Inqilab Logo

মঙ্গলবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১১ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

৫ কারণে ডিজিটাল লেনদেনে অনাগ্রহ ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাদের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

করোনাভাইরাসের প্রকোপকালে দেশে ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাদের মধ্যে ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (ডিফিএস) ব্যবহার বেড়েছে। তবে প্রয়োজনীয় কাগজ না থাকা, অজ্ঞতা, অ্যাপ ব্যবহারের জটিলতা, বেশি চার্জ ও ভুল নম্বরে টাকা চলে যাওয়ার শঙ্কায় ডিফিএস ব্যবহার করে ঋণ পরিশোধ করতে চাইছেন না ঋণ গ্রহীতারা। ক্ষুদ্রঋণ বিষয়ক এনজিওদের নেটওয়ার্ক ইনাফি বাংলাদেশের এক গবেষণা প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টারে ‘বাংলাদেশের গ্রাহকদের ওপর করোনার প্রভাব’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ইনাফি বাংলাদেশের প্রোগ্রাম ম্যানেজার তাসনুভা ফারহিম।

নয়টি জেলার ৪৪২ জন ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতা ও ২২টি ক্ষুদ্রঋণ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এ গবেষণাটি তৈরি করা হয়েছে। ২০২১ সালে ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তাদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ৪৪২ জন ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতার মধ্যে ১৪০ জন মাইক্রো ফাইন্যান্স, ১৪৬ জন মাইক্রো ইকোনমিকসের গ্রাহক। আর ১৫৬ জন ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাকে ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশনের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয়েছে। ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতার মধ্যে ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ পুরুষ ও ৮২ দশমিক ৫ শতাংশ নারী।
প্রতিবেদনে জানানো হয়, করোনার কারণে মাইক্রো ফাইন্যান্সের ঋণ গ্রহীতার এক লাখ পাঁচ হাজার টাকা ও মাইক্রো ইকোনমিকস ঋণ গ্রহীতার তিন লাখ ৮৮ হাজার টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।
৮৩ দশমিক ৯০ শতাংশ ঋণ গ্রহীতা জানিয়েছেন, করোনায় তাদের আয় কমেছে, ২৮ শতাংশ চাকরি হারিয়েছেন, ২১ শতাংশ কিস্তির টাকা দিতে পারেননি। এছাড়া সাড়ে ৫ শতাংশ জানিয়েছেন চাহিদা মাফিক ঋণ তারা পাননি। ঋণ গ্রহীতাদের ৫০ শতাংশ জানিয়েছেন, করোনায় তারা সঞ্চয় ভেঙে জীবন ধারণ করেছেন। ৫৩ দশমিক ২৩ শতাংশ ঋণ নিয়ে, ৪৭ দশমিক ৫৮ শতাংশ খরচ কমিয়ে ও ২১ দশমিক ৭৭ শতাংশ সম্পদ বন্ধক রেখে করোনার সময় পার করেছেন।
অন্যদিকে, ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৭১ দশমিক ৪ শতাংশ জানিয়েছে, নানা সমস্যার কারণে কিস্তির টাকা সংগ্রহ করতে যেতে পারেনি, একই সংখ্যক জানিয়েছে প্রতিষ্ঠান চালাতে তাদের নানাবিধ সমস্যা হয়েছে। ২৩ দশমিক ৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়, করোনাকালে ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (ডিফিএস) ব্যবহার করে ঋণ পরিশোধের ব্যবহার বেড়েছে। ঋণ গ্রহীতাদের মধ্যে ২ দশমিক ৫ শতাংশ করোনার আগে ডিফিএস ব্যবহার করলেও ২০২০ সালের পর তা ১৩ দশমিক ৩ শতাংশ হয়েছে।
২৮ দশমিক ৮ শতাংশ নারী ও ৭৪ শতাংশ পুরুষ নিজ নামে ডিজিটাল ওয়ালেট ব্যবহার করেন। তবে ৩৮ দশমিক ৫ শতাংশ জানেন না কীভাবে ডিজিটাল ওয়ালেট ব্যবহার করতে হয়। ৩১ দশমিক ৪ শতাংশ মনে করেন, অতিরিক্ত চার্জ নেওয়া হয় ডিফিএসগুলোতে। ১৯ দশমিক ৫ শতাংশ অ্যাপ জটিলতা, ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ ভুল নম্বরে টাকা পাঠানোর ভয়ে ও ৫ দশমিক ৩ শতাংশ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকার কারণে ডিজিটাল ওয়ালেট ব্যবহার করতে চাইছেন না।
অনুষ্ঠানে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ বলেন, বাংলাদেশ কখনই হেরে যাবে না। হারার কোনো কারণ নেই। এখন পর্যন্ত কোনো লক্ষণ নেই। ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে মানুষের উন্নয়নে কাজ করতে হবে।
তিনি বলেন, ক্ষুদ্রঋণ কে, কীভাবে খরচ করছে সেটা খতিয়ে দেখতে হবে প্রতিষ্ঠানগুলোকে। রফতানির বৈচিত্রকরণ সুযোগ আমাদের কাজে লাগাতে হবে।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন এনজিও প্রতিষ্ঠান অন্তরের ফাউন্ডার মো. ইমরানুল হক চৌধুরি। বিশেষ অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মাইক্রো ফাইন্যান্স রেগুলেটরি অথরেটি (এমআরএ) এর নির্বাহী ভাইস চেয়ারম্যান মো. ফসিউল্লাহ। বক্তব্য রাখেন ইনাফির চেয়ারপারসন এস এন কৈরি, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মাহবুবা হক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ ফেলো ও অ্যাসিস্ট্যান্টড প্রফেসর সাকিব মাহমুদ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ৫ কারণে ডিজিটাল লেনদেনে অনাগ্রহ ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাদের
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ