Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ০১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মুহাররম ১৪৪৪

ইসরাইলে শতাধিক রকেট হামলা পাল্টা হামলায় নিহত অন্তত ১২

বিভিন্ন দেশ-সংগঠনের নিন্দা : বৈশ্বিক উত্তেজনা কমানোর আহ্বান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০২২, ১২:০৭ এএম

ফিলিস্তিনের ইসলামিক জিহাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে ইসরাইল। সংগঠনটির বেশ কিছু স্থাপনায় হামলা চালিয়েছে দেশটি। এতে নিহত হয়েছে ইসলামিক জিহাদের অন্তত এক ডজন সদস্য। নিহতদের মধ্যে আছেন সংগঠনটির উত্তরাঞ্চলীয় অংশের প্রধান। জেরুজালেম পোস্টের খবরে জানানো হয়, স্থানীয় সময় শুক্রবার রাত ৯টার পর থেকে ইসরাইলের অভ্যন্তরে টানা রকেট ছুঁড়ছে ইসলামিক জিহাদ। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে সমগ্র রাতই সতর্ক সাইরেন বেজেছে। ইসরাইলের মধ্যাঞ্চলীয় শহর হোলোন, বাত ইয়াম এবং রিশন লেতজিওনেও সাইরেন বাজার খবর পাওয়া গেছে। শনিবার সকাল হতে না হতেই প্রায় ১৬০টি রকেট নিক্ষেপ করে ইসলামিক জিহাদ। এরমধ্যে ১৩০টি রকেট ইসরাইলে প্রবেশ করে। তবে এগুলো মাটিতে পড়ার আগেই ধ্বংস করে দেয় ইসরাইলের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আয়রন ডোম। এদিকে শনিবার সকাল থেকেই গাজায় হামলা চালাচ্ছে ইসরাইল। হামলায় যোগ দিয়েছে যুদ্ধবিমান, সশস্ত্র ড্রোন, হেলিকপ্টার এবং ট্যাংক। অন্তত ৪০টি টার্গেটে এগুলো আক্রমণ করেছে। ধ্বংস করা হয়েছে সামরিক ঘাটি, অস্ত্র তৈরির কারখানা, অস্ত্রাগার, রকেট নিক্ষেপ কেন্দ্র, ইসলামিক জিহাদের ব্যবহার করা ভবন, নজরদারি চৌকি এবং অন্যান্য নানা স্থাপনা। যদিও গাজা থেকে একাধিক রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ইসরাইলের হামলায় বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে আছে ৫ বছরের এক শিশুও। এছাড়া আহত হয়েছে আরও ৮০ জন। তবে আইডিএফ মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল র‌্যা ন কোহাভ বলেন, আমাদের হামলা অব্যাহত থাকবে, আমরা এখনো শেষ করিনি। আমরা তাদেরকে জানাতে চাই যে, তাদের বিরুদ্ধে আমাদের শক্তিশালী গোয়েন্দা কার্যক্রম অব্যাহত আছে এবং আমরা পেশাদারিত্বের সঙ্গে আক্রমণ অব্যাহত রাখবো। এই বার্তা শুধু ইসলামিক জিহাদের জন্যেই নয়, সেখানে সক্রিয় সকল ‘সন্ত্রাসী’ দলের জন্যই।
এদিকে গাজা উপত্যকায় বর্বর ইসরাইলের মারাত্মক আক্রমণ এবং প্রতিক্রিয়া হিসাবে ফিলিস্তিনি রকেট ফায়ারের মিশ্র প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। ইসরাইল এবং তার মিত্ররা বিমান হামলার সমর্থনে এবং অন্যরা অবরুদ্ধ গাজাবাসীকে সমর্থন করে তাদের ওপর সহিংসতার নিন্দা করে।
মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়ার জন্য জাতিসংঘের বিশেষ সমন্বয়কারী টর ওয়েনেসল্যান্ড সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ‘বিপজ্জনক’ বৃদ্ধি এমন এক সময়ে আরো সাহায্যের প্রয়োজন তৈরি করেছে যখন নানা সঙ্ঘাতে বিশ্ব সম্পদ সঙ্কুচিত হয়ে পড়েছে।

ওয়েন্সল্যান্ড বলেছেন, ‘গত কয়েক ঘণ্টায় ইসরাইলি বিমান হামলায় অন্তত ১০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এ হামলায় পাঁচ বছরের একটি শিশু নিহত হওয়ার খবরে আমি গভীরভাবে দুঃখিত। বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে হামলার কোনো যৌক্তিকতা থাকতে পারে না’। তিনি রকেট উৎক্ষেপণ অবিলম্বে বন্ধ এবং আরো বৃদ্ধি এড়াতে সব পক্ষকে আহ্বান জানান।

যুক্তরাষ্ট্র : কৌশলগত যোগাযোগের জন্য মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের সমন্বয়কারী জন কিরবি গাজায় ইসরাইলের আক্রমণকে সমর্থন করে উভয় পক্ষকে পরিস্থিতি কমিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছেন।
‘আমরা সক্রিয়ভাবে ইসরাইল-ফিলিস্তিনি আঞ্চলিক অংশীদারদের সাথে এ হামলার পরিপ্রেক্ষিতে আরো শান্ত হওয়ার দিকে কাজ করার জন্য নিযুক্ত আছি এবং আমরা অবশ্যই সব পক্ষকে আরো উত্তেজনা এড়াতে অনুরোধ করছি। আমরা ইসরাইলের নিরাপত্তার প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতিতে অটল রয়েছি এবং আমরা মার্কিন-ইসরাইল অংশীদারিত্বের সব দিককে শক্তিশালী করার জন্য কাজ চালিয়ে যাব’।

‘আমরা ইসরাইলের নিরীহ বেসামরিকদের জীবন নিচ্ছে এমন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে আত্মরক্ষার জন্য ইসরাইলের অধিকারকে সম্পূর্ণরূপে সমর্থন করি। দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানের জন্য আমরা দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। জেরুজালেম এবং বেথলেহেম উভয় স্থানে সফরে এটি ছিল প্রেসিডেন্টের অন্যতম প্রধান বার্তা। আমরা এখনও এটির ফলাফল দেখতে চাই, তবে উভয় পক্ষকেও এটি করতে হবে’।
তুরস্ক : আঙ্কারা গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলার ‘কঠোর’ নিন্দা করে বলেছে, ‘এটি অগ্রহণযোগ্য যে, শিশুসহ বেসামরিক লোকরা হামলায় প্রাণ হারাচ্ছে’।

অবরুদ্ধ ছিটমহলে ভয়াবহ হামলার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি বিবৃতিতে ‘সংযম এবং সাধারণ কাণ্ডজ্ঞান’ ঠিক রাখার আহ্বান জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা হামলার পর এ অঞ্চলে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। আমরা এসব ঘটনা সঙ্ঘাতের নতুন ধারাবাহিকতায় পরিণত হওয়ার আগে শেষ করার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিই’।

মিসর : গাজায় সর্বশেষ উত্তেজনা শান্ত করতে কায়রো কাজ করছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি নিরাপত্তা সূত্র এএফপি নিউজ এজেন্সিকে জানিয়েছে, ‘আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শান্তিতে ফিরে আসার জন্য ঐকমত্যে পৌঁছতে পারব বলে আশা করছি’। পৃথকভাবে, অন্য একটি সূত্র জানিয়েছে, ইসলামিক জিহাদের একটি প্রতিনিধিদল শনিবার পরে কায়রোতে যেতে পারে।

গ্রুপের একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, হামাসের দোহা-ভিত্তিক নেতা ইসমাইল হানিয়াহ সহিংসতার বিষয়ে ‘মিসরীয় গোয়েন্দাদের’ সাথে আলোচনা করেছেন। মিসর, ইসরাইল এবং গাজার সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যে একটি ঐতিহাসিক মাধ্যম গত বছরের মে মাসে যুদ্ধবিরতির বিষয়ে আলোচনা করেছিল।
কাতার : কাতার একটি প্রধান আর্থিক সমর্থক, যে বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে গাজা পুনর্নির্মাণ এবং ইসরাইলি হামলার পরে তার জনগণকে সমর্থন করার জন্য। তারা শুক্রবারের হামলার ‘তীব্র নিন্দা ও নিন্দা’ প্রকাশ করেছে। এটি ‘বেসামরিক নাগরিকদের, বিশেষ করে নারী ও শিশুদের বিরুদ্ধে [ইসরাইলের] দখলদারিত্বের বারবার আক্রমণ বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জরুরিভাবে পদক্ষেপ নেওয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছে’।
শুক্রবার এক বিবৃতিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পুনরুল্লেখ করেছে, ‘ফিলিস্তিনিদের ন্যায়বিচার, ভ্রাতৃপ্রতিম ফিলিস্তিনি জনগণের বৈধ অধিকার এবং এর রাজধানী হিসাবে পূর্ব জেরুজালেমের সাথে ১৯৬৭ সালের সীমান্তে তাদের স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিষয়ে কাতার রাষ্ট্রের দৃঢ় অবস্থান’।

জর্ডান : আম্মান দাবি করেছে যে, ইসরাইল অবিলম্বে গাজা উপত্যকায় আগ্রাসন বন্ধ করুক। মুখপাত্র হাইথাম আবু আল-ফুল ‘বিপজ্জনক’ পরিণতি সম্পর্কে সতর্ক করেছেন যে, ‘কেবল উত্তেজনা এবং সহিংসতা বৃদ্ধি করবে এবং হতাশার পরিবেশকে আরো গভীর করবে’। তিনি বলেন, ‘গাজা স্ট্রিপের সমস্যার সমাধান এবং সহিংসতার বৃদ্ধি রোধ করা দুই-রাষ্ট্র সমাধানের ভিত্তিতে একটি ন্যায্য শান্তি অর্জনের জন্য আলোচনার টেবিলে ফিরে আসার মাধ্যমে একটি বাস্তব রাজনৈতিক দিগন্ত খোঁজার মধ্যে নিহিত’।
ইসরায়েল : ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিড এক টেলিভিশন বিবৃতিতে ‘আমাদের জনগণকে রক্ষা করার জন্য যা যা করা দরকার’ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

‘ইসরাইল একটি তাৎক্ষণিক হুমকির বিরুদ্ধে একটি সুনির্দিষ্ট সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চালিয়েছে। আমাদের লড়াই গাজার জনগণের সঙ্গে নয়। ‘ইসলামী জিহাদ হল একটি ইরানি প্রক্সি, যেটি ইসরাইল রাষ্ট্রকে ধ্বংস করতে এবং নিরপরাধ ইসরাইলিদের হত্যা করতে চায়। ইসলামিক জিহাদের প্রধান, তেহরানে আমরা কথা বলছি। আমাদের জনগণকে রক্ষা করার জন্য যা যা করা দরকার আমরা করব। ইসরাইল গাজায় বৃহত্তর সঙ্ঘাতে আগ্রহী নয়, তবে একটি থেকেও সরে আসবে না’।

ইসলামী জিহাদ : একটি বিবৃতিতে ইসলামিক জিহাদ বলেছে, ‘শত্রুরা আমাদের জনগণকে লক্ষ্য করে একটি যুদ্ধ শুরু করেছে এবং আমাদের সকলেরই দায়িত্ব রয়েছে নিজেদের এবং আমাদের জনগণকে রক্ষা করা এবং শত্রুকে তাদের কর্মকাণ্ডে এগিয়ে যেতে না দেওয়া’।

হামাস : গাজা উপত্যকা শাসনকারী হামাসের সিনিয়র কর্মকর্তা গাজি হামাদ বলেছেন, সর্বশেষ হামলাটি ‘একটি নৃশংস অপরাধ, আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে ইসরাইলি দখলদারদের সঙ্ঘটিত একটি গণহত্যা’। ফিলিস্তিনি দলগুলো ‘ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য সর্বোত্তম বিকল্প’ অন্বেষণ করছে।
ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ : অধিকৃত পশ্চিম তীরে শাসনকারী ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ‘গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি আগ্রাসনের নিন্দা এবং অবিলম্বে এটি বন্ধের দাবি জানিয়েছে’। এক বিবৃতিতে তারা বলেছে, ‘প্রেসিডেন্সি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যেন ইসরাইলকে সর্বত্র আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে এ আগ্রাসন বন্ধে, বিশেষ করে গাজায় এবং তাদের আন্তর্জাতিক সুরক্ষা প্রদান করতে বাধ্য করে’। সূত্র : আল-জাজিরা, জেরুজালেম পোস্ট, এএফপি।



 

Show all comments
  • Shofik ৭ আগস্ট, ২০২২, ২:৪৮ এএম says : 0
    ইউক্রেনের বিষয়ে উদ্বিগ্ন মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো কোথায়?
    Total Reply(0) Reply
  • Sajol Khan ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৩৬ এএম says : 0
    ঘটনা হলো উলটা "ইসরায়েলের বিমান হামলার প্রতিবাদে শত শত রকেট ছূড়েছে ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ যোদ্ধারা "
    Total Reply(0) Reply
  • Nurul Alam Bhuiyan ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৩৫ এএম says : 0
    আমেরিকা বৃটেনের সৃষ্ট রাষ্ট্র ইসরায়েলের এটা রুটিন ওয়ার্ক। ওদের বানানো রাষ্ট ইসরায়েলকে বসানো হয়েছে আরবের মুসলমানদের এবং ফিলিস্তিনের নীরিহ মানুষকে হত্যা করার জন্য। সুতরাং অনন্তকাল এ হত্যা নির্যাতন নিপীড়ন চলবে।
    Total Reply(0) Reply
  • রাসেল খাঁন ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৩৬ এএম says : 0
    আগের বিমান হামলা হয়েছে তারপর রকেট হামলা।
    Total Reply(0) Reply
  • Umme S. Taz ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৩৬ এএম says : 0
    এটা ইসরাইল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে। ইসরায়েলের চারপাশে মুসলিম দেশ, সবগুলো দেশ একসাথে হলে ইসরায়েলের এত সাহস হতো না।
    Total Reply(0) Reply
  • Umme S. Taz ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৩৬ এএম says : 0
    এটা ইসরাইল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে। ইসরায়েলের চারপাশে মুসলিম দেশ, সবগুলো দেশ একসাথে হলে ইসরায়েলের এত সাহস হতো না।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফিলিস্তিনি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ