Inqilab Logo

শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৮ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

নীলফামারী সদরে ১০ হাজার মানুষের ভরসা বাঁশের সাঁকো

নীলফামারী জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

নীলফামারী সদর উপজেলার পঞ্চপুকুর ইউনিয়নের কোরানীপাড়া ঘাটে যমুনেশ্বরী নদীর উপড় ব্রিজ না থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছে প্রায় ১০ হাজার মানুষ । গ্রামবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমে তৈরি করা হয় বাঁশের সাঁকোটি। সাঁকোর পূর্ব দিকে রয়েছে উত্তরা শশী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিমে রয়েছে উত্তর কানিয়াল খাতা দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়, কানিয়াল খাতা মাদরাসা, কানিয়ালখাতা প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিনোদন কেন্দ্র ওসমানিয়া উদ্যান। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ ওই এলাকার মানুষদের নীলফামারী জেলা শহরে যাওয়ার একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ ভরসা হলো বাঁশের সাঁকো।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এই সাঁকো দিয়ে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। পাকা সেতু না থাকায় বেশি সমস্যায় পড়েন কৃষকেরা। তারা কৃষি পণ্যে বাজারে নিতে না পারায় সঠিক দাম থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। বর্ষায় নদীর পানির স্রোত বাঁশের সাঁকো ভেঙে ভেসে যায়, তখন কলা গাছের ভেলা বানিয়ে পার হতে হয়। এই দুর্ভোগ থেকে পরিত্রাণ চাচ্ছেন স্থানীয়রা। তাদের দাবি একটি ব্রিজ হলে পাল্টে যাবে এই এলাকার দৃশ্যপট।
স্থানীয় বাসিন্দা কৃপা রায় বলেন, কত লোক আইসে ল্যাখে, মাপি যায় কিন্তু ব্রিজ আর হয়না। ব্রিজ না হওয়ায় আমাদের কত কষ্ট হচ্ছে। যাওয়া আসার ব্যাবস্থা তেমন না থাকায় অল্প দামে ফসল ব্যাচের নাগে। এই ঘাটের উপড় একটি ব্রিজ হলে যাওয়া আসার অনেক সুবিধা হইবে। ধান চাউল হাটোত নিগি ব্যাচের পামো। ভালো দাম পামো তাইলে।
উত্তর কানিয়াল খাতা বিদ্যালয়ের ৬ষ্ট শ্রেণীর শিক্ষার্থী মারুফ হোসেন, ৭ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী রাশেদ মিয়া জানায়, আমরা অনেক কষ্ট করে এই বাঁশের সাঁকো দিয়ে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করে থাকি। বর্ষার সময় কলার ভেলায় পার হতে হয়। অনেক সময় বই খাতা নদীতে পরে ভেসে যায়, আমাদেরও দুর্ঘটনায় পড়তে হয়।
এ বিষয়ে জেলা এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী সুজন কুমার কর বলেন, আমি ওই বিষয়টি সম্পর্কে অবগত ছিলাম না। খোঁজ নিয়ে শীঘ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ