Inqilab Logo

শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৮ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

ইউক্রেনীদের জন্য আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে ইরানের ড্রোন

ওডেসায় সামরিক স্থাপনায় হামলা রাশিয়ায় যোগদানের সিদ্ধান্ত নিতে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন গণভোটের বিরুদ্ধে উস্কানি দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র : রাশিয়া রাশিয়া এবং বেলারুশ তাদের নিজস্ব বিমান উড়াবে : ল

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

ইউক্রেন অভিযানে বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে ইরানের কাছ থেকে কেনা ড্রোন ব্যবহার করছে রাশিয়া। এগুলো সস্তা এবং যুদ্ধক্ষেত্রে অত্যান্ত কার্যকর। ইতিমধ্যে ইউক্রেনীয় সেনাদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে ইরানের এ ড্রোনগুলো। এদিকে, ডনবাসে স্থানীয় মিলিশিয়াদের সাথে লড়াইয়ে সোমবার ২৪ ঘন্টায় ইউক্রেনের শতাধিক সেনা নিহত হয়েছে।

ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর জুনিয়র সার্জেন্ট আন্দ্রিয়ানা আরেখতা বলেছেন, ড্রোনগুলো ক্রিমিয়া থেকে উড়েছিল তার বিশেষ বাহিনীর ইউনিটের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর খেরসনের কাছে লড়াই করার জন্য। ড্রোনগুলি সৈন্যদের প্রতিরক্ষা এড়িয়ে যায় এবং তাদের অবস্থানের উপর বোমা ফেলে, ভিতরে তাদের ক্রু সহ দুটি ট্যাঙ্ক ধ্বংস করে দেয়। ‘রাডারে এই ড্রোনগুলি দেখা খুব কঠিন,’ বলেছেন আরেখতা, যিনি গত সপ্তাহে ইউক্রেনীয় নারী সৈন্যদের একটি প্রতিনিধি দলের অংশ হিসাবে ওয়াশিংটন, ডিসি ভ্রমণ করেছিলেন, ‘এটি একটি বিশাল সমস্যা।’
এদিকে, ইউক্রেনের ওডেসা অঞ্চলে রাশিয়ান বাহিনী দুটি ড্রোন উৎক্ষেপণ করে সামরিক স্থাপণায় হামলা এবং গোলাবারুদের বিস্ফোরণ ঘটায়, সোমবার ইউক্রেনের বাহিনীর দক্ষিণ কমান্ড জানিয়েছে। ‘বড় আকারের আগুন এবং গোলাবারুদের বিস্ফোরণের ফলে, সেখান থেকে বেসামরিক জনগণকে সরিয়ে নেয়া হয়েছিল,’ কমান্ড টেলিগ্রামে বিবৃতিতে বলেছে, ‘প্রাথমিকভাবে, কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।’ গত সপ্তাহে, রাশিয়া ইরান থেকে আমদানি করা শাহেদ এবং মোহাজের যুদ্ধ ড্রোনগুলি ইউক্রেন জুড়ে বৃহত্তর সংখ্যায় মোতায়েন করেছে, যার ফলাফল বিধ্বংসী। কেউ কেউ যুদ্ধের অবস্থানে আঘাত হানে, ট্যাঙ্ক এবং সাঁজোয়া যানগুলি ধ্বংস করে দেয়, অন্যগুলো বন্দর শহর ওডেসা সহ বেসামরিক অবকাঠামোতে আঘাত করে।
শুক্রবার তার রাতের ভাষণে, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন যে, তার দেশের বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী পূর্ব ডিনিপ্রোপেট্রোভস্ক অঞ্চল এবং ওডেসায় এক ডজনেরও বেশি ড্রোন গুলি করেছে। ইউক্রেনীয় বিমান বাহিনী সেগুলোকে শাহেদ-১৩৬ কামিকাজে ড্রোন এবং মোহাজের-৬ ড্রোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে যেগুলো যুদ্ধাস্ত্র বহন করে এবং নজরদারীরর জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে সাক্ষাতকারে, একজন ইউক্রেনীয় কর্মী এবং তিনজন সৈন্য বলেছেন যে, ইরানি ড্রোন যোদ্ধা এবং বেসামরিক উভয়ের জন্যই বড় হুমকি। যুদ্ধক্ষেত্রে ইরানি ড্রোনের আগমন পশ্চিমের জন্য অতিরিক্ত আধুনিক অস্ত্র পাঠানোর প্রয়োজনীয়তাকে আরও জরুরি করে তোলে, কারণ কিয়েভ শীতকাল শুরু হওয়ার আগে যতটা সম্ভব অঞ্চল পুনরুদ্ধার করার চেষ্টা করছে।
ইরানি ড্রোন রাশিয়ানদের জন্য একটি সম্ভাব্য গেম-চেঞ্জার বলে মনে করা হচ্ছে। তারা তুলনামূলকভাবে ছোট এবং কম উচ্চতায় উড়ে, ইউক্রেনীয় রাডার এড়িয়ে যায়। আরেখতা বলেছিলেন যে, তিনি স্টিংগার অ্যান্টি-এয়ারক্রাফ্ট ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে সেগুলো গুলি করতে পারেন, তবে কেবল দিনের বেলায় সেটি সম্ভব। কারণ মার্কিন ওই অস্ত্রগুলোর সাথে কোন নাইট-ভিশন ব্যবস্থা দেয়া হয়নি।
লুহানস্কের মিলিশিয়ার সাথে লড়াইয়ে ইউক্রেনের ৬০ সেনা নিহত
ডনবাসে একদিনে ইউক্রেনের শতাধিক সেনা নিহত : ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের (এলপিআর) মিলিশিয়ার সাথে লড়াইয়ে ৬০ জন লোককে হারিয়েছে, পিপলস মিলিশিয়ার মুখপাত্র ইভান ফিলিপোনেঙ্কো গতকাল বলেছেন। ‘গত ২৪ ঘন্টায়, সক্রিয় এলপিআর পিপলস মিলিশিয়া আক্রমণের ফলে প্রচুর শত্রæ কর্মী হতাহত এবং যানবাহন ধ্বংস হয়েছে। তারা ৬০ জন সেনাসদস্য, তিনটি ট্যাঙ্ক, নয়টি কর্মী বহনকারী সাঁজোয়া যান, একটি ড্রোন, ছয়টি বিশেষ অটোমোবাইল যান হারিয়েছে,’ তিনি পিপলস মিলিশিয়া টেলিগ্রাম চ্যানেলে বলেন।
এদিকে, গতকাল ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়ার ডেপুটি চিফ এডুয়ার্ড বাসুরিন বলেছেন, ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এবং রাশিয়ান সেনাবাহিনীর ইউনিটগুলির সাথে লড়াইয়ে ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী একদিনে ৪০ জনের বেশি সেনা হারিয়েছে। তিনি বলেন, ‘ডিপিআর ইউনিট এবং রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনীর যৌথ পদক্ষেপগুলি নিম্নলিখিত শত্রæর অস্ত্র এবং সামরিক সরঞ্জাম ধ্বংস করেছে, দুটি বিএম-২১ গ্র্যাড রকেট লঞ্চার, দুটি ড্রোন, সাতটি সাঁজোয়া যান এবং বিশেষ সরঞ্জাম।’ পিপলস মিলিশিয়ার টেলিগ্রাম চ্যানেল বাসুরিনকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, জাতীয়তাবাদী শত্রæ কর্মীদের মধ্যে হতাহতের সংখ্যা ৪০ জনেরও বেশি।’ বাসুরিন আরও জানিয়েছেন যে, প্রজাতন্ত্রে ইউক্রেনীয় সেনাদের দ্বারা পুঁতে রাখা অ্যান্টি-পার্সোনেল মাইন লেপেস্টক ধ্বংস করার কাজ অব্যাহত রয়েছে।
জেলেনস্কিকে সরিয়ে দিতে চাচ্ছে পশ্চিমারা : উই স্ট্যান্ড উইথ রাশিয়া আন্দোলনের চেয়ারম্যান ভøাদিমির রোগভ গতকাল বলেছেন, পশ্চিমা দেশগুলি ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফ ভ্যালেরি জালুঝনিকে প্রেসিডেন্ট পদে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে বিবেচনা করছে। ‘ইদানীং, আমি ইউক্রেনীয় কমান্ডার-ইন-চিফ জালুঝনিকে পশ্চিমা মিডিয়াতে আরও ঘন ঘন উপস্থিত হতে দেখেছি,’ রোগভ টেলিগ্রামে লিখেছেন, মার্কিন ভিত্তিক টাইম ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে জালুঝনির ছবির মন্তব্য করেছেন।
‘আসলে, পশ্চিমারা জেলেনস্কিকে এটা স্পষ্ট করে দিচ্ছে যে, কেউই অপরিবর্তনীয় নয়। অন্যথায়, একজন জান্তা একজন ক্লাউনকে প্রতিস্থাপন করবে। এটা হবে সত্যিকারের জান্তা, বিমূর্ত নয়,’ রোগভ বলেছেন, যোগ করেছেন. ‘এই পরিস্থিতি এমন নয়। জেলেনস্কির জন্য উপযুক্ত।’ তার দৃষ্টিতে, ‘ইউক্রেনীয় অভিজাতরা প্রবণতা সম্পর্কে তীব্রভাবে সচেতন,’ এ কারণেই বসন্তের শেষের দিকে, ‘কর্মকর্তা, আইন প্রণেতা এবং বিচারকরা ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর কিছু ব্রিগেডকে সক্রিয়ভাবে সাহায্য করতে শুরু করেছিলেন। তারা বিশ্বাস করে যখন শাসন পরিবর্তন হবে তখন তারা পুরস্কৃত হবে,’ রোগভ যোগ করেছেন।
আলোচনায় জন্য সবসময় প্রস্তুত, এরদোগানকে বলেছেন পুতিন : তুরস্কের নেতা রজব তাইয়্যেপ এরদোগানের সাথে বৈঠকের সময় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন বলেছেন যে, রাশিয়া ইউক্রেনের সাথে আলোচনার জন্য প্রস্তুত ছিল, তবে পরিস্থিতি পরিবর্তনের সাথে সাথে তাদের শর্তও পরিবর্তিত হয়, রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ গতকাল গণমাধ্যমকে বলেছেন। ‘প্রেসিডেন্ট বলেছেন যে, অবশ্যই, রাশিয়া আলোচনার জন্য প্রস্তুত আছে, কিন্তু পরিস্থিতির পরিবর্তনের সাথে সাথে শর্তগুলিও পরিবর্তন হবে,’ পেসকভ বলেছেন।
এর আগে, তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু বলেছেন যে, সমরকন্দে এরদোগানের সাথে কথোপকথনে পুতিন স্বীকার করেছেন যে, কিয়েভের সাথে সংলাপ পুনরুদ্ধারের একটি সম্ভাবনা রয়েছে। ক্রেমলিনের মুখপাত্র যোগ করেছেন যে, আলোচনার বিষয়ে নীতিগুলি অপরিবর্তিত রয়েছে। পুতিন এরদোগানকে মনে রাখতে বলেছিলেন যে, ইউক্রেনের পক্ষই আলোচনার পথ পরিত্যাগ করেছিল। ‘সাধারণভাবে, বিশেষ সামরিক অভিযানের সমস্ত লক্ষ্যগুলোর মতোই নীতিটি একই থাকে। আলোচনায় এটিও বলা হয়েছিল যে, ইউক্রেনীয় পক্ষ সম্পূর্ণভাবে আলোচনার পথ ছেড়ে দিয়েছে। এই কারণে বিশেষ সামরিক অভিযান অব্যাহত রয়েছে,’ পেসকভ বলেছেন।
রাশিয়ায় যোগদানের সিদ্ধান্ত নিতে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন : ডোনেৎস্ক ও লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকস (ডিপিআর, এলপিআর), জাপোরোজিয়া এবং খেরসন অঞ্চলে রাশিয়ায় যোগদানের বিষয়ে গতকাল ছিল গণভোটের শেষ দিন। এ দিনও কোন বড় ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিয়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা। নিরাপত্তার কারণে মোবাইল নির্বাচন কমিশন ভোটের প্রথম চার দিন ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া পরিচালনা করলেও এ দিন ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেয়ে ভোট দেয়ার সুযোগ ছিল। স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় ভোটকেন্দ্র খোলা হয় এবং বিকাল ৪টায় পর্যন্ত ভোট নেয়া হয়।
ডিপিআর বাসিন্দারা প্রজাতন্ত্র জুড়ে ৪৫০টি ভোট কেন্দ্রে এবং রাশিয়ার ২০০ টিরও বেশি ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে পারেন। এলপিআর নির্বাচন কর্তৃপক্ষ প্রজাতন্ত্রে ৪৬১টি এবং রাশিয়ায় আরও ২০১টি স্টেশন স্থাপন করেছে। জাপোরোজিয়া অঞ্চলের কর্তৃপক্ষ পুরো অঞ্চল জুড়ে ৩৯৪টি ভোট কেন্দ্র এবং রাশিয়া, ডিপিআর, এলপিআর এবং খেরসন অঞ্চলে আরও ১০২টি ভোট কেন্দ্র খুলেছে। খেরসন অঞ্চলে আটটি আঞ্চলিক এবং ১৯৮টি জেলা নির্বাচন কমিশন তৈরি করা হয়েছিল, যার বাসিন্দারা ক্রিমিয়া, মস্কো এবং অন্যান্য রাশিয়ান শহরেও ভোট দিতে পারেন। গণভোটগুলি চারটি অঞ্চলেই বৈধ হিসাবে স্বীকৃত হয়েছে কারণ সামগ্রিক ভোটার উপস্থিতি ৫০ শতাংশ অতিক্রম করেছে। সোমবার রাত পর্যন্ত ডিপিআরে মোট ৮৬.৮৯ শতাংশ ভোটার তাদের ব্যালট দিয়েছেন। বর্তমানে এলপিআর-এ ভোটার উপস্থিতি ৮৩.৬১ শতাংশ, খেরসন অঞ্চলে ৬৩.৫৮ শতাংশ এবং জাপোরোজিয়ে অঞ্চলে ৬৬.৪৩ শতাংশ।
গণভোটের বিরুদ্ধে উস্কানি দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র : রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ বলেছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ডোনেৎস্ক এবং লুহানস্ক গণপ্রজাতন্ত্রের পাশাপাশি জাপোরোজিয়া এবং খেরসন অঞ্চলের পরিস্থিতির বিকল্প দৃষ্টিভঙ্গি অস্বীকার করে, যেখানে রাশিয়ায় যোগদানের জন্য গণভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তারা খালি হুমকি ও উস্কানি দিচ্ছে।
সোমবার চ্যানেল ওয়ান টিভিতে প্রচারিত এক সাক্ষাতকারে রিয়াবকভ এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘সঙ্কট সমাধানে ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি এবং বিকল্প পদক্ষেপের চিন্তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগেও অস্বীকার করেছে এবং এখনও করে চলেছে। তারা রাশিয়ায় যোগদাদের বিষয়ে গণভোটের মতো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও বিশ্বাসযোগ্য ইস্যুও উপেক্ষা করছে।’
‘তারা (যুক্তরাষ্ট্র) এ অঞ্চলগুলিতে বসবাসকারী সমস্ত লোকেদের মতামত উপেক্ষা করে নিজেরাই নির্দেশ দিতে থাকে। কোথায় থাকতে হবে, কীভাবে বাস করতে হবে, কী করতে হবে, কীভাবে তাদের স্বাভাবিক অস্তিত্বের ব্যবস্থা করতে হবে, এসব সিদ্ধান্ত ওই অঞ্চলের বাসিন্দাদেরই নেয়া উচিত,’ জ্যেষ্ঠ ক‚টনীতিক উল্লেখ করেছেন, ‘কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র উল্টো নির্দেশ দেয়, তারা ওই লোকদের বাধা দিচ্ছে এবং হুমকির পুনরাবৃত্তি করছে।’
রাশিয়া এবং বেলারুশ তাদের নিজস্ব বিমান উড়াবে : বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কো বিশ্বাস করেন যে, রাশিয়া এবং বেলারুশের যৌথ আমদানি প্রতিস্থাপন প্রকল্পগুলোর মাধ্যমে বন্ধুত্বহীন দেশগুলি থেকে পূর্বে সরবরাহ করা পণ্যগুলি প্রতিস্থাপন করা সম্ভব করবে। সোমবার রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের সঙ্গে এক বৈঠকে লুকাশেঙ্কো বলেন, ‘আমদানি প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে আমরা ভালো করছি। আমরা আমাদের নিজস্ব বিমান চালাব - সামরিক ও বেসামরিক উভয়ই। আমরা আমাদের নিজস্ব গাড়িতে ভ্রমণ করব। কোনো ভয় নেই।’
তার মতে, গত তিন মাসে বেলারুশ এবং রাশিয়া উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। বেলারুশিয়ান প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমরা দেখেছি যে আমরা স্বাভাবিকভাবে বেঁচে থাকতে পারি এবং নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে পারি।’ ‘আমি ইতিমধ্যেই তাদের (ইউরোপীয় রাজনীতিবিদদের) তিনবার বলেছি যে তাদের ভবিষ্যত আমাদের সাথে রয়েছে। রাশিয়ার সাথে, যেখানে তাদের প্রয়োজনীয় সবকিছু রয়েছে। তারা আর কী করবে? প্রয়োজন? শুধু আমাদের দায়িত্বশীল সিদ্ধান্ত নিতে হবে। যদি তারা না চায় - এটি তাদের উপর নির্ভর করে,’ বেলারুশের প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন। সূত্র : তাস, আল-জাজিরা, রয়টার্স, পলিটিকো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ