Inqilab Logo

রোববার ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০২ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

ব্রিকসের নতুন তহবিল কি বৈশ্বিক আর্থিক ব্যবস্থাকে ‘ডলারের প্রভাবমুক্ত’ করবে?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ অক্টোবর, ২০২২, ১২:১৫ এএম

মুদ্রা বাজার উত্তাল সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, বিশেষ করে রুশো-ইউক্রেনীয় যুদ্ধ এবং মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভের কঠোর আর্থিক ব্যবস্থার কারণে। সুতরাং, ব্রিকস একটি নতুন বৈশ্বিক রিজার্ভ মুদ্রার প্রবর্তনকে ডলার এবং ইউরোর উপর নির্ভরতা কমানোর একটি পদক্ষেপ হিসাবে দেখা হচ্ছে। গত জুনে ১৪তম ব্রিকস সম্মেলনে (ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন এবং দক্ষিণ আফ্রিকা) বক্তৃতায় রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন বলেছিলেন যে, মিনি-সদস্য দেশগুলো একটি নতুন বৈশ্বিক রিজার্ভ মুদ্রার বিকাশে কাজ করছে। তিনি বলেন, আমরা সকল ন্যায়সঙ্গত অংশীদারদের সাথে খোলামেলাভাবে কাজ করতে প্রস্তুত।

‘ব্রিকস দেশগুলোর মুদ্রার একটি তহবিলের ওপর ভিত্তি করে একটি একক মুদ্রা তৈরির সম্ভাবনা এবং সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে’ যোগ করেছেন রাশিয়ান রস শেরপা পাভেল কনিয়াজেভ। ধারণা করা হচ্ছে, ব্রিকস সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মুদ্রার সমন্বয়ে গঠিত নতুন রিজার্ভ হবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের বিশেষ অঙ্কন অধিকার (এসডিআর)-এর বিকল্প। এই প্রথমবার নয় যে, উদীয়মান অর্থনীতির বøকগুলো তার বৈশ্বিক আর্থিক স্বার্থ রক্ষার চেষ্টা করেছে। ২০১৪ সালের ১৫ জুলাই তারা ফোর্তালেজা (ব্রাজিল) শীর্ষ সম্মেলনে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে এবং এটিকে ঐতিহ্যবাহী মুদ্রা সংরক্ষণের জন্য ব্রিক্স পুল নামকরণ করে।

সম্মেলনের একটি বিবৃতি অনুসারে, সমাবেশের লক্ষ্য ছিল, সম্ভাব্য ডলারের তারল্য সমস্যার ক্ষেত্রে ব্রিকস দেশগুলোর কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোকে দিয়ে মার্কিন ডলারে বিনিময় করা তহবিল সরবরাহ করা। পুলের মূল্য ছিল ১০০ বিলিয়ন ডলার যাতে চীনের অবদান সবচেয়ে বেশি ছিল, ৪১ বিলিয়ন ডলার। রাশিয়া, ভারত এবং ব্রাজিল প্রত্যেকে ১৮ বিলিয়ন ডলার এবং দক্ষিণ আফ্রিকা ৫ বিলিয়ন ডলার অবদান রেখেছে।

নতুন বৈশ্বিক রিজার্ভ মুদ্রা চালু করার পদক্ষেপকে মার্কিন ডলারের ওপর নির্ভরতার বিরুদ্ধে সরাসরি প্রতিরক্ষা হিসাবে দেখা হয়। গ্রæপটি বলেছে যে, তারা পশ্চিমা আর্থিক ব্যবস্থার ওপর নির্ভরতা কমাতে একটি যৌথ অর্থপ্রদানের নেটওয়ার্ক তৈরি করার জন্যও কাজ করছে।

তবে, বাজার বিশেষজ্ঞরা সর্বসম্মতভাবে একমত যে, বিশ্বব্যাপী আর্থিক ব্যবস্থার পরিবর্তন রাতারাতি বা একটি ফোরামে ঘটে না। ব্যাঙ্ক ফর ইন্টারন্যাশনাল সেটেলমেন্টস (বিআইএস) অনুসারে, ২০২১ সালের শেষ নাগাদ অ-ব্যাঙ্ক সংস্থাগুলো থেকে প্রায় ১৩.৪ ট্রিলিয়ন ডলার ধার করা হয়েছিল, যার এক তৃতীয়াংশ উদীয়মান বাজার থেকে ছিল।

দেশগুলো ডলারের ওপর তাদের নির্ভরতা কমানোর উপায় খুঁজে পেয়েছে বলে মনে হচ্ছে। বিশ্ব বাণিজ্যে মার্কিন প্রভাব কমে যাওয়ায় তারা তাদের ডলারের সম্পদ হ্রাস করছে। কেমব্রিজ বিশ্লেষণ অনুসারে, ২০০০ সালে ডলারের রিজার্ভের অংশ ছিল ৭১ শতাংশ যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ছিল বৃহত্তম বাণিজ্য দেশ, যা বিশ্ব রফতানির ১২.১ শতাংশের জন্য দায়ী।

২০২০ সালে, চীন বিশ্বব্যাপী রফতানির ১৪.৭ শতাংশ অংশ নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে গেছে যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অংশ ছিল ৮.১ শতাংশ।

ডলার সম্পদ কমানোর প্রভাব কী?
আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের অফিসিয়াল বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিসংখ্যান অনুসারে, অর্থনীতিগুলো তাদের অফিসিয়াল বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে ডলার-বিন্যস্ত সম্পদ হ্রাস করার ফলে, বিশ্বব্যাপী বরাদ্দকৃত বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের ডলারের অংশ ২০২২ সালের মার্চে ৫৮.৮ শতাংশে নেমে এসেছে। ১৯৯৫ সালের পর থেকে এটা সর্বনিম্ন স্তর।

দেশে ফিরে, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া (আরবিআই) কোম্পানিগুলোকে টাকায় বিদেশী বাণিজ্য নিষ্পত্তির অনুমতি দেওয়ার জন্য একটি নতুন সেট তৈরি করছে। ২০১২ সালে, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় ভারতের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে রুপির ব্যবহার পরীক্ষায় একটি টাস্কফোর্স গঠন করে। ওয়ার্কিং গ্রæপের প্রতিবেদনে কিছু তেল রফতানিকারক দেশে রুপির বাণিজ্য স¤প্রসারণের পক্ষে।

অন্যান্য ব্রিক্স সদস্যরাও বাণিজ্য বন্দোবস্তে তাদের জাতীয় মুদ্রার ব্যবহারকে উন্নীত করতে আগ্রহী এবং তারা প্রায় দুই দশক আগে ব্রিক্স সম্মেলনে একই বিষয়ে আলোচনা করেছিল।
২০০৯ সালের জুনে চীন এবং রাশিয়া স্থানীয় মুদ্রায় বাণিজ্য করতে সম্মত হয়। ২০১৩ সালের ব্রিক্স সম্মেলনের সময়, ভারতের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রী আনন্দ শর্মা তার দক্ষিণ আফ্রিকার প্রতিপক্ষ রব ডেভিসের সাথে অনুরূপ পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন।

২০১৫ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিনিয়োগ ব্যাংক এবং চীনের রফতানি-আমদানি ব্যাংক এ প্রস্তাবে পদক্ষেপ নেয় এবং একটি কৌশলগত সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষর করে, যার মধ্যে রেনমিনবিকে ট্রেড-সেটেলমেন্ট মুদ্রা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
২০১৬ সালের জুনে পিপলস ব্যাংক অফ চায়না (পিবিওসি) দক্ষিণ আফ্রিকান র‌্যান্ড যোগ করে, যা চীনা আন্তঃব্যাংক বাজারে সরাসরি বাণিজ্যের অনুমতি দেয়।

পুতিনের নেতৃত্বে নতুন রিজার্ভ কারেন্সি নিয়ে আলোচনা করা বিস্ময়কর নয়। ইউক্রেনীয় আগ্রাসনের পরিপ্রেক্ষিতে রাশিয়ার ওপর পশ্চিমের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো ২৩ অর্থ বছরের প্রথমার্ধের বৃহত্তর অংশে ডলারকে উচ্চ গতির দিকে ঠেলে দেয়। এভাবে প্রস্তাবিত নতুন রিজার্ভ এবং বাণিজ্যে স্থানীয় মুদ্রার ব্যবহার, বøকটি ডলারের বৈশ্বিক আধিপত্যের বিরুদ্ধে একটি বাধা বলে মনে হচ্ছে। সূত্র : মানিকন্ট্রোল।

 

 



 

Show all comments
  • MD Abu Hashem ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৫ এএম says : 0
    Very good step
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিকস


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ