Inqilab Logo

সোমবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১০ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

মাদারীপুরে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ: থানায় মামলা

মাদারীপুর থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৪:০৫ পিএম

মাদারীপুরে ১৪ বছর বয়সী এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে সদর উপজেলার ছিলারচর ইউনিয়নের এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে ছিলারচর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাইফুল আলম বাবুল সরদারকে আসামি করে একটি ধর্ষণের মামলা করে ওই তরুণীর মা।

মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই প্রতিবন্ধী তরুণী তার পরিবারের সঙ্গে সাবেক চেয়ারম্যান বাবুল সরদারের বাসায় ভাড়া থাকতো। মা একটি স্কুলে অফিস সহায়কের কাজ করেন, বাবা দিনমজুরে। এই দম্পতি মেয়ে শরীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় তাকে বাসায় রেখে বাবা-মা দুজনকেই কাজে যেতে হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলের দিকে হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল আলম বাবুল সরদার ওই তরুণীর ঘরে যায়। পরে জোরপূর্বক ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে। সন্ধ্যায় ওই প্রতিবন্ধী তরুণীর মা-বাবা বাড়িতে আসলে বিষয়টি বুঝতে পেরে রাতে সাড়ে ১০টায় নিযার্তনের শিকার ওই তরুণীকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এদিকে ঘটনার পর থেকেই এলাকায় গা ঢাকা দিয়েছেন অভিযুক্ত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল সরদার।
মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা শিহাব চৌধুরী বলেন, ‘ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে একজন প্রতিবন্ধী তরুণী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া শেষে গাইনী চিকিৎসক তার আলামত সংগ্রহ করে। ওই তরুণী সুস্থ্য আছে।’

ধর্ষণের শিকার তরুণীর বাবা বলেন, কয়েক মাস আগে চেয়ারম্যানের বাড়িতে ভাড়া উঠছি। চেয়ারম্যানকে আমরা অভিভাবক মনে করতাম। মেয়েটা চেয়াম্যানকে দেখলে দাদা দাদা করতো। কিন্তু সে সুযোগ পেয়ে আমার মেয়েটার ক্ষতি করে দিলো। আমি গ্রামে কাউকে মুখ দেখাতে পারছি না। সবাই উল্টো ভয় দেখাচ্ছে। চেয়ারম্যান সাবেক হলেও গ্রামে প্রভাবশালী সালিশদার। তার ভয়ে কেউ আমার পাশে নেই। সবাই ভয় পাচ্ছে। এ অবস্থায় মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে চলে আসছি। আমি এই ঘটনার বিচার চাই।

তবে ধর্ষনের ঘটনা অস্বীকার করে অভিযুক্ত সাইফুল আলম বাবুল সরদার সাংবাদিকদের বলেন, ওই তরুণীর পরিবার দীর্ঘদিন ধরে আমার বাড়িতে ভাড়া থাকে। তার বাবা আমার কাছে বিদেশ যাবার কথা বলে কিছুদিন পূর্বে ৫ লাখ টাকা ধার চেয়েছিল। আমি ওই টাকা না দেয়ায় স্থানীয় ভাবে আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে। এটা রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানাই। এলাকায় না থাকার কারণ জানতে চাইলে বাবুল সরদার বলেন, আমার জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য দূরে আছি। সময় মত সবার সামনে আসবো।

নারী ও কিশোরীদের নিয়ে কাজ করে বসুন্ধরা সেবা সংস্থা। খবর পেয়ে সংস্থাটির সভাপতি লাইজু আক্তার ছুটে আসেন সদর হাসপাতালে। তিনি বলেন, এমন ঘটনা মেনে নেয়া কঠিন। প্রতিবন্ধী মেয়েটার সঙ্গে জঘন্যতম কাজটা করা হয়েছে। প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।
এ সম্পর্কে মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী শুক্রবার সকালে বলেন, 'রাতেই ধর্ষণের অভিযোগটি আমরা পেয়েছি। শুক্রবার সকালে মামলা রেকর্ড হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয় তদন্ত চলছে। অভিযুক্ত আসামি সাবেক চেয়ারম্যান বাবুল সরদার এলাকায় নেই। তাকে গ্রেপ্তারের জন্য আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মামলা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ