Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

‘যুক্তরাষ্ট্রের জোরপূর্বক শ্রম আদায়ের সত্যতা’ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে চীন

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ আগস্ট, ২০২২, ৬:১৬ পিএম

সম্প্রতি চীনের সিনহুয়া বার্তাসংস্থা ‘দেশে-বিদেশে যুক্তরাষ্ট্রের জোরপূর্বক শ্রম আদায়ের সত্যতা’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এ সম্পর্কে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েন পিন আজ (বুধবার) বেইজিংয়ে এক নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, প্রতিবেদনে গত ২ শতাধিক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে বিদ্যমান জোরপূর্বক শ্রমের অস্তিত্বের ঐতিহাসিক তথ্য-প্রমাণ তুলে ধরা হয়েছে।

মুখপাত্র বলেন, দাস-ব্যবসা আমেরিকার আসল পাপ। লাখ লাখ কালো দাসের রক্ত ও অশ্রু এবং কয়েক হাজার চীনা শ্রমিকের হাড়ভাঙা খাটুনি যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে জোরপূর্বক শ্রমের প্রমাণ। তিনি বলেন, এখনও অন্তত ৫ লাখ মানুষ যুক্তরাষ্ট্রে ‘আধুনিক দাসত্বের’ শিকার। কারাগার হলো যুক্তরাষ্ট্রে জোরপূর্বক শ্রমের সবচেয়ে গুরুতর জায়গা। এ ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রে কৃষিকাজ, গৃহস্থালি, ক্যাটারিং, পর্যটন, চিকিত্সায় বাধ্যতামূলক শ্রমের অস্তিত্ব লক্ষ্য করা যায়। শিশু ও নারীদের কাছ থেকে জোরপূর্বক শ্রম আদায় বিশেষভাবে উদ্বেগজনক।

যুক্তরাষ্ট্রে জোরপূর্বক শ্রমের মাধ্যমে আন্তঃসীমান্ত মানব পাচার ও অন্যান্য দেশের মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়। প্রতি বছর, প্রায় ১ লাখ জন লোককে জোরপূর্বক শ্রমের জন্য বিদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে পাচার করা হয়। আন্তর্জাতিক সমাজ যুক্তরাষ্ট্রের জোরপূর্বক শ্রম নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার কনভেনশন ও সুপারিশ বাস্তবায়নের বিশেষজ্ঞদের কমিটি এবং জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের মানব পাচার সংক্রান্ত বিশেষ প্রতিবেদক অনেকবার প্রশ্ন ও সমালোচনা উত্থাপন করেছেন।

পরিসংখ্যান দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে অন্য দেশের মানবাধিকার বিষয়ের মূল্যায়ন করার অধিকার নেই এবং একতরফাভাবে সেই অজুহাতে অবৈধ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার অধিকারও নেই। সূত্র: সিআরআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চীন

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ