Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

ইউএস ওপেনেই ‘শেষ’ সেরেনার!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

বয়স পেরিয়ে গেছে ৪০। চোটের জন্য মাঝে প্রায় এক বছর থাকতে হয় কোর্টের বাইরে। পারফরম্যান্সও তেমন ভালো নয়। শেষের ডাক তাই শুনতে পাচ্ছেন সেরেনা উইলিয়ামস। এই মাসের শেষ দিকে হতে যাওয়া ইউএস ওপেন দিয়ে টেনিস থেকে অবসরের পরিকল্পনা করেছেন ২৩ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী তারকা।
চোটের কারণে এক বছর টেনিসের বাইরে থাকার পর গত জুনে উইম্বলডন দিয়ে কোর্টে ফেরেন সেরেনা। যদিও প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায় নিতে হয় তাকে। এরপর তিনি প্রথমবার এককের ম্যাচ খেলেন গত সোমবার, টরেন্টো ওপেনে স্পেনের নুরিয়া পারিসাসকে হারিয়ে পা রাখেন দ্বিতীয় রাউন্ডে।
গতপরশু ফ্যাশন ম্যাগাজিন ভোগে নিজের লেখা আর্টিকেলে যুক্তরাষ্ট্রের তারকা তুলে ধরেন অবসরের পরিকল্পনা। মনোযোগ দিতে চান পরিবার ও ব্যবসার দিকে, ‘অবসর শব্দটি আমি কখনোই পছন্দ করিনি। আমি যা করতে যাচ্ছি, সেটি বর্ণনা করার সেরা শব্দ সম্ভবত বিবর্তন। আমি টেনিস থেকে দূরে সরে যাচ্ছি, এমন কিছুর দিকে যাচ্ছি যেগুলো আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। কয়েক বছর আগে অনেকটা নীরবে সেরেনা ভেঞ্চার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠান গড়েছি। এরপর পারিবারিক জীবন শুরু করলাম।’
সেরেনা সবশেষ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছেন ২০১৭ সালে। সেটাই তার ২৩তম। এরপর থেকে তিনি কোনো গ্র্যান্ড স্ল্যামে পা রাখলেই শুরু হয়, তার মার্গারেট কোর্টের ২৪ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের রেকর্ড ছোঁয়ার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা, ক্ষণগণনা। কিন্তু সেই অপেক্ষার আর শেষ হয়নি। ২০১৭ সালে মেয়ে অলিম্পিয়ার জন্মের পর চারটি মেজরের ফাইনালে উঠে রেকর্ড ছোঁয়ার কাছাকাছি গিয়েছিলেন সেরেনা বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামসের সঙ্গে জুটি বেঁধে মেয়েদের ১৪টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম ডাবলস শিরোপাও জিতেছেন সেরেনা। অলিম্পিকসে সোনার পদক জিতেছেন তিনি চারবার- একক (২০১২), ডাবলস (২০০০, ২০০৮, ২০১২), ‘কিছু মানুষ বলে আমি সর্বকালের সেরা নই, কারণ আমি কোর্টের রেকর্ড ভাঙতে পারিনি, যা তিনি ১৯৬৮ সালে শুরু হওয়া উন্মুক্ত যুগের আগে গড়েছিলেন। যদি বলি আমি রেকর্ডটি চাই না, তাহলে মিথ্যা বলা হবে। অবশ্যই আমি চাই। কিন্তু প্রতিনিয়ত আমি সেটি নিয়ে ভাবি না।’ পরে ইনস্টাগ্রাম পোস্টে সেরেনা লেখেন, টেনিস থেকে অন্য দিকে যাওয়ার সময় এসে গেছে, ‘ক্ষণগণনা শুরু হয়ে গেছে। একজন মা হিসেবে আমাকে মাতৃত্বের দিকে নজর দিতে হবে... এবং শেষ পর্যন্ত ভিন্ন কিছুতে নিজেকে আবিস্কার করতে হবে। তবে আমি আরও কয়েক সপ্তাহ টেনিসের স্বাদ নিতে চাই।’
১৯৯৯ সালে ইউএস ওপেন জয়ের মধ্য দিয়ে টেনিসের আঙিনায় নিজের আগমনী বার্তা দিয়েছিলেন সেরেনা। এই টুর্নামেন্ট তিনি পরে জিতেছেন আরও পাঁচবার। এছাড়া সাতবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, তিনবার ফরাসি ওপেন ও সাতবার জিতেছেন উইম্বলডন। সাতবারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক টেনিস খেলোয়াড় জন ম্যাকেনরোর মতে, সেরেনা ইতিহাসের সেরাদের একজন, ‘সেরেনা সেই স্তরের, যেখানে মাইকেল জর্ডান, লেব্রন জেমস ও টম ব্র্যাডি আছেন। সে ছেলে কিংবা মেয়েদের যেকোনো খেলার ইতিহাসে সর্বকালের সেরা ক্রীড়াবিদদের একজন।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউএস ওপেনেই ‘শেষ’ সেরেনার!
আরও পড়ুন