Inqilab Logo

সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

তিস্তার পানি বিপৎসীমার ওপরে, ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ আগস্ট, ২০২২, ২:২০ পিএম

ভারত থেকে আসা উজানের ঢলে তিস্তা নদীর পানি বেড়ে গতকাল সোমবার দুপুর থেকে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে লালমনিরহাটের ৫ এবং কুড়িগ্রামের ৩ উপজেলার ৮০টি চর ও নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলের প্রায় ২০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
ঘরের ভেতর নদীর পানি প্রবেশ করায় অনেক পরিবার গবাদিপশু ও আসবাবপত্র নিয়ে সরকারি রাস্তা এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। তিস্তাপাড়ের মানুষ তৃতীয় দফায় বন্যা পরিস্থিতিতে পড়েছেন।
লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, 'আজ মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে তিস্তা নদীর পানি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দোয়ানিতে তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে সোমবার সন্ধ্যায় পানি ছিল বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপরে। ১২ ঘণ্টায় ১০ সেন্টিমিটার পানি হ্রাস পেয়েছে। আপাতত তিস্তায় পানি স্থিতি রয়েছে, তবে উজানের ঢলের কারণে পানি আরও বাড়তে পারে।'
তিনি আরও বলেন, ‘উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢলের পানির চাপ কমাতে তিস্তা ব্যারেজের ৪৪টি গেটের সবগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে।’
লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম এলাকার পানিবন্দি কৃষক নজরুল ইসলাম জানান, তিস্তায় আকস্মিক পানি বেড়ে যাওয়ায় নদীর পানি ঘরে ঢুকে পড়েছে। তার ৬ বিঘা জমির রোপা আমন ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এসব আমন ধানের গাছ ৫-৬ দিন পানির নিচে তলিয়ে থাকলে নষ্ট হয়ে যাবে। তারা ঘরে বসবাস করছেন, তবে গরু-ছাগল সরকারি রাস্তার ওপর রেখেছেন।
লালমনিরহাট সদর উপজেলার কালমাটি গ্রামের পানিবন্দি জনুফা বেওয়া জানান, ঘরের ভেতর কোমর সমান পানি। পরিবারের লোকজন সবাই সরকারি রাস্তার ওপর আশ্রয় নিয়েছেন। গ্রামের রাস্তা পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় তারা কলাগাছের ভেলায় চড়ে যাতায়াত করছেন। তিস্তায় পানি বাড়লে তাদের দুর্ভোগ আরও বেড়ে যায়।
কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার গতিয়াশ্যাম গ্রামের পানিবন্দি কৃষক আবেদ আলী জানান, তিস্তায় আকস্মিক পানি বেড়ে যাওয়ায় তারা আবারও বন্যা পরিস্থিতিতে পড়েছেন। ঘরের ভেতর কোমর পযর্ন্ত পানি। তারা সরকারি রাস্তার ওপর আশ্রয় নিয়েছেন।
লালমনিরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সুজন বলেন, 'তিস্তাপাড়ে বন্যা পরিস্থিতির খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় চরাঞ্চল থেকে পানিবন্দি লোকজনকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।'
এদিকে কয়েকদিনের ভারী বৃষ্টিপাত ও ভারতের গজলডোবা ব্যারাজে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলার মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তা নদীতে পানি বেড়েছে। তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় নদীর তীরবর্তী এলাকায় ও নিম্নাঞ্চলে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। এতে জেলা সদর, হাতীবান্ধা, কালীগঞ্জ, আদিতমারী ও পাটগ্রাম উপজেলায় নদীর তীরবর্তী ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। এ ছাড়া পানি নিয়ন্ত্রণ করতে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।
আজ সকালে আদিতমারী উপজেলার সলেডি স্পার-২ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, তিস্তা নদীর পানি হু হু করে বাড়ছে। সঙ্গে সঙ্গে তিস্তা পাড়ের লোকজন অনেকেই আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন। আবার অনেকেই তাদের গবাদিপশু নিয়ে উঁচু স্থানে গাদাগাদি করে অবস্থান করেছেন।
এদিকে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন সেখানকার স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা। সেখানে গোবর্দ্ধন এম এইচ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোবর্দ্ধন হায়দারীয়া বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয় ও গোবর্দ্ধন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে কোমর পরিমাণ পানি হওয়ায় স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে। সেইসঙ্গে আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার রাস্তায়ও হাটু পরিমাণ পানি উঠায় বিপাকে পড়তে হচ্ছে বানভাসি মানুষের।
মহিষখোচা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মতিয়ার রহমান মতি বলেন, হঠাৎ করে রাতেই তিস্তায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন এখানকার বাসিন্দারা। এবারের বন্যা সবচেয়ে ভয়াবহ, এর আগে আর কখনো এমন বন্যা দেখা দেয়নি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্যা পরিস্থিতি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ