Inqilab Logo

রোববার ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০২ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

নতুন চার রুশ অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নিয়োগ

অন্তর্ভুক্তির বিলে স্বাক্ষর পুতিনের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ অক্টোবর, ২০২২, ১২:১৫ এএম

দোনেৎস্কে অবস্থান শক্তিশালী করেছে মিত্র বাহিনী
খেরসনের কাছে ইউক্রেনীয় বাহিনীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে
ইউক্রেনের ৭০ শতাংশ সেনাই ভাড়াটে
দোনেৎস্কে একদিনে ৪০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত
ইনকিলাব ডেস্ক
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন চারটি নতুন রাশিয়ান অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নিয়োগ করেছেন যারা রাশিয়ার আইন অনুসারে অঞ্চলগুলির নতুন প্রধান নির্বাচিত না হওয়া পর্যন্ত শাসন করবেন। গতকাল এর আগে তিনি নতুন চার অঞ্চলকে অন্তর্ভুক্তির বিলে আনুষ্ঠানিকভাবে সই করেন।

একই রাজনীতিবিদরা যারা রাশিয়ায় যোগদানের আগে অঞ্চলগুলির নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তারা তাদের পদ ধরে রেখেছেন। ডেনিস পুশিলিন, যিনি ইউক্রেনে অভ্যুত্থানের পর ডোনেৎস্ক অঞ্চলে রুশ-ভাষী বিক্ষোভের নেতা ছিলেন, তিনি ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান হয়েছেন। পুশিলিন ২০১৮ সালে প্রজাতন্ত্রের প্রধান নির্বাচিত হন। লিওনিড পাসেচনিক এখন লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান। ২০১৪ সালে, যখন দক্ষিণ-পূর্ব ইউক্রেনে ইউরোমাইডান ইভেন্টের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবং দেশব্যাপী অভ্যুত্থান শুরু হয়, তখন তিনি লুহানস্ক অঞ্চলের জনগণের মিলিশিয়ার পক্ষ নেন এবং ২০১৮ সালে প্রজাতন্ত্রের প্রধান নির্বাচিত হন। দুটি ডনবাস প্রজাতন্ত্রের নেতারা প্রধানের পদবী ধরে রেখেছেন, অন্য দুটি অঞ্চলের প্রধানরা ভারপ্রাপ্ত গভর্নর হয়েছেন।

ইয়েভজেনি বালিটস্কি, যিনি জাপোরোজিয়া অঞ্চলের সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের প্রধান ছিলেন, তিনি ওই অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর হবেন। রাশিয়ান সৈন্যদের দখলে নেয়ার পরে এই অঞ্চলের মুক্ত এলাকাগুলিতে সামরিক-বেসামরিক প্রশাসন গঠন করা হয়েছিল। এবং ভøাদিমির সালদো, পূর্বে খেরসন অঞ্চলের সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের প্রধান, এই অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর হয়েছেন। গণভোটের পরে যেখানে ভোটাররা অঞ্চলগুলিকে রাশিয়ায় যোগদানের জন্য বেছে নিয়েছিল, পুতিন এবং চারটি অঞ্চলের প্রধানরা শুক্রবার ক্রেমলিন-আয়োজক একটি অনুষ্ঠানে রাশিয়ায় তাদের যোগদানের চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন। পুশিলিন, পাসেচনিক, বালিটস্কি এবং সালদো চারটি অঞ্চলের পক্ষে নথিতে স্বাক্ষর করেছেন।

এ সপ্তাহের শুরুতে, রাশিয়ান পার্লামেন্টের উভয় কক্ষ ডোনেৎস্ক, লুহানস্ক, খেরসন এবং জাপোরিজিয়া অঞ্চলকে রাশিয়ার অংশ করার চুক্তি অনুমোদন করেছে। গত ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে বেশ কয়েকদিন ধরে অনুষ্ঠিত গণভোটের মাধ্যমে এসব এলাকার বেশিরভাগ নাগরিকই রাশিয়ার সাথে যুক্ত হওযার পক্ষে তাদের রায় দেন। তার পরেই রাশিয়া সেই অঞ্চলগুলোকে সংযুক্ত করতে পদক্ষেপ নিয়েছে। গতকাল পুতিনের সইয়ের আগে চার চুক্তির বিল রাশিয়ার পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ ফেডারেশন কাউন্সিলের সর্বসম্মত সমর্থন লাভ করে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্র পরিচালিত টেলিভিশন নেটওয়ার্ক আরটি। তাছাড়া সোমবার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের অনুমোদন পাওয়ার আগে চারটি চুক্তি রাশিয়ার সাংবিধানিক আদালতে বৈধ হিসেবেও স্বীকৃত হয়।

ডোনেৎস্কে অবস্থান শক্তিশালী করেছে মিত্র বাহিনী : রুশ সেনা এবং দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের (ডিপিআর) বাহিনী কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর আর্টেমভস্কে (ইউক্রেনের বাখমুত নামে পরিচিত) তাদের অবস্থান শক্তিশালী করেছে। কিয়েভের সেনারা ক্রাসনি লিমান এলাকায় সৈন্য সংখ্যা বৃদ্ধি করছে। তার জবাবে নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করছে রুশ সেনারা। মঙ্গলবার ডিপিআর নেতা ডেনিস পুশিলিন এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি আর্টেমভস্ক এলাকার কথা উল্লেখ করতে চাই। ডোনেৎস্কে মিত্র বাহিনী অবস্থান শক্তিশালী করছে, বিশেষ করে আর্টেমভস্কে। কারণ শত্রæ বাহিনী তাদের সমস্ত বাহিনী এবং রিজার্ভ ক্র্যাসনি লিমান এলাকায় নিয়োগ করছে।’ এর আগে, পুশিলিন বলেছিলেন যে, ইউক্রেনীয় সেনারা আর্টেমোভস্কের বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে সেনা প্রত্যাহার করছে।

খেরসনের কাছে ইউক্রেনীয় বাহিনীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে : খেরসন এলাকায় ইউক্রেনীয় বাহিনী ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির মাধ্যমে তথাকথিত ধ‚সর অঞ্চলে এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। গতকাল ওই অঞ্চলের সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের উপপ্রধান কিরিল স্ট্রেমাসভ বলেছেন। ‘নব্য-নাৎসিরা খুব ভারী ক্ষতির মূল্যে ধূসর অঞ্চল অতিক্রম করেছিল। রাশিয়ার আর্টিলারি এবং এরোস্পেস ফোর্স ইউক্রেনীয় নব্য-নাৎসিদের প্রচÐভাবে আঘাত করছিল এবং বড় ক্ষতির কারণ হচ্ছে,’ তিনি সলোভিওভ লাইভ টিভি চ্যানেলে বলেছেন। এর আগে, স্ট্রেমাসভ বলেছিলেন যে, যুদ্ধ রেখায় পরিস্থিতি স্থিতিশীল ছিল এবং ইউক্রেনীয় বাহিনীর সমস্ত আক্রমণের ফলে মারাত্মক ক্ষতি হয়েছিল।

ইউক্রেনের ৭০ শতাংশ সেনাই ভাড়াটে : ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর জনশক্তির ৬০ থেকে ৭০ শতাংশই হচ্ছে ভাড়াটে সেনা। তারা মূলত ইউরোপ থেকে আসা ভাড়াটে যোদ্ধা। এলপিআরের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর একজন সহকারী ভিটালি কিসেলিভ গতকাল এ তথ্য জানিয়েছেন।

রাশিয়ার টিভি চ্যানেল ১-এ তিনি বলেছেন, ‘রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা ইউক্রেনের সেনার ৬০ শতাংশ, কিছু ক্ষেত্রে ৭০ শতাংশই পূর্ব ইউরোপের ভাড়াটে যোদ্ধা।’ কিসেলিভ বলেছিলেন যে, তাদের কাজ ছিল সোয়াতোভো এলাকায় একটি কৌশলগত এলাকা দখলে নেয়া। ওই এলাকায় শুধু বিদেশি অস্ত্রে সজ্জিত ভাড়াটেরা কাজ করছে। কিসেলিভ আরও যোগ করেছেন যে, আলবেনিয়ান ভাড়াটে যোদ্ধাদের প্রতিদিন ২ থেকে ৩ হাজার এবং ইউরোপীয় দেশগুলির ভাড়াটেদের মাসে ৩৫ থেকে ৪০ হাজার ডলার দেয়া হয়।

দোনেৎস্কে একদিনে ৪০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত : মঙ্গলবার দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) বাহিনীর সাথে যুদ্ধে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী প্রায় ৪০ জন সেনা নিহত হয়েছে। গতকাল ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়ার মুখপাত্র এডুয়ার্ড বাসুরিন এ তথ্য জানিয়েছেন। ‘শত্রæর জনশক্তির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৪০ জন কর্মী,’ ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়ার প্রেস অফিস তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে মুখপাত্রকে উদ্ধৃত করে বলেছে। গত ২৪ ঘন্টায়, ডিপিআর মিলিশিয়া বাহিনী এবং রাশিয়ান সৈন্যরা একটি ইউক্রেনীয় উরাগান মাল্টিপল রকেট লঞ্চার, মর্টার স্কোয়াডের দুটি ফায়ারিং পোস্ট, তিনটি সাঁজোয়া যান এবং দুটি ড্রোন ধ্বংস করেছে, বাসুরিন বলেছেন। সূত্র : তাস, ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড, বিবিসি নিউজ, রয়টার্স।

 

 



 

Show all comments
  • Adv Mosharaf Hossain ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২২ এএম says : 0
    আমেরিকা এটা কোনভাবেই মানতে পারছেনা, আর তাই মিথ্যাচার করাচ্ছে তার মিত্রদের দিয়ে এবং মিডিয়া দিয়ে।।।।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Rahmatullah ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২২ এএম says : 0
    পৃথিবীতে জালেমের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। যে যেভাবে পারে সেভাবেই জোর জবরদস্তি দখলে যাচ্ছে। যেমন কেউ ভূমিদস্যু কেউ এলাকা দস্যু এবং কেউ কেউ দেশ দস্যু। এরা সবাই ইয়াজুজ মাজুজের রক্ত।
    Total Reply(0) Reply
  • Kamrul Islam ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২১ এএম says : 0
    এগিয়ে যাও রাশিয়া, রাশিয়ার জয় হোক ।
    Total Reply(0) Reply
  • Afsin khan ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২২ এএম says : 0
    · পরিস্থিতি যখন খুব ভয়াবহ তখন নিজেকে চেনাও বড় দায় এই পৃথিবীর কোন ক্ষমতাই চির স্হায়ী নয় একদিন পৃথিবীরও মৃত্যু ঘটবে
    Total Reply(0) Reply
  • MD Abu Hashem ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৩ এএম says : 0
    ক্ষমতার ভারসাম্যের জন্য রাশিয়ার জয় অপরিহার্য নতুতা অনেক দেশ আধুনিক দাশে পরিণত হবে।।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পুতিন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ