিউবের মুখে একটি জলধারার গভীরতা পরিমাপ করছিল’ তখন ঘটনাটি ঘটে। কর্মকর্তার মতে, ১৬টি দেশের ৭০টি বিদেশী জাহাজ এখনও খেরসন, নিকোলায়েভ, চেরনোমর্স্ক, উচাকভ, ওডেসা এবং ইউঝনি -এ ছয়টি বন্দরে অবরুদ্ধ রয়েছে। মিজিনসেভ বলেছেন, ‘শেলিং-এর হুমকি এবং মাইনের বিপদ, কিয়েভ সরকারের ক্রিয়াকলাপের কারণে জাহাজগুলোকে অবাধে চলাচল করতে বাধা দেয়’, কিয়েভ সরকার বিদেশী কোম্পানি এবং জাহাজ মালিকদের সাথে এ বিষয়ে আলোচনা এড়িয়ে চলেছে।
কর্মকর্তা যোগ করেছেন, ‘একই সময়ে, সামুদ্রিক নেভিগেশন এবং বন্দর অবকাঠামোর জন্য এখনও ঝুঁকি রয়েছে, যেগুলো কেবল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া খনিগুলোর দ্বারা সৃষ্ট’। রাশিয়ান ফেডারেশন কালো এবং আজভ সাগরে বেসামরিক ন্যাভিগেশনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করে।
যে কেউ মার্কিন নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসতে পারে : লাভরভ : রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ গত শুক্রবার এসসিও পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের কাউন্সিলের বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বলেছেন যে, আফ্রিকান দেশগুলো এবং এসসিও দেশগুলো বুঝতে পারে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের যে কোনো সদস্য ওয়াশিংটনের নিষেধাজ্ঞার অধীন হতে পারে।
‘অবশ্যই, আফ্রিকান দেশগুলো এবং সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার অন্যান্য দেশ ভালভাবে জানে যে, বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের যে কোনো সদস্য যদি আমেরিকানরা অপছন্দ বা ঘৃণা করে এমন কোনো আচরণ করে তবে তাদের নিষেধাজ্ঞার অধীন হতে পারে। আমি মনে করি, এ ধারণাটি প্রত্যেকের মনে বেশ দৃঢ়ভাবে স্থির’।
ল্যাভরভ উল্লেখ করেছেন যে, বৈঠকের সময় দলগুলো সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার নেতাদের কাছে জাতীয় মুদ্রায় পারস্পরিক বন্দোবস্তে স্থানান্তরের বিষয়ে দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে সম্মত হয়েছে। ‘আমি মনে করি সবাই এখন এটি সম্পর্কে চিন্তা করতে যাচ্ছে। আফ্রিকার ইতোমধ্যেই এ অভিজ্ঞতা রয়েছে। কিছু উপ-আঞ্চলিক কাঠামোতে সাধারণ মুদ্রা রয়েছে, তবে সেগুলো সাধারণভাবে পশ্চিমা মুদ্রার সাথে সংযুক্ত। কিন্তু পরের বছর থেকে তাদের মুদ্রা থাকবে। সমগ্র মহাদেশীয় মুক্ত বাণিজ্য এলাকা চালু রয়েছে। যৌক্তিক পদক্ষেপ হবে মুদ্রা ব্যবস্থার মাধ্যমে মুক্ত বাণিজ্য এলাকাকে কোনোভাবে শক্তিশালী করা। আমি মনে করি, এ প্রক্রিয়া অবশ্যই এগিয়ে যাবে’।
ম্যাখোঁ আফ্রিকার দেশগুলোকে অপমান করেছেন : আফ্রিকার দেশগুলোকে অপমান করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। তার এক বক্তব্যের প্রেক্ষিতে এমন অভিযোগ তুলেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। সম্প্রতি ম্যাখোঁ দাবি করেন, আফ্রিকার অবৈধ শাসকদের সমর্থন দিচ্ছে মস্কো। মূলত রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সর্বশেষ আফ্রিকা সফর নিয়েই এই খোঁচা মেরেছেন তিনি। তবে এর জবাবও দিয়েছেন ল্যাভরভ। তিনি বলেন, আফ্রিকা মহাদেশে রাশিয়ার সামরিক ও কূটনৈতিক কার্যক্রম নিয়ে উদ্বিগ্ন ফ্রান্স। এ জন্য ফরাসি প্রেসিডেন্ট দাবি করেছেন যে, রাশিয়া আফ্রিকার ব্যর্থ, অবৈধ এবং সামরিক শাসকদের সমর্থন দিচ্ছে। কিন্তু এই দাবির মধ্য দিয়ে ম্যাখোঁ আফ্রিকার দেশগুলোকেই অপমান করেছেন। ল্যাভরভ আরো বলেন, আমি আফ্রিকার যে দেশগুলোতে সফর করেছি, ম্যাখোঁ সেসব দেশকে নিয়ে অবমাননামূলক মন্তব্য করেছেন। যারাই রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন করছে তাদেরকেই ফ্রান্স এভাবে দেখছে। আরটি’র খবরে জানানো হয়, সম্প্রতি মিসর, কঙ্গো, উগান্ডা এবং ইথিওপিয়া সফর করেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
ম্যাখোঁ তার বক্তব্যের মধ্য দিয়ে এই চার দেশের শাসকদের অবৈধ বলে দাবি করেছেন। রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আফ্রিকা সফরের সময় মহাদেশটি সফরে ছিলেন ম্যাখোঁ নিজেও। তিনি সফর করছিলেন ক্যামেরুন, বেনিন ও গিনি-বিসাউ। সাবেক ফ্রেঞ্চ কলোনি ক্যামেরুনে বক্তব্য দেয়ার সময় গত মঙ্গলবার ম্যাখোঁ বলেন, রাশিয়া হচ্ছে বিশ্বের সর্বশেষ সাম্রাজ্যবাদী দেশগুলোর একটি। তারা এখন আফ্রিকার দুর্বল রাজনৈতিক শক্তি এবং অবৈধ সামরিক জান্তাগুলোকে সমর্থন দিচ্ছে। এছাড়া মালি এবং সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কিত প্রাইভেট মিলিটারি কোম্পানি ওয়াগনারের কার্যক্রম নিয়ে উদ্বেগ জানান তিনি। তবে ল্যাভরভ বলেন, ফরাসি সেনারা চলে যাওয়ায় মালির সরকারই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য ওয়াগনারকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল।
লাটভিয়ায় গ্যাস সরবরাহ স্থগিতের ঘোষণা রাশিয়ার : ইউরোপের দেশ লাটভিয়ায় গ্যাস সরবরাহ স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। গতকাল শনিবার রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় জ্বালানি কোম্পানি গ্যাজপ্রমের তরফে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। গ্যাজপ্রম বলছে, গ্যাস উত্তোলনের শর্ত লঙ্ঘনের কারণে প্রতিবেশী দেশটিকে গ্যাস সরবরাহ স্থগিত করে দিয়েছে তারা।
একদিন আগেই লাটভিয়ার জ্বালানি প্রতিষ্ঠান লাটভিজাস গেজ জানায়, রাশিয়া থেকে তারা গ্যাস কিনছে। তবে গ্যাজপ্রমের সঙ্গে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে রুশ মুদ্রা রুবলের বদলে ইউরোতে অর্থ পরিশোধ করা হবে। লাটভিজাস গেজের ওই ঘোষণার একদিনের মাথায় দেশটিতে সরবরাহ বন্ধের কথা জানায় গ্যাজপ্রম।
এর আগে গত সপ্তাহে রাশিয়ার প্রধান পাইপলাইনে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে গ্যাস সরবরাহ আরো কমিয়ে দেওয়ার ঘোষণা দেয় গ্যাজপ্রম। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, নর্ড স্ট্রিম ওয়ান নামে পরিচিত রাশিয়া থেকে জার্মানিতে গ্যাস সরবরাহের প্রধান পাইপলাইনে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের কারণে উৎপাদন ২০ শতাংশ হ্রাস পাবে। যার ফলে বর্তমানের চেয়ে গ্যাস সরবরাহ অর্ধেক কমে যাবে। তবে জার্মানি বলছে, প্রযুক্তিগত এমন কিছু আসলে নেই।
নর্ড স্ট্রিম ওয়ান গত বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই ক্ষমতার চেয়ে অনেক কম গ্যাস উৎপাদন করছে। এ মাসেই রক্ষণাবেক্ষণ বিরতির কারণে দশদিনের জন্য পুরোপুরি বন্ধ রাখা হয়েছিল উৎপাদন।
ইউরোপের দেশগুলোর ৪০ শতাংশ গ্যাস সরবরাহ হয় রাশিয়া থেকে। তবে মস্কোর বিরুদ্ধে জ্বালানিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যাবহার করছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো। রাশিয়ার তরফে সরবরাহ কমিয়ে দেওয়া অথবা পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি আসার পর ইউরোপিয়ান কমিশন ইতোমধ্যেই তার সদস্য দেশগুলোকে গ্যাসের ব্যাবহার ১৫ শতাংশ কমিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছে। তবে জরুরি অবস্থা তৈরি হলে গ্যাস ব্যাবহারের ক্ষেত্রে স্বেচ্ছায় কৃচ্ছ্রতা সাধনের বিষয়টি বাধ্যতামূলক করা হতে পারে।
ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডার লিয়েন বলেছেন, রাশিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে গ্যাস সরবরাহ পুরোপুরি বন্ধ করে দেবে; এমন সমূহ আশঙ্কা রয়েছে।
নর্ড স্ট্রিম ২ এর অপারেশনকে সমর্থন করেন জার্মান এমপি : জার্মানির এখনও রাশিয়ান গ্যাস এবং নর্ড স্ট্রিম ২ গ্যাস পাইপলাইন প্রয়োজন, যা সম্পূর্ণ হয়েছে, কিন্তু এখনও অনুমোদিত হয়নি। জার্মান পার্লামেন্ট বুন্ডেস্ট্যাগ ক্লাইমেট অ্যাকশন অ্যান্ড এনার্জি কমিটির চেয়ারম্যান গত শুক্রবার তাসকে বলেছেন, অন্য কোনো বিকল্প না থাকলে ব্যবহার করা যেতে পারে।
তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘সামগ্রিক পরিকল্পনায় জার্মানিতে কোন পাইপলাইন গ্যাস সরবরাহ করে তা আসলে ব্যাপার নয়, গ্যাস যাই হোক না কেন তা এখনও রাশিয়ান। এই অর্থে, নর্ড স্ট্রীম ২ এর সমস্যাটি প্রতীকী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারণ নির্বিশেষে যদি না থাকে অন্যান্য সম্ভাবনা এবং গ্যাসের সরবরাহ শেষ পর্যন্ত শুধুমাত্র নর্ড স্ট্রিম ২ ব্যবহার করে অর্জন করা যেতে পারে, তাহলে আমাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এটি চালু করার কথা বলা উচিত’। জার্মান সরকার সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে পুনর্ব্যক্ত করেছে যে, নর্ড স্ট্রিম ২ আইন দ্বারা ব্যবহার করা যাবে না কারণ গ্যাস পাইপলাইনটি প্রত্যয়িত নয়।
ওয়াগনার নিয়মিত সেনা ইউনিটের মতো মোতায়েন হবে : ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতে, রাশিয়ার বেসরকারী সামরিক সংস্থা ওয়াগনার গ্রুপকে সম্ভবত নিয়মিত সেনা ইউনিটের অনুরূপ ফ্যাশনে যুদ্ধ-বিধ্বস্ত পূর্ব ইউক্রেনের ফ্রন্টলাইনের নির্দিষ্ট সেক্টরের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হবে।
বিভাগ শুক্রবার টুইটারে একটি নিয়মিত গোয়েন্দা বুলেটিনে বলেছে, ‘এটি ২০১৫ সাল থেকে গ্রুপের পূর্ববর্তী কর্মসংস্থান থেকে একটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন, যখন এটি সাধারণত রাশিয়ার নিয়মিত, প্রকাশ্য এবং বৃহৎ আকারের সামরিক কার্যকলাপ থেকে ভিন্ন কাজ সম্পাদন করে’।
ছায়াময় গোষ্ঠী এবং রাশিয়ান সামরিক বাহিনীর মধ্যে একীকরণের এ নতুন স্তর, তিনি যোগ করেছেন, ‘আরো [প্রাইভেট মিলিটারি কোম্পানি (পিএমসিএস)] এবং রাশিয়ান রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক অস্বীকার করার রাশিয়ান কর্তৃপক্ষের দীর্ঘস্থায়ী নীতিকে দুর্বল করে’।
ব্রিটিশ গোয়েন্দারা এ পরিবর্তনের জন্য মস্কোতে কমব্যাট ইনফ্যান্ট্রির উল্লেখযোগ্য ঘাটতির জন্য দায়ী করেছে, কিন্তু বলেছে যে, ওয়াগনারের বাহিনী যুদ্ধে অনেক পরিবর্তন আনতে যথেষ্ট হবে এমন সম্ভাবনা কম।
বিশ্লেষকরা নোট করেছেন যে, ক্রেমলিন ইউক্রেনের দখলকৃত অংশে তার উপস্থিতি বজায় রাখতে এবং রাশিয়ার সাথে সংযুক্তির জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য ক্রমবর্ধমানভাবে ওয়াগনারের উপর নির্ভরশীল। ‘এটা সম্ভব যে, ক্রেমলিন দখলকৃত অঞ্চলগুলোতে দখলদারিত্বের আইন প্রয়োগ করতে এবং প্রতিরোধের প্রচেষ্টা চালানোর জন্য অনেক ইউক্রেনীয়কে নিয়োগ করতে সক্ষম হয়নি’, ওয়াশিংটন-ভিত্তিক ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অফ ওয়ার বলেছে যোগ করে যে, পিএমসিগুলো সমর্থন করার জন্য কাজ করছে ‘জাল সংযুক্তি গণভোট’।
গবেষণা কেন্দ্র সোমবার উল্লেখ করেছে যে, ভৌগোলিকভাবে অবস্থিত সোশ্যাল মিডিয়া ফুটেজে দেখা গেছে ওয়াগনারের বাহিনী পূর্ব ইউক্রেনের দোনেৎস্ক অঞ্চলের নভোলোহানস্কির দিকে অগ্রসর হচ্ছে। রাশিয়া ইউক্রেনে যুদ্ধের জন্য অপারেশনের অন্যান্য এলাকা থেকে যোদ্ধা আমদানি করছে বলেও মনে করা হচ্ছে।
ইউএস আফ্রিকা কমান্ডের কমান্ডার জেনারেল স্টিফেন টাউনসেন্ড বুধবার বলেছেন, ওয়াগনার লিবিয়া থেকে অনির্দিষ্ট সংখ্যক সৈন্য সরিয়ে নিয়েছিলেন, যেখানে তারা দেশটির গৃহযুদ্ধে বিদ্রোহী সামরিক কমান্ডার খলিফা হাফতারকে সমর্থন করেছিল।
গত বছর, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ওয়াগনারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল, সেইসাথে সিরিয়ার আট ব্যক্তি এবং তিনটি শক্তি সংস্থার বিরুদ্ধে ইউক্রেন, লিবিয়া এবং সিরিয়ায় ভাড়াটেদের অর্থায়নে সহায়তা করার অভিযোগে অভিযুক্ত।
ওয়াগনার গ্রুপ কী?
মার্কিন এবং ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের মতে, ওয়াগনার চেচেন যুদ্ধের একজন অভিজ্ঞ এবং বিদেশী জিআরইউ, জিআরইউ-এর প্রাক্তন প্রধান দিমিত্রি উটকিনের নেতৃত্বে রয়েছেন। এর পরিচালনা এবং অপারেশনগুলো রাশিয়ান সামরিক এবং গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত, যদিও ক্রেমলিন রাষ্ট্রের সাথে কোনো সংযোগ অস্বীকার করে।
ওয়াশিংটন ভিত্তিক সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজ সামরিক ফার্মের মূল্যায়নে বলেছে, ‘ওয়াগনার গ্রুপ এখন সামরিক এবং আধাসামরিক ক্ষমতা, গোপন মিডিয়া এবং রাজনৈতিক ম্যানিপুলেশনসহ বিভিন্ন পরিষেবা প্রদান করে’।
ওয়াগনার, রাশিয়ার অনেক পিএমসি-এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পরিচিত, প্রাথমিকভাবে ২০১৪ সালে ইউক্রেনে মোতায়েন করা হয়েছিল, যেখানে এটি ২০১৫ সালে সিরিয়ায় যাওয়ার আগে ক্রিমিয়া দখলে সহায়তা করেছিল। তারপর থেকে, এটি লিবিয়া, মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, মালি, মোজাম্বিক এবং সুদানে হস্তক্ষেপের জন্য পরিচিত। সূত্র : তাস, রয়টার্স ও আল-জাজিরা।



 

Show all comments
  • Syed Enayet Hossain ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫১ এএম says : 0
    ইউক্রেন রাশিয়ার মিডাম মিডাম যুদ্ধ পুরো মানবজাতিকে হুমকির মুখে ফেলে দিছে। তাই যুদ্ধ বন্ধ করতে অনুরোধ জানাচ্ছি।
    Total Reply(0) Reply
  • Qari Mawlana Md Asadujjaman ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫০ এএম says : 0
    পুতিন ইজ পুতিন বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ও বিশ্বনেতা সবাই তাঁকে নিয়ে ভয়ে থাকে
    Total Reply(0) Reply
  • Touhid Ripon ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫১ এএম says : 0
    Ukraine has one of the most foolish leadership in the world. They're happily killing themselves for the satisfaction of Europe and America. This is what happens when you have a Comedian as a president
    Total Reply(0) Reply
  • Nurul Islam ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫০ এএম says : 0
    কি যে একটা অবস্থা লাগল যুদ্ধটাকে পশ্চিমারা দীর্ঘ করতেচে যা মোটেই টিক নয়।আমরা পুরো পৃথিবীতে শান্তি চাই
    Total Reply(0) Reply
  • Sudipto Raj Masin ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫০ এএম says : 0
    আবার বাংলাদেশের সয়াবিন তেলের দাম বাড়বে মনে হচ্ছে, একেই তো বিদ্যুৎ পাচ্ছিনা ঠিকমতো
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ