Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

এ সপ্তাহের পদাবলী

| প্রকাশের সময় : ১২ আগস্ট, ২০২২, ১২:০৩ এএম

মুজিব

মুহাম্মদ শামীম রেজা
তোমার জন্য পেলাম পিতা স্বাধীনতার সাধ
দূর হয়েছে সকল ব্যথা বুকের আর্তনাদ
আজ তোমারই শোকে
পাথর বাধি বুকে
কথা দিলাম দেশের জন্য রাখবো কাঁধে কাঁধ।

 

মুছে গেছে রক্তের দাগ
এস এম রাকিব
মুছে গেছে রক্তের দাগ,
আর তোমার চশমার মোটা ফ্রেমে
বাঁধা স্বপ্নগুলো,
শুধু থেকে গেছে সেই কালো রাতের
বিকলাঙ্গ ইচ্ছের বুলেটে
লেখা নৃসংশ কবিতা....
ডায়েরীর পাতা থেকে শব্দেরা উড়ে গেছে
নিথর পড়ে আছে বর্ণমালা
অ, আ, ক,খ...
হায়েনাদের বিষ দাঁত গুড়িয়ে
তুমি যখন বিজয়ী বীর,
সমগ্র মানচিত্রটাই ছিড়ে খেলো
তোমারই পোষা পুরনো শকুন।
কেমন আছে তোমার উত্তর সুরীরা?
তোমার বাংলা, বাঙালী, মেঠোপথ,
ধানক্ষেত, তোমার ধলেশ্বরী, ইছামতী, চিত্রা
ভালো নেই একদম.....
আমরা এখন দুর্নীতির কোলে
মাথা রেখে ঘুমাই, চায়ের কাপে ঝড় তুলি অপরাজনীতির, শিক্ষকের গালে
সজোরে থাপ্পড় বসাই, মুজিব কোটের
নিচে লুকিয়ে রাখি আগ্নেয়াস্ত্র।
আমরা এখন সিন্ডিকেট করি,
তোমার গরীবদের মুখ থেকে কেড়ে নেই
কাঙ্খিত অন্নটুকুও... তাদেরই গায়ের ঘাম আর রক্ত টুকু জমা রাখি সুইস ব্যাংকে,
লাল শালুতে ফ্রিজ করি তোমার আদর্শ....
আমরা এখন শোক করিনা তোমার জন্য, দেখাই, আর অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে থাকে
এই বিপন্ন ব দ্বীপ।।

 

বাংলার শোণিতে বহমান
অনিরুদ্ধ আলম
শস্য-দ্যোতনা দিয়েছে তোমাকে প্রতিভা দুর্নিবার
বুকের শ্রাবণে পুষেছিলে কোনো বিদগ্ধ বেনো নদী
কখনো হয়েছ ধাতব প্রাচীর। আগলালে কান্তার
যেখানে মনন-প্রাণভোমরার বিচরণ নিরবধি।
পাথরেপাথরে ঘর্ষণে আঁকা ফুলকি রাঙানো ক্ষণ
শত বছরের সেই ক্ষণগুলো জড়ো করে এনে তুমি
বলেছিলে, দৃঢ়, প্রদীপ্ত হও। হও প্রেমে অগণন!’
দিকেদিকে লাল পলাশের ঢল মেলে দিল অনুভূমি।
বারুদের ঘ্রাণে উত্তাল হল ধূমকেতুদের গান
শহর-গেরামে সূর্যের যত সুযোগ্য সন্ততি
থাকল না বসে। কৃষ্ণচূড়ার প্লাবনে ডাকল বান
হৃদপিÐের কোষে করতাল বাজায় ঝড়ের গতি।
মানচিত্রের সমান তোমার উপস্থিতিটাজুড়ে
অগ্নিগর্ভ হল তো বাঙালি। বজ্রের কৌশলে
বিষাক্ত নাগিনীর ফণাগুলো দিয়েছিল ভেঙেচুড়ে
আমরা তখন অথই ছিলাম উচ্ছ¡াস সানুতলে।
একটি আঙুল-ইশারাতে ভিসুভিয়াসের বানভাসি
বেগে বিক্ষত হয় হটকারী হায়নার হলাহল
দিকেদিকে গেয়ে উঠেছিল বিজয়ের সুললিত বাঁশি
অবিনাশী সেই ইতিকথা আজো এ হৃদয়ে চিত্রল।
হৃদয়তন্ত্রী ছাপিয়ে একটি বিশ্বাস শুধু জাগে
বর্ণিল অনুরাগে - এই বাংলার শোণিত হয়েই
চির-ঊর্মিল-বহমান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান!

 

সোনার নোলক
শিরিন আফরোজ
বাংলা মায়ের সোনার নোলক হারিয়ে গেলো ঊনিশশত পঁচাত্তরে! সবখানেতে খুঁজি তাঁরে এ বাংলায় ঘুরেঘুরে
দেখিনা আর নোলকটিরে।
এ পথ ঘুরি সে পথ ঘুরি, সবাই নোলকটি চিনে !
এ বাংলার মাটির সাথে মিশে আছে নোলকটি মায়ায় আপনে। সোনার বাংলার স্বপ্ন বুকে চিরনিদ্রায় শুয়ে মাটির কোলে, সোনার নোলকের স্বপ্ন আছো বাঙালির হৃদয়ে দোলে। বিষন্ন এক রাত্রিতে রক্ত ঝড়িয়ে নোলক কেড়ে নিয়েছিল ডাকুর দল, বন্ধুকের গুলিতে তরতাজা রক্ত সেদিন সিঁড়িতে করেছিল টলমল। বাংলার ঘরে ঘরে বৃষ্টি নেমেছিল নোলক হারানোর শোকে !
এ বাংলার ভূ-খন্ড জুড়ে আছে শতশত
পাহাড় নদ-নদী, ফসলের মাঠ সাগরের গর্জন
ভোগ ও সুখ স্বাধীনতা এনে দিল সবি
একটি সোনার নোলক বাংলার আলো
স্বাধীনতা তাঁর অবদান কেমনে ভুলি ! কি করে ভুলি !
সোনার নোলকের নাম



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন