Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ০১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

ভিন্ন যে শক্তি দিয়ে বিশ্বে প্রভাব বিস্তার করছে তুরস্ক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ আগস্ট, ২০২২, ৬:৫৭ পিএম

তুরস্কের এরদোগান সরকার ইসলামের মতো একটি সার্বজনীন সংস্কৃতির মাধ্যমে দেশে এবং বিদেশে প্রভাব বিস্তারের লক্ষ্যে কোমল-শক্তি তথা আবেদনকে কাজে লাগাচ্ছে। এর একটি ভালো উদাহরণ হতে পারে ইমাম হাতিপ মাধ্যমিক স্কুল। এই স্কুলের শাখাগুলি শুধু ইমামই তৈরি করছে না, তারা দেশকে আরও ইসলামীপন্থী করে তোলার কাজ করছে।

এর পাশাপাশি দিরিলিস:এর্তুগ্রুল (এরতুগ্রুলের পুনরুত্থান) এর মতো তুর্কি নাটকগুলি কোরিয়ান বা হিন্দি নাটকগুলিকে টেক্কা দিয়ে এখন বিদেশী ভাষার বিনোদন তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছে। এগুলি মধ্যপ্রাচ্য, মধ্য এশীয়া বা এমনকি বলকানদের মধ্যে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করেছে।

এর্তুগ্রুলের কোমল শক্তির প্রভাব এমনই গভীর যে, এই একটি ধারাবাহিক নাটক দৃশ্যত পাকিস্তানের মতো একটি সমগ্র জাতিকে সউদি আরবের সাথে তার পরিচয় এবং ঐতিহ্যগত সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করতে উদ্বুদ্ধ করেছে, যাতে তারা তাদের সঙ্কট-কবলিত জাতীয় চরিত্রকে পুনর্র্নিমাণ করতে পারে।

গড়পড়তার পাকিস্তানি, যারা প্রায় ২০১০ সাল পর্যন্ত আরব হিসেবে পরিচিত ছিলেন, তারা এখন নিজেকে তুর্কি বলে পরিচয় দিচ্ছেন। ভারতের তুলনাম‚লকভাবে সিদ্ধান্তহীন মুসলিমদের মধ্যেও এই অনুষ্ঠানগুলির প্রতিক্রিয়া অভূতপূর্ব। তুর্কি নাটকগুলি এমনকি সাংস্কিৃতকভাবে বিভ্রান্ত শহুরেদের একটি বড় অংশকেও ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে।

আঙ্কারার কাছে টিভি এবং ওয়েব সিরিজ দিয়ে উপমহাদেশকে ছেয়ে ফেলা খুব বেশি ব্যয়বহুল নয় এবং এটি একটি অসাধারণ ভূ-রাজনৈতিক প্রভাব ফেলে। এটি একটি স্বল্প বিনিয়োগ উচ্চ মুনাফার উদ্যোগ। ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান সউদি আরবকে আধুনিকীকরণের চেষ্টা করার সাথে সাথে সহিংস ওয়াহাবিবাদ সুন্নি বিশ্বে একটি ফাঁক রেখে গেছে। এটিকে পুঁজি করা তুরস্কের একটি অব্যর্থ রাজনৈতিক পদক্ষেপ হতে পারে। দেশটির আঞ্চলিক অগ্রাধিকারগুলিতে ইসলামপন্থী কয়েকটি ওয়েব সিরিজ সেই শূন্যতা পুনরুদ্ধার করতে পারে, যা দূরবর্তী ভৌগলিক অঞ্চলে (ভারত বা মায়ানমারের মতো দেশগুলিতে) ওয়াহাবিবাদের প্রসার ঘটলে, এর এর বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপি লাখ লাখ সুন্নিদের মনে বিশ্বস্ত নেতা হিসাবে তুরস্ককে যাওয়ার সৌভাগ্য এনে দিতে পারে।

বেশিরভাগ মুসলিম দেশের কাছেই তুরস্কের নেতৃত্ব গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠতে পারে। ভারতীয় মুসলিমদের দুটি পুরানো সাম্রাজ্যের সাথে আবেগপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে: মুঘল (উপমহাদেশীয়), এবং অটোমান (এম কে গান্ধী, খিলাফত, এবং কল্পিত ইউরেশীয় ইসলামিক পরাশক্তি)। তাই অনমনীয় এবং সহিংস মরুভ‚মি সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্বকারী ওয়াহাবিবাদকে হটিয়ে দিয়ে একটি যত্ন সহকারে সাজানো জমকালো রাজকীয় আবেদন আধুনিক জনমনে গ্রহণযোগ্যতা পেতে বাধ্য। আঙ্কারা এটি ব্যবহার করে কাশ্মীর, রোহিঙ্গা ইস্যু বা এঅঞ্চলের স্থানীয় নির্বাচনকেও প্রভাবিত করতে পারে।

তারপর রয়েছে আর্থিক দিক। ওয়াহাবিবাদের বিশ্বব্যাপী পৃষ্ঠপোষকদের মধ্যে অনেকে যেখানেই উপযুক্ত সেখানে ভৌগলিক অস্থিতিশীলতা তৈরির দিকে মনোনিবেশ করেছিল। সউদি আরব দৃশ্যপট থেকে সরে আসায় ভবিষ্যতে এরদোগানের জন্য সেই নেতৃত্বের সুযোগ ঘটতে পারে, যেখানে তুরস্ক সেইসব বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে শুরু করবে এবং অপ্রতিদ্বন্দ্বী শক্তি-কেন্দ্রে পরিণত হবে, যা অর্থায়নের পাশাপাশি ইসলামের কোমল এবং কঠোর আবেদনের প্রসার ঘটাবে। এবং তুরস্ক একটি ইসলামী সাম্রাজ্যের পুনরুত্থানের উদ্দেশ্যে আরও শক্তিশালী হয়ে উঠবে। সূত্র: ফার্স্ট পোস্ট।

 



 

Show all comments
  • Mostafa kamal ১ আগস্ট, ২০২২, ১১:২৬ পিএম says : 0
    Alhamdulillah go ahead brother Erdogan
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তুরস্ক


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ