Inqilab Logo

রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯, ২৮ সফর ১৪৪৪

রাজাপুরে বঙ্গোপসাগরের নিম্নচাপ ও ভারিবর্ষনে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

রাজাপুর (ঝালকাঠি) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৪ আগস্ট, ২০২২, ১১:৩৪ পিএম

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলায় হঠাৎ করে অস্বাভাবিকভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে উপজেলার ৫৪ টি গ্রাম সহ রাজাপুর উপজেলা শহরের বাগানবাড়িতে ৩/৪ ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। বঙ্গোপসাগরে নিন্মচাপ ও দক্ষিণ পূবের বাতাস সহ দিনভর ভারী বর্ষণে এ অবস্থার সৃষ্টি।

রাজাপুর উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সূত্রে জানা গেছে- মাছের ঘের, পুকুর, কাচা রাস্তা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠে পানি থৈথৈ করেছে। অধিকাংশ ডুবে গেছে।

উল্লেখ্য, গত ১১ আগস্ট ২ দিন পানি বৃদ্ধির ফলে বীজতলা ডুবে গিয়েছিল এবং ১৩ আগস্ট পানি কমে কিছুটা স্বাভাবিক উন্নতি হয়। এর পরে ১৪ আগস্ট হঠাৎ স্বাভাবিক জোয়ারের তুলনায় নদী নালা ৩/৪ ফুট হঠাৎ বৃদ্ধি পায়। রাজাপুর উপজেলার পূর্ব দিকে ও দক্ষিণ দিকে বিষখালী ও পোনা নদী পশ্চিমে কচানদী। পূর্বে মঠবাড়ি ও বড়ইয়া দক্ষিণে পশ্চিমে গালুয়া, সাতুরিয়ায় পানির জলাবদ্ধতা উপজেলার সর্বত্র নিম্নান্ঞ্চন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।।

এছাড়া বিষখালী, পোনা নদী, কচানদীর তীরবর্তী অঞ্চলের বাগানবাড়ি কাচারাস্তা, পুকুর, মাছের ঘের প্লাবিত হয়েছে। পানি ঢুকে পড়েছে রাজাপুর, বড়ইয়া, সাতুরিয়া, মঠবাড়ি ইউনিয়নের নদীতীরবর্তী সহ শহরের নিচু বাগানবাড়িতে।

বড়ইয়া চেয়ারম্যান মোঃ শাহাবদ্দিন সুরু মিয়া বলেন- আমাদের এলাকা ৯ টি গ্রামের ফসলের ক্ষেত, মাছের ঘের, পথঘাট, বাগানবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে,স্বাভাবিক জোয়ারের তুলনায় ৩/৫ ফুট পানি ২৪ ঘন্টায় জোয়ারের কারণে বৃদ্ধি হয়েছে।

মঠবাড়ি চেয়ারম্যান মোঃ জালাল বলেন- মঠবাড়ি,মানকি, সুন্দর,পুখরীজনা, ডহরশংকর এলাকা বিষখালীনদীর তীরবর্তী গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ধানের ক্ষেত ও বীজ তলা তলিয়ে গেছে,পুকুর তলিয়ে গেছে।

সাতুরিয়া চেয়ারম্যান মোঃ সৈয়দ মাইনুল হক বলেন- সন্ধ্যা নদীতে পানি বৃদ্ধিতে ও ভারি বর্ষণে এলাকার বাড়ির পুকুর তলিয়েছে, তবে আমন বীজ তলা, ফসলের বীজ তলা ও ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে।

এদিকে আবহাওয়ার খবরে বিষখালী ও বঙ্গোপসাগরে তীর বর্তী এলাকার জেলা গুলোতে তিন নম্বর হুশিয়ার সংকেত জানিয়েছে। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রাজাপুর উপজেলা সর্বত্র জোয়ারের পানি বৃদ্ধি ও ভারি বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে।

রাজাপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর বলেন- বঙ্গোপসাগরে নিন্মচাপের প্রভাবে ও বর্ষণের ফলে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলার আমন বীজতলা ৭" শ হেক্টর বীজ তলার ৭০% তলিয়েছে। আমরা মাঠ পর্যায়ে কাজ করছি ও পরামর্শ দিচ্ছি।

কৃষকরা বলেছেন- পুনরায় এ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আমন ফসলের বীজতলা ডুবে গেছে, আমন বীজ তলা ক্ষতি আগের গোনে হয়েছে, এবার নতুন করে আমন বীজতলা ৪/৫ দিন পানিতে ডুবে থাকলে বীজ তলার ব্যাপক ক্ষতির সম্ভাবনা, এতে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ