Inqilab Logo

সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

রাশিয়ার সাফল্য নিয়ে ন্যাটোরও সন্দেহ নেই

নাশকতার উদ্দেশ্যেই ক্রিমিয়ায় হামলা রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করে চীন :: ইউক্রেনীয় বন্দর থেকে পাঁচটি জাহাজ ছাড়ার অনুমতি তুরস্কের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও আর্মি জেনারেল সের্গেই শোইগু গতকাল আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বিষয়ক মস্কো সম্মেলনের সময় বলেছেন, ইউক্রেনে বিশেষ অভিযানের সময় মস্কো তার লক্ষ্য অর্জন করবে তাতে ন্যাটোর কারো সন্দেহ নেই। এদিকে, নাশকতামূলক হামলার কারণে ক্রিমিয়ার ঝাঁকোইতে সামরিক গুদামটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

গতকাল মস্কো সম্মেলনের শোইগু বলেন, ‘ন্যাটোর প্রচেষ্টার লক্ষ্য কিয়েভ শাসনের যন্ত্রণা দীর্ঘায়িত করা। একই সাথে, আমরা নিশ্চিতভাবে জানি, ন্যাটোর কারোরই সন্দেহ নেই যে, রাশিয়ান নেতৃত্বের নির্ধারিত বিশেষ সামরিক অভিযানের লক্ষ্যগুলো অর্জিত হবে।’ প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর মতে, রাশিয়াকে কৌশলগত ও অর্থনৈতিক দুর্বল করে তোলার জন্য পশ্চিমাদের পরিকল্পনা ব্যর্থ হচ্ছে। ‘ডলারের দাম ২০০ রুবলে পৌঁছেনি, যেমন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, রাশিয়ান অর্থনীতি বেঁচে ছিল,’ শোইগু বলেন। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহের পাশাপাশি পশ্চিমা মিত্ররাও বিশদ গোয়েন্দা তথ্য সরবরাহ করেছে এবং ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীকে অস্ত্র ব্যবস্থা পরিচালনা করতে সহায়তা করার জন্য প্রশিক্ষক মোতায়েন করেছে।

নাশকতার উদ্দেশ্যেই ক্রিমিয়ায় হামলা : রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘১৬ আগস্ট সকালে নাশকতামূলক একটি হামলার ফলে ঝাঁকোইয়ের কাছে একটি সামরিক গুদাম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’ হামলার কারণে বিদ্যুৎ লাইন, একটি পাওয়ার প্লান্ট, রেলওয়ে ট্র্যাক এবং বেশ কয়েকটি আবাসিক ভবনসহ বেশ কয়েকটি বেসামরিক স্থাপনাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ‘কেউ গুরুতর আহত হয়নি। পরিণতি দূর করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে,’ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় যোগ করেছে। এর আগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছিল যে, সোমবার সন্ধ্যায় ক্রিমিয়ার ঝাঁকোই জেলার মাইসকোয়ে গ্রামের কাছে একটি সামরিক ইউনিটের একটি অস্থায়ী গোলাবারুদ স্টোরেজ সাইটে আগুন লেগেছিল। আগুনের ফলে গোলাবারুদ বিস্ফোরিত হয়। দুইজন হতাহতের খবর পাওয়া গেছে।

রাশিয়ার ওপরে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করে চীন : চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওয়েই ফেংহি গতকাল বলেছেন, চীন ইউক্রেন ইস্যুতে একটি স্বাধীন ও বস্তুনিষ্ঠ অবস্থানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা দেশগুলোর একতরফা নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করে। ‘চীন ইউক্রেনীয় ইস্যুতে একটি স্বাধীন এবং উদ্দেশ্যমূলক অবস্থান নেয়। আমরা শান্তি পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে আলোচনার প্রক্রিয়াকে প্রচার করছি,’ তিনি দশম মস্কো আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীদের এবং অতিথিদের উদ্দেশে একটি ভিডিও ভাষণে বলেন, ‘আমাদের দেশও একতরফা নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করে (রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের) কারণ এগুলো আমাদের জন্য কোন সমাধান নিয়ে আসবে না।’

ওয়েই ফেংহি যেমন স্পষ্ট করেছেন, বেইজিং আঞ্চলিক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ইউরোপীয় দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক জোরদার করতে চায়। তিনি যোগ করেন, ‘চীন সবসময় শান্তিপূর্ণ সংলাপের পক্ষে, আমরা আমাদের নিজস্ব সমাধান প্রস্তাব করি’। ‘আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল করার স্বার্থে আমরা ক্রমাগত ইউক্রেনের সংঘাতের ক্রমবর্ধমান হ্রাসের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি,’ চীনা প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রধান বলেছেন, ‘ইউক্রেনের সঙ্কট সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষই দায়ী এবং চীন এটা করার জন্য তাদের গঠনমূলক ভূমিকা অব্যাহত রাখবে।’
ইউক্রেনীয় বন্দর থেকে পাঁচটি জাহাজ ছাড়ার অনুমতি তুরস্কের : ইস্তাম্বুলের জয়েন্ট কো-অর্ডিনেশন সেন্টার (জেসিসি) ১৬ আগস্ট ইউক্রেনীয় বন্দর থেকে খাবারবাহী পাঁচটি জাহাজ চলাচলের অনুমোদন দিয়েছে, জেসিসি সোমবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে।

‘১৬ আগস্ট চলাচলের জন্য অনুমোদিত আউটবাউন্ড জাহাজগুলো হল: চেরনোমর্স্ক থেকে ৯,১১১ মেট্রিক টন গম নিয়ে রোমানিয়ার কনস্টানজাগামী জাহাজ প্রপাস, চেরনোমর্স্ক থেকে ১১ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন ভুট্টা নিয়ে তুরস্কের মারসিন বা ইস্কেন্ডেরুনগামী জাহাজ অসপ্রে এস, চেরনোমর্স্ক থেকে ৬,১১৬ মেট্রিক টন গম নিয়ে তুরস্কের কারাসুগামী জাহাজ রামুস, ইউঝনি থেকে ২৩,৩০০ মেট্রিক টন গম নিয়ে জিবুতির পোর্ট ডি জিবুতিগামী জাহাজ ব্রেভ কমান্ডার ও ইউঝনি থেকে ৬০ হাজার মেট্রিক টন ভুট্টা নিয়ে কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের ইনচেনগামী জাহাজ বোনিতা,’ বিবৃতি অনুসারে।

বৈশ্বিক বাজারে খাদ্য ও সার সরবরাহের সমস্যা সমাধানের জন্য প্রস্তুত চুক্তিগুলোর একটি প্যাকেজ ২২ জুলাই ইস্তাম্বুলে স্বাক্ষরিত হয়েছিল। রাশিয়া-জাতিসংঘের স্মারকলিপির অধীনে, জাতিসংঘ কৃষি পণ্য এবং সারের রপ্তানিকে বাধাগ্রস্ত করে রাশিয়া-বিরোধী বিধিনিষেধ তুলে নেয়ার জন্য কাজ করার অঙ্গীকার করে। আরেকটি নথিতে ইউক্রেন-নিয়ন্ত্রিত বন্দর থেকে শস্য রপ্তানির একটি প্রক্রিয়ার কথা বলা হয়েছে। রাশিয়া, তুরস্ক, ইউক্রেন এবং জাতিসংঘের মধ্যে একটি চুক্তি অস্ত্র চোরাচালান প্রতিরোধ এবং উস্কানি এড়াতে শস্য বহনকারী জাহাজ অনুসন্ধানের জন্য একটি চার-পাশের সমন্বয় কেন্দ্র স্থাপনের বিধান করে। সূত্র : তাস, রয়টার্স, সিআরআই, বিবিসি নিউজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ