Inqilab Logo

সোমবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১০ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

বিএনপি ক্ষমতায় এলে দ্বিকক্ষবিশিষ্ট সংসদীয় সরকার গঠন করব

রাজশাহীতে ব্যারিষ্টার রুমিন ফারহানা

রাজশাহী ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

বিএনপির কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেছেন, ‘বাংলাদেশের উচ্চ কক্ষ ব্রিটেনের ‘হাউস অব লার্ডস’ এর আদলে সৃষ্টি করা হবে। জনগণের ভোটে বিএনপি দেশ পরিচালনা তথা রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসলে যারা গণতন্ত্র, মানুষের বাকস্বাধীনতা, সুশাসন কিংবা আইনের শাসনে বিশ্বাস করে তাদেরকে নিয়ে আমরা জনমতের বা ঐক্যমতের সরকার গঠন করবো। একই সঙ্গে আমরা আর এক কক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্টে থাকবো না। আমরা সমাজের জ্ঞানী-গুণি, পেশাজীবী- যাদের দেশকে দেবার অনেক কিছু আছে এবং দেশের অনেক কিছু আছে তাদের কাছ থেকে পাওয়ার তাদেরকে নিয়ে আমরা দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট একটি সংসদ তৈরী করবো।

গতকাল শনিবার দুপুরে রাজশাহী নগরীর একটি আবাসিক হোটেলের সম্মেলন কক্ষে ‘জবাবদিহিতামূলক রাষ্ট্রব্যবস্থা গঠনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন পরবর্তী জাতীয় সরকার ও দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট জাতীয় সংসদ অপরিহার্য শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির মিডিয়া সেল-এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় রুমিন ফারহানা বলেন, আমরা রাজনীতিবিদরা শুধু নির্বাচন নিয়ে ভাবি। আর যারা রাষ্ট্রনায়ক ভাবেন- আগামী প্রজন্ম নিয়ে, শত বছর পর দেশ কোথায় যাবে সেটি নিয়ে। আমাদের সৌভাগ্য দেশনায় তারেক রহমানের মত একজন নেতা দলের হাল ধরেছেন। আগামীর রাষ্ট্র নায়কের মত চিন্তা করছেন, একশত বছর পর বাংলাদেশ কোথায় যাবে। তারই সূচনা হিসেবে আজ আমরা দুটি ধারণা নিয়ে এগুচ্ছি। একটি হচ্ছে- জাতীয় সরকার অন্যটি দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্ট।

বিএনপি নির্বাচিত হলে দেশের জাতীয় সরকার কেমন হবে তার ধারণা দিতে গিয়ে বিএনপির এই সংসদ সদস্য বলেন, এদেশের নির্বাচন কাঠামোকে ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। এমনকি নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকেই বলা হয়, দিনের ভোট নাকি রাতে হয়। নির্বাচনের কমিশন থেকে বলা হয়, আমাদের গোপন কক্ষে যে ভূত দাঁড়িয়ে থাকেন তারাই হচ্ছেন নির্বাচনের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। নির্বাচন কমিশন থেকেই স্বীকার করে নেয়, এদেশে নির্বাচন বলতে কোনো কিছু অবশিষ্ট নাই। এই নির্বাচন কাঠামো ধ্বংস করা, ধ্বংস করা হয়েছে আইনের শাসন, মানবাধিকার, ধ্বংস করা হয়েছে বিচার বিভাগের ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এবং ধ্বংস করা হয়েছে ন্যায়বিচার পাওয়া। ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে রাষ্ট্রের কাঠামো। এই প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট যদি সরকার গঠন করতে পারে তখন তাদের নিয়েই জাতীয় সরকার গঠিত হবে। নির্বাচনে মিত্র দলগুলো জয়ী হলেও তারা সরকারে থাকবে অথবা যদি হেরেও যায় তারপরও তারা সরকারে থাকবে। অর্থাৎ নির্বাচনে দেশপ্রেমিক গণতান্ত্রিক দলের শীর্ষস্থানীয় নেতা জয়লাভ না করতে পারলেও তাকে নিয়েই আমরা জাতীয় সরকার গঠন করবো।’

রুমিন ফারহানা আরো বলেন, জয়ী এবং বিজিতের যে মিলবন্ধন এটি অতীতে বাংলাদেশে কখনো দেখা যায়নি। গত ১০ বছরে ধ্বংস করা হয়েছে সমাজ ও মূল্যবোধের মত বিষয়গুলো। সরকারের হস্তক্ষেপে সব রাষ্ট্রীয় ও সাংগঠনিক প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দলীয়করণ করা হয়েছে। এই অবস্থায় সমাজ, আইন-শৃঙ্খলা এবং সংবিধানের মৌলিক পরিবর্তন কেবল ক্ষমতার পরিবর্তন হলে হবে বলে বিএনপি তা বিশ্বাস করে না। এজন্য পুরো রাষ্ট্রের মেরামত দরকার। আর এই মেরামতের জন্যই সব দেশপ্রেমিক ও গণতান্ত্রিক শক্তির মধ্যে ঐক্যমত তৈরী করা দরকার। আর তাই দেশে অনেক ছোট দল আছে- যাদের অনেক বিজ্ঞ, অভিজ্ঞ, প্রাজ্ঞ নেতা আছে তাদের নিয়েই আমরা এই রাষ্ট্র মেরামতের কাজটি করবো এবং দেশকে আবার গণতান্ত্রিক ও মানবিক ধারায় আমরা ফিরিয়ে আনবো।

আওয়ামী লীগ একটি ‘অগণতান্ত্রিক-ফ্যাসিস্ট সরকার’ মন্তব্য করে রুমিন ফারহানা বলেন, বিএনপির দুর্ভাগ্য যে- আওয়ামী লীগের মত একদলীয় শাসন, বাকস্বাধীনতা, মানুষের অধিকার, সুশাসন, ন্যায়বিচার দিতে ব্যর্থ হওয়া একটি ফ্যাসিস্ট সরকারকে প্রতিনিয়ত মোকাবেলা করতে হয়। একটি গণতান্ত্রিক সরকারের সময় আন্দোলন এবং একটি ফ্যাসিস্ট একদলীয় ও বিভৎস সরকারের সময় আন্দোলন কখনো এক রকম হয় না। বিএনপি গত ১৫ বছর ধরে আন্দোলনের মধ্যে আছে। এই আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা অসংখ্য নেতাকর্মীকে হারিয়েছি। অসংখ্য নেতাকর্মী গুম হয়ে গেছে, অসংখ্য নেতাকর্মী বিচারবহির্ভুত হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে।
বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া থেকে শুরু করে ইউনিয়ন-ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা। এরপরও বিএনপি আন্দোলনের মধ্যে থেকে শক্তিশালী থেকে শক্তিশালীতর হচ্ছে। তিনি বলেন, পুলিশ প্রশাসন যদি সরিয়ে দেয়া হয় তাহলে আওয়ামী লীগ কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে সেটি একটি বড় প্রশ্ন।

বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন-এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় লিখিত প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- মিডিয়া সেলের সদস্য সচিব শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি। বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য আতিকুর রহমানের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান, মোছা. শাম্মী আক্তার, সাংবাদিক কাদের গনি চৌধুরী, ব্যারিস্টার মীর হেলাল, সাংবাদিক আলী মাহমুদ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন ডিন অধ্যাপক ড. ফজলুল হক, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এস. এম আব্দুর রাজ্জাক, রাজশাহী বার এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ্যাডভোকেট আবুল কাশেম, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল প্রমুখ। অন্যদের মধ্যে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের রাজশাহী বিভাগের নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজ, বুদ্ধিজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিএনপি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ