Inqilab Logo

রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯, ২৮ সফর ১৪৪৪

সঙ্কট সমাধানে নেই অগ্রগতি

জাপোরিজিয়ে প্ল্যান্টে নজরদারিতে ড্রোন নিয়োগ কালিনিনগ্রাদে হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন রাশিয়ার নিষেধাজ্ঞা যে ব্যর্থ হয়েছে, তা দেখতে পাচ্ছে না ওয়াশিংটন ইউক্রেনে অতিরিক্ত ৮০ কোটি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি, জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এবং তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের মধ্যে বৃহস্পতিবারের বৈঠক থেকে কোনো অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না। রাশিয়ার সাথে সঙ্ঘাত ছয় মাসের সীমানায় পৌঁছার মুহূর্তে এর শেষও দেখা যাচ্ছে না। কিছু আশা ছিল পশ্চিম ইউক্রেনের শহর লভিভে তাদের শীর্ষ সম্মেলন যুদ্ধ সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে অগ্রগতি ঘটাবে, যদিও এমন বড় পদক্ষেপ নয় যা সঙ্ঘাতের অবসান ঘটাবে। এমনকি যে কোনো চুক্তির জন্য ভøাদিমির পুতিনের সম্মতি প্রয়োজন, যিনি অংশ নেননি। বিরোধে মধ্যস্থতাকারী হিসাবে কাজ করার চেষ্টাকারী এরদোগান বলেছেন, তিনি রাশিয়ান প্রেসিডেন্টের সাথে পরামর্শ করবেন। তিন অংশগ্রহণকারী বৃহস্পতিবার যুদ্ধবন্দীদের বিনিময় সম্প্রসারণ, জাতিসংঘের পারমাণবিক শক্তি বিশেষজ্ঞদের জাপোরিঝিয়াতে ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শন এবং নিরাপদে সহায়তা করার ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা করেছেন, যেটি ভয়াবহ লড়াইয়ের মাঝখানে বিপর্যয়ের আশঙ্কা তৈরি করেছে। ‘এলাকাটিকে নিরস্ত্রীকরণ করা দরকার, এবং আমাদের অবশ্যই বলতে হবে: জাপোরিঝিয়াতে যে কোনও সম্ভাব্য ক্ষতি আত্মহত্যার সামিল,’ গুতেরেস বলেছিলেন।

এদিকে, বুধবার রাতে শুরু হওয়া রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র হামলা উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর খারকিভ এবং এর আশেপাশে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে, এতে কমপক্ষে ১৭ জন নিহত এবং ৪২ জন আহত হয়েছে, ইউক্রেনীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। জেলেনস্কি এই হামলাকে ‘ঘৃণ্য এবং নিন্দনীয়’ বলে অভিহিত করেছেন।
জাপোরিজিয়ে প্ল্যান্টে নজরদারিতে ড্রোন নিয়োগ রাশিয়ার : জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় ড্রোন নিয়োগ করেছে রাশিয়া। এগুলো কেন্দ্রটির চারপাশের এলাকার ক্রমাগত রিয়েল-টাইম ফুটেজ ক্যাপচার করবে ও সামরিক সংস্থাগুলিকে হামলার বিষয়ে অবহিত করবে। জাপোরিঝিয়া অঞ্চলের সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের প্রধান কাউন্সিলের সদস্য ভ্লাদিমির রোগভ বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি লাইভ টিভি চ্যানেলে সলোভিয়েভকে বলেন, ‘শুধু গতকাল, আমি বিশেষভাবে রাশিয়ার ন্যাশনাল গার্ড এবং আমাদের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার জন্য নন-স্টপ ফুটেজ রেকর্ড করার জন্য পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আমাদের ছেলেদের কাছে ড্রোন হস্তান্তর করেছি, যাতে যেকোনো মুহূর্তে যেকোনো আক্রমণ অনলাইনে রেকর্ড করা যায়’। গত ১৬ আগস্ট, রোগভ রাশিয়ানদের কাছ থেকে অনুদানে কেনা ৫০টি কোয়াডকপ্টার এবং একটি অ্যান্টি-ড্রোন বন্দুক রাশিয়ান স্কাউটদের হাতে তুলে দেন।

এদিকে জাপোরোজিয়ে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে যা ঘটছে তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক এবং ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর গোলাগুলি অগ্রহণযোগ্য। ভিয়েনায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোতে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানভ গতকাল শুক্রবার এক অনলাইন ব্রিফিংয়ে একথা বলেছেন।
তিনি বলেন, ‘জাপোরোজিয়ে পারমাণবিক শক্তির পরিস্থিতির জন্য এটি অত্যন্ত উদ্বেগজনক। ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী এ পারমাণবিক স্থাপনায় গুলি চালিয়ে যা করছে তা একেবারেই অগ্রহণযোগ্য’।
উলিয়ানভ উল্লেখ করেছেন, ‘এখন পর্যন্ত কোনো গুরুতর পরিণতি হয়নি, কিন্তু আইএইএ মহাপরিচালক [রাফেল গ্রসি] এক সপ্তাহ আগে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে যথার্থই বলেছিলেন, যে কোনো মুহূর্তে এটি খারাপভাবে শেষ হতে পারে’।

এনারগোদার শহরে অবস্থিত জাপোরোজিয়ে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি রাশিয়ান সৈন্যদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সম্প্রতি, ইউক্রেনীয় বাহিনী ড্রোন, ভারী কামান এবং একাধিক রকেট লঞ্চার ব্যবহার করে প্ল্যান্টের ভূখণ্ডে বেশ কয়েকটি হামলা চালিয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আক্রমণগুলো আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় প্রতিহত করা হয়, তবে গোলাগুলি ইতোমধ্যে অবকাঠামো, সেইসাথে একটি পারমাণবিক বর্জ্য সংরক্ষণের সুবিধাকে আঘাত করেছে।
সোলেদারে প্রবেশ ও বেশ ক’টি রাস্তার নিয়ন্ত্রণে এলপিআর : এলপিআর পিপলস মিলিশিয়া অফিসার আন্দ্রে মারোচকো গতকাল শুক্রবার চ্যানেল ওয়ান টিভি সম্প্রচার বলেছেন, মিত্রবাহিনী দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এর সোলেদার ইন্ডাস্ট্রিয়াল জোন ছেড়ে শহরে প্রবেশ করেছে, বেশ কয়েকটি রাস্তা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘সোলেদারের বন্দোবস্তের বিষয়ে, সেখানেও বেশ কিছু সাফল্য রয়েছে। আমাদের চাকুরীজীবীরা শিল্প অঞ্চল থেকে বেরিয়ে এসেছেন এবং ইতোমধ্যেই শহরের সীমানায় কাজ করছেন, অর্থাৎ, ইতোমধ্যেই এ বসতির রাস্তাগুলো আমাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে’। মারোচকো উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়ান মহাকাশ বাহিনীর সমর্থনে ৫০ জনেরও বেশি জাতীয়তাবাদীকে নির্মূল করা হয়েছে।

জাপোরোজিয়ে অঞ্চলে মার্কিন এম৭৭৭ হাউইৎজার নিশ্চিহ্ন : রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ গতকাল শুক্রবার জানিয়েছেন, রাশিয়ার বাহিনী ইউক্রেনে তাদের বিশেষ সামরিক অভিযানে জাপোরোজিয়ে অঞ্চলে মার্কিন তৈরি এম৭৭৭ হাউইটজার ধ্বংস করেছে। মাখপাত্র বলেছেন, ‘গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জাপোরোজিয়ে অঞ্চলের প্রিমর্স্কয় বসতি এলাকায় একটি মার্কিন তৈরি এম৭৭৭ হাউইৎজার ধ্বংস করা হয়েছে’। জেনারেল বলেছেন, রাশিয়ান অপারেশনাল-কৌশলগত এবং সেনা বিমান চলাচল বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র এবং আর্টিলারি সৈন্যরা ইউক্রেনের ভূখণ্ডে সামরিক স্থাপনায় হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।
কোনাশেনকভ জানিয়েছেন, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় তারা ছয়টি ইউক্রেনীয় কমান্ড পোস্টে আঘাত করেছে, যার মধ্যে রয়েছে দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের আর্টিওমভস্কের বসতির কাছে ১১৫তম যান্ত্রিক ব্রিগেড এবং ২৪৭টি এলাকায় ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর জনবল এবং সামরিক হার্ডওয়্যারসহ হামলায় চারটি ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস হয়েছে। দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের কুরাখোভো এবং দাচনয়ে, খেরসন অঞ্চলের বেলায়া ক্রিনিৎসা এবং খারকভ অঞ্চলের জালিমান অঞ্চলে আর্টিলারি অস্ত্র ও গোলাবারুদ ডিপো’।

কালিনিনগ্রাদে হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন রাশিয়ার : রাশিয়ান সামরিক বাহিনী বলেছে যে, তারা অত্যাধুনিক হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রে সজ্জিত যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে দেশটির কালিনিনগ্রাদ অঞ্চলে। এলাকাটি ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ন্যাটোর সদস্য রাষ্ট্রগুলোর কাছাকাছি অবস্থিত।
রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে যে, তিনটি মিগ-৩১ যুদ্ধবিমান কিনঝল হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে চকলোভস্ক বিমান ঘাঁটিতে পৌঁছেছে ‘কৌশলগত প্রতিরোধের অতিরিক্ত পদক্ষেপের’ অংশ হিসেবে এবং এগুলো যুদ্ধের জন্য সবসময় প্রস্তুত অবস্থায় রাখা হবে। বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত একটি ভিডিওতে দেখা গেছে যে, যুদ্ধবিমানগুলো ঘাঁটিতে পৌঁছেছে কিন্তু ক্ষেপণাস্ত্র বহন করছে না, যা স্পষ্টতই আলাদাভাবে বিতরণ করা হয়েছিল। ইউক্রেনে রাশিয়ার চলমান অভিযান নিয়ে পশ্চিমাদের সাথে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে কিনঝাল ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করা হয়েছে। বাল্টিক উপকূলে পোল্যান্ড এবং লিথুয়ানিয়ার মধ্যে অবস্থিত রাশিয়ান এলাকাটি ন্যাটোর বৈরী নীতি হিসাবে বর্ণনা করার জন্য মস্কোর প্রচেষ্টার অগ্রভাগে ছিল।

মস্কো ইউক্রেনে পশ্চিমা অস্ত্র সরবরাহের কঠোর সমালোচনা করেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের বিরুদ্ধে সংঘাতে ইন্ধন জোগাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে। পরিবর্তে, তারা কালিনিনগ্রাদে তার সামরিক বাহিনীকে পদ্ধতিগতভাবে শক্তিশালী করেছে, তাদের অত্যাধুনিক অস্ত্র দিয়ে সজ্জিত করেছে, যার মধ্যে রয়েছে নির্ভুল নির্দেশিত ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্র এবং বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সব উপকরন। রাশিয়ান সামরিক বাহিনী বলেছে যে, কিনঝল ২ হাজার কিলোমিটার (প্রায় ১,২৫০ মাইল) পাল্লায় হামলা করতে সক্ষম এবং শব্দের ১০ গুণ গতিতে উড়তে পারে। রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, যিনি ২০১৮ সালে কিনঝল ক্ষেপণাস্ত্র উন্মোচন করেছিলেন, এটিকে ‘একটি আদর্শ অস্ত্র’ বলে অভিহিত করেছেন যা আটকানো অত্যন্ত কঠিন।

লিথুয়ানিয়া তার ভূখণ্ডের মধ্য দিয়ে এই অঞ্চলে পণ্য পরিবহন সীমিত করতে চলে যাওয়ার পরে, রাশিয়া প্রতিশোধ নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে জুন মাসে কালিনিনগ্রাদে অস্ত্র মোতয়েন শুরু করে। ইইউ অবশ্য বলেছে, লিথুয়ানিয়াকে অস্ত্র বাদ দিয়ে রাশিয়ার পণ্য পরিবহনের অনুমতি দিতে হবে।

নিষেধাজ্ঞা যে ব্যর্থ হয়েছে, তা দেখতে পাচ্ছে না ওয়াশিংটন : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আনাতোলি আন্তোনোভ বৃহস্পতিবার বলেছেন যে, যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞার উপরে এতটাই নির্ভরশীল যে, তারা দেখতে পাচ্ছে না এগুলো ব্যর্থ হয়েছে। রুটিন ব্যবসায়িক সম্পর্ক মার্কিন নিষেধাজ্ঞার নীতির শিকার হয়েছে, তিনি বলেন।

দূতাবাসের প্রেস সার্ভিস তাকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ‘নিষেধাজ্ঞাগুলো ঝুলিয়ে রেখেছে, ওয়াশিংটন দেখতে পাচ্ছে না যে তার পছন্দের কৌশল ব্যর্থ হয়েছে।’ ‘এটা স্পষ্ট যে আমাদের অর্থনীতিকে শ্বাসরোধ করার, ছিঁড়ে ফেলার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।’ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা অর্জন করেছে তা হল বিশ্ব অর্থনীতির একটি অস্থিতিশীলতা যা ইতিমধ্যে মহামারী থেকে পতনের মধ্যে লড়াই করছিল, রাষ্ট্রদূত বলেছিলেন, ‘নিষেধাজ্ঞাগুলি নিষেধাজ্ঞার উন্মাদনার মাস্টারমাইন্ডদের প্রতি প্রতিক্রিয়া দেখায়,’ তিনি বলেছিলেন।
‘অর্থহীন বিধিনিষেধের ক্ষেত্রে ওয়াশিংটনের বিশৃঙ্খল সিদ্ধান্তের আরেকটি ফলাফল হল যে, তারা ব্যবসায়িক এবং সাধারণ নাগরিকদের জন্য বিশাল খরচের কারণ। মার্কিন নিয়ন্ত্রকদের ভয় দেখিয়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি রুটিন অপারেশন চালানোর ব্যাপারে সতর্ক থাকে। এমনকি এটি এমন পর্যায়ে এসেছে যে যখন সরকার সংস্থাগুলিকে বোঝানোর চেষ্টা করে যে নিষেধাজ্ঞার ব্যতিক্রম রয়েছে, যেমন খাদ্য খাতে, এটি কাজ করে না,’ তিনি বলেছিলেন।

ইউক্রেনে অতিরিক্ত ৮০ কোটি ডলারের সামরিক সাহায্য পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনের জন্য প্রায় ৮০ কোটি ডলারের অতিরিক্ত সামরিক সহায়তা প্রস্তুত করছে এবং এ পরিকল্পনাটি দ্রুতই তারা ঘোষণা করতে পারে। বিষয়টির সাথে পরিচিত তিনটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ তথ্য জানিয়েছে।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার প্রেসিডেন্সিয়াল ড্রডাউন অথরিটি ব্যবহার করে এই সহায়তা অনুমোদন করবেন, যা প্রেসিডেন্টকে মার্কিন স্টক থেকে অতিরিক্ত অস্ত্র স্থানান্তরের অনুমোদন দেয়, সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সূত্রগুলো বলেছে যে, একটি ঘোষণা পরের সপ্তাহে আসতে পারে এবং সতর্ক করে দিয়েছিল যে, অস্ত্র প্যাকেজগুলো ঘোষণা করার আগে মূল্যে পরিবর্তন হতে পারে। তবে হোয়াইট হাউস এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

সর্বশেষ প্যাকেজে কী অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে সে সম্পর্কে রয়টার্স বিস্তারিত জানায়নি। এর আগে ওয়াশিংটন উচ্চ গতিশীলতা আর্টিলারি রকেট সিস্টেম (হিমারস), মর্টার ও আর্টিলারি গোলাবারুদ, জ্যাভলিন অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল সিস্টেম, বিস্ফোরক এবং ধ্বংস করার সরঞ্জামসহ কিয়েভে হাজার কোটি ডলার মূল্যের নিরাপত্তা সহায়তা পাঠিয়েছে। সূত্র : রয়টার্স, ইউএসএটুডে, আল-জাজিরা, তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেনের রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ