Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫, ৯ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

পিঠে উৎসব

| প্রকাশের সময় : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বাতেন বাহার

সবুজের তোলপাড় দাপাদাপি শেষে
ঝুমঝুম ধানশীষ সোনাহাসিÑ হেসে
দোলখায় বোলপায় পশমিনা ধান
চাষীদের মনে সুখÑ মুখে হাসি গান।

ধান কাটা হলে সারা-রাত জাগে চাষী
কৃষাণীর মনে সুখ, হাসে দাসদাসী!
ঘরে ঘরে শুরু হয় পিঠে উৎসব
উৎসবে প্রিয় গান প্রিয় অনুভব।
উৎসবে ছুটে আসে শহুরে মানুষ
অতীতের স্মৃতি-কথা প্রীতিহয় হুঁশ!
সুখ সুখ ভাব মাখে শিকড়ের টান
গীতিময় স্মৃতি হয় সুখ অফুরান।

অতিথি পাখিরা
আহাদ আলী মোল্লা

বহু দূর থেকে অতিথি পাখিরা উড়ু দেয় ডানা মেলে
পথ ঘাট পিছে ফেলে
কত না পাহাড় মরু পান্তর বরফের দেশ ছেড়ে
অবসাদ নেই লাগাতার যায় পাখা দুটো নেড়ে নেড়ে।

জানি না কিসের টানে
আসে এ দেশের পানে
হাজারো মাইল পাড়ি দিয়ে তারা, অবিরাম ছুটে চলা
গানে গানে কথা বলা
কাকলি কূজন কুহু কলতান অভিমান ছলাকলা
সব কিছু ভুলেটুলে;
উড়ে সাঁই সাঁই এলো নদী নালা অববাহিকার কূলে।

অতিথিরা নেয় জোল খাল বিল হাওড়ে বাঁওড়ে ঠাই
অজোপাড়া ভড় গাঁয়
কুটুম কুটুম পাখি আমাদের চেনা সুরে ডেকে যায়
আহা কী যে ভালো লাগে
হৃদয়ের মাঝে মায়াবিনী সুখ জাগে
অতিথি পাখিরা চিরকাল থাক ভালোবাসা অনুরাগে।

সুখের নীড়
শাহ্ আলম শান্ত

তিস্তার তীরে ঐ ছোট্ট একটি নীড়
খড়ের ছাউনি দেয়া, নয় ইটের প্রাচীর
ছেয়ে আছে আপন করে বটের ছায়ায়
বেঁধে রেখেছে তার রূপের মায়ায়!
মৃদুবায়ে বটপাতায় বেজে ওঠে কীযে সুর
শুনে শুনে জুড়ায় প্রাণ চিন্তা হয়ে যায় দূর
গাঙ্গের শীতল জলে দারুণ মজা নাইতে
ভাল্লাগে ভাটিপানে ডিঙি তরি বাইতে!
বিলের জলে শাপলা ভাসে
রূপের রানি কমল হাসে
ঝাঁকেঝাঁকে বসে থাকে সাদা বকের দল
ওদের সনে খেলতে আমার মন হয় চঞ্চল-
বর্ষায় ঘরেতে হয় সে কী জল!
ভেসে এসে ধরা দেয় বোয়াল চিতল
উনুন চকিতে নিয়ে করি রান্না
ধোঁয়াতে রাঁধুনির আসে কান্না-
তবুও রান্নার কী দারুণ স্বাদ!
সে লোভে কুটুম হয় গগনের চাঁদ।
সবাই পড়শি আমরা সবার আপন।
চাঁদতারা ছুটে আসে জ্যোৎস্না রাতে
মন ভরে হাসি দেয় ফোকলা দাঁতে
সে আলোয় বসে বসে করি গল্প
মিছা নয় দেখে যেও নয় কল্প?
সাঁঝক্ষণে নেচেনেচে জোনাই জ্বলে
খোকাখুকু হাতে নিয়ে কথা বলে
গাছেগাছে ঝুলে কতো তাজাতাজা ফল
দীঘির আয়না জলে ভাসে যে কাতল।
চাও যদি এনে দেব ডাঁশাডাঁশা পেয়ারা
টলটলে জামরুল লোভনীয় চেহারা-
গুড়া মাছে শাক ভাজা
খেতে লাগে খুব মজা!
আষাঢ়-শ্রাবণে কচুফুলের ডাল
একবার খেলে স্বাদ থাকে চিরকাল-
দেখে যাও কতো সুখ! করছি আমন্ত্রণ
আকাশচুম্বি কেল্লার নেই প্রয়োজন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ