Inqilab Logo

বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ডনবাসে সাবধানে অগ্রসর হচ্ছে মিত্রবাহিনী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ আগস্ট, ২০২২, ৭:২৪ পিএম

ডনবাসে মিত্রবাহিনী বর্তমান ধীর গতিতে অগ্রসর হচ্ছে। এর মাধ্যমে তারা নিজেদের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার পাশাপাশি প্রতিপক্ষের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করতে পারে। এলপিআর পিপলস মিলিশিয়া অফিসার আন্দ্রে মারোচকো একটি সাক্ষাতকারে এ তথ্য জানিয়েছেন।

‘আমরা সঠিকভাবে সেই হারে অগ্রসর হচ্ছি যা কর্মীদের মধ্যে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে এবং প্রতিপক্ষের যতটা সম্ভব ক্ষতি করতে দেয়,’ তিনি জোর দিয়েছিলেন। অফিসারের মতে, মিত্রবাহিনীর বর্তমান অগ্রগতির হার প্রতিপক্ষকে তাদের অবস্থান পরিত্যাগ করতে বাধ্য করে। ‘কোন স্পষ্ট সময়সূচী প্রদান করা অসম্ভব,’ তিনি যোগ করেছেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে আমরা বিভিন্ন সেক্টরে অগ্রসর হচ্ছি।’

‘যদি আমরা প্রতিপক্ষের অগ্নিশক্তিকে সম্পূর্ণরূপে দমন করি এবং একটি নির্দিষ্ট সেক্টরে তাদের নির্মূল করি তাহলে, স্বাভাবিকভাবেই, আমরা এই অবস্থানগুলি দখল করে নিচ্ছি। তবুও নিশ্চিত করা যে, আমাদের সৈন্যরা যাতে আক্রান্ত না হয়। আমাদের লুকানোর জন্য প্রয়োজনীয় অবস্থানের চেয়ে আর্টিলারি দিয়ে তাদের আঘাত করা সহজ। এই ভিত্তি থেকে এগিয়ে, আমরা অনেক ইউক্রেনীয় অবস্থান নিচ্ছি না। গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত তাৎপর্যের সাথে কিছু সুরক্ষিত অবস্থান রয়েছে যা গ্যারান্টি দিতে পারে যে, আমাদের সৈন্যরা নিরাপদ - সে অবস্থানগুলি আমরা দখল করি,’ তিনি ব্যাখ্যা করেছেন।

গত ২১ ফেব্রুয়ারী, রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ডোনেৎস্ক এবং লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের সার্বভৌমত্বকে স্বীকৃতি দেয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। তাদের নেতাদের সাথে বন্ধুত্ব, সহযোগিতা এবং পারস্পরিক সাহায্যের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ২২ ফেব্রুয়ারী, স্টেট ডুমা এবং ফেডারেশন কাউন্সিল উভয় নথি অনুমোদন করেছে এবং পুতিন একই দিনে সংশ্লিষ্ট আইনগুলিতে স্বাক্ষর করেছেন।

পুতিন ২৪ ফেব্রুয়ারি একটি টেলিভিশন ভাষণে বলেছিলেন যে, ডনবাস প্রজাতন্ত্রের প্রধানদের অনুরোধের প্রতিক্রিয়ায় তিনি আট বছরের জন্য কিয়েভ শাসন দ্বারা ‘যারা অপব্যবহার এবং গণহত্যার শিকার হচ্ছেন’ তাদের রক্ষা করার জন্য একটি বিশেষ সামরিক অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাশিয়ান নেতা জোর দিয়েছিলেন যে, মস্কোর ইউক্রেনের অঞ্চলগুলি দখল করার কোন পরিকল্পনা নেই। তিনি উল্লেখ করেন যে, এই অপারেশনটি ইউক্রেনের ডিনাজিফিকেশন এবং নিরস্ত্রীকরণের লক্ষ্য ছিল। সূত্র: তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন