Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

প্রশ্ন : সফল মু’মিনের সাত গুণ কি?

| প্রকাশের সময় : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

উত্তর : প্রতিটি মানুষ সফলতা চায় এবং তা অর্জনে হাজারো চেষ্টা করে। কিন্তু প্রকৃত সফলতা কী এবং তা কিভাবে অর্জিত হয় তা অনেকের অজানা। সফলতার অর্থ প্রত্যেক মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হওয়া এবং জীবন থেকে সকল দুঃখ-কষ্ট দূর হওয়া। কিন্তু এমন পূর্ণাঙ্গ সাফল্য দুনিয়াতে অর্জিত হতে পারে না। এই সফলতা কেবল জান্নতে পাওয়া যাবে। জান্নাতেই মানুষের প্রত্যেক মনোবাঞ্ছা সর্বক্ষণ ও বিনা প্রতীক্ষায় অর্জিত হবে। তারা যা চাইবে, তাই পাবে। সেখানে কোন সামান্যতম ব্যথা ও কষ্ট থাকবে না। তাই একজন মুমিনের সে জান্নাতের অধিকারী হওয়া-ই প্রকৃত সফলতা। এই সফলতা কিভাবে অর্জিত হবে, আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন জায়গায় তা উল্লেখ করেছেন। সূরা মু›মিনুনের মধ্যে আল্লাহ তায়ালা সফল মুমিনের পরিচয় দিতে গিয়ে সাতটি গুনের কথা উল্লেখ করেছেন। যে ব্যক্তি সে সাতটি গুন অর্জন করবে সে জান্নাতুল ফেরদাউসের উত্তরাধিকারী হবে।

হাদিস শরীফে এসেছে, হযরত ওমর ফারুক (রাঃ) বলেনঃ রসূলূল্লাহ (সঃ)-এর প্রতি যখন ওহী নাযিল হত, তখন নিকটবর্তী লোকদের কানে মৌমাছির গুঞ্জনের ন্যায় আওয়াজ ধ্বনিত হত। একদিন তাঁর কাছে এমনি আওয়াজ শুনে আমরা সদ্যপ্রাপ্ত ওহী শোনার জন্যে থেমে গেলাম। ওহীর বিশেষ অবস্থা সমাপ্ত হলে রসুলুল্লাহ্ (সাঃ) কেবলামুখী হয়ে বসে গেলেন এবং দোয়া পাঠ করতে লাগলেন: “হে আল্লাহ্ আমাদেরকে বেশী দান কর কম দিও না। আমাদের সম্মান বৃদ্ধি কর লাঞ্ছিত করো না। আমাদেরকে দান কর বঞ্চিত করো না। আমাদেরকে অন্যের উপর অধিকার দাও অন্যদেরকে অগ্রাধিকার দিয়ো না এবং আমাদের প্রতি সন্তুষ্ট থাক এবং আমাদেরকে তোমার সন্তুষ্টিতে সন্তুষ্ট কর।” এরপর রসুলুল্লাহ্ (সঃ) বললেন: এক্ষণে দশটি আয়াত নাযিল হয়েছে। কেউ যদি এ আয়াতগুলো পুরোপুরি পালন করে, তবে সে সোজা জান্নাতে যাবে। এরপর তিনি সুরা মু›মিনুন এর প্রথম দশটি আয়াত পাঠ করে শোনালেন। (মুসনাদে আহমদ-২২৩) উক্ত আয়াত গুলোর মধ্যে সাতটি গুনের কথা বলা হয়েছে।

এক. নামাযে ‘খুশু’ তথা বিনয়ী ও নম্র হওয়া: অর্থাৎ নামাযের ভিতরে নিজের দেহ-মনকে স্থীর রাখা। আল্লাহ ছাড়া নামাযে অন্যকোন কিছুর কল্পনা এবং নামাযে অনর্থক নড়াচড়া না করা ও দৃষ্টিকে সিজদার জায়গায় নিবদ্ধ রাখা। ফিকহের দৃষ্টিতে নামাযে এমন অনর্থক নড়াচড়া ও এদিক সেদিক দৃষ্টি দেয়া মাকরুহ এবং সাওয়াব হ্রাস পাওয়ার কারণ। হাদীস শরীফে এসেছে, হযরত আবু যর থেকে বর্ণিত আছে, রসূলুল্লাহ্ (সঃ) বলেনঃ নামাযের সময় আল্লাহ্ তাআলা বন্দার প্রতি সর্বক্ষণ রহমতের দৃষ্টি নিবন্ধ রাখেন যতক্ষণ না নামাযী অন্য কোনদিকে ভ্রুক্ষেপ করে। যখন সে অন্য কোন দিকে ভ্রুক্ষেপ করে, তখন আল্লাহ্ তাআলা তার দিক থেকে দৃষ্টি ফিরিয়ে নেন।-( নাসায়ী-১১৯৪) অন্য হাদিসে হাদিসে এসেছে নামাযে খুশু-খুযুর ঘাড়তি হলে সাওয়াব কম পাওয়া যায়। আম্মার ইবনু ইয়াসির রা. থেকে বর্ণিত তিনি বলেন আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে বলতে শুনেছি, এমন লোকও আছে যারা সালাত আদায় করা সত্ত্বেও সালাতের রুকন ও শর্তগুলো সঠিকভাবে আদায় না করা এবং সালাতে পরিপূর্ণ একাগ্রতা ও খুশু-খুযু না থাকায় সালাতের পরিপূর্ণ সাওয়াব পায় না; বরং তারা দশ ভাগের একভাগ, নয় ভাগের একভাগ, আট ভাগের এক ভাগ,সাত ভাগের এক ভাগ, ছয় ভাগের এক ভাগ, পাঁচ ভাগের এক ভাগ, চার ভাগের এক ভাগ, তিন ভাগের এক ভাগ বা অর্ধাংশ সাওয়াব পায়। ( আবু দাউদ-৭৯৬)

দুই. অনর্থক বিষয়াদি থেকে বিরত থাকা: অর্থাৎ অনর্থক কথা অথবা কাজ, যাতে কোন ধর্মীয় উপকার নেই। হাদিস শরীফে অনর্থক বিষয়াদি পরিহার করাকে মানুষের ইসলামের সৌন্দর্য বলে ঘোষণা করা হয়েছে। হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত তিন বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, মানুষেয়র জন্য স্যেন্দর্য হচ্ছে তার অনর্থক বাক্যালাপ পরিহার করা। ( তিরমিযি- ২৩২০) ইমাম মালেক রা. বর্ণনা করেন যে, লোকমান আলাইহিস সালাম কে কেউ জিজ্ঞেস করল , কিসের কারণে আপনি এত বুযুর্গী পাইলেন? তিনি বললেন, সত্য কথা বলা, আমানতদারী, এবং অনর্থক কাজ পরিহার করার কারণে। (মুয়াত্তা মালিক-১৭)

তিন. যাকাত আদায় করা: যাকাত এর আভিধানিক অর্থ পবিত্র করা। পরিভাষায় মোট অর্থ-সম্পদের একটা বিশেষ অংশ কিছু শর্তসহ দান করাকে যাকাত বলা হয়। যা ইসলামের পাঁচ স্তন্বের একটি। কুরাআন-সুন্নাহয় যাকাত আদায়ের গুরুত্ব,ফজীলত এবং অনাদায়ের কারণে আযাবের ভয়াবহতার কথা উল্লেখ রয়েছে। এক আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আর যারা স্বর্ণ ও রৌপ্য পুঞ্জীবুত করে এবং তা আল্লাহর পথে ব্যয় করে না তাদেরকে কঠোর আযাবের সুসংবাদ শুনিয়ে দিন। সেদিন জাহান্নামের আগুনে তা উত্তপ্ত করা হবে এবং তার দ্বারা ললাট, পার্শ ও পৃষ্ঠদেশকে দগ্ধ করা হবে। সেদিন বলা হবে) এগুলো যা তোমরা নিজেদের জন্যে জমা রেখেছিল। সুতরাং এক্ষণে স্বাদ গ্রহণ করো জমা করে রাখার। (সূরা তাওবাহ-৩৪-৩৫) এছাড়া যাকাত শব্দের দ্বারা এখানে আত্মশুদ্ধিও উদ্দেশ্য হতে পারে। অর্থাৎ অন্তরকে সকল প্রকার পাপ পঙ্কিলতা থেকে মুক্ত রাখা। শিরক, রিয়া, অহঙ্কার, হিংসা, শত্রুতা, লোভ-লালসা, কার্পণ্য ইত্যাদি থেকে নফসকে পবিত্র রাখাকে আত্মশুদ্ধি বলা হয়। এগুলো সব হারাম ও কবীরা গুনাহ্। পবিত্র কুরআনে এজাতীয় গুনাহ থেকে পবিত্র অন্তরের অধিকারীকে সফল এবং অপবিত্র অন্তরের অধিকারীকে ব্যথ ও মনরোথ বলা হয়েছ। আল্লাহ তায়ালা বলেন, সেই সফলকাম হবে, যে নিজ আত্মাকে পরিশুদ্ধ করবে। আর ব্যর্থকাম হবে সেই, যে তাকে গুনাহের মধ্যে ধসিয়ে দিবে। (সূরা শামস-৯,১০)

উত্তর দিচ্ছেন : মুফতি ইমামুদ্দীন সুলতান, মুহাদ্দিস-জামিয়া ইমদাদিয়া আরাবিয়া শেখেরচর,নরসিংদী



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সফল মু’মিনের সাত গুণ
আরও পড়ুন