Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

চুয়েটে ৮ম জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াড

| প্রকাশের সময় : ১২ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এ গত শুক্রবার ৮ম জাতীয় স্নাতক গণিত অলিম্পিয়াড-২০১৬ (চট্টগ্রাম অঞ্চল) অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ গণিত সমিতির উদ্যোগে এবং এ.এফ. মুজিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায়, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর গণিত বিভাগের আয়োজনে এ অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হয়। এতে এতদ্ অঞ্চলের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১২০ জন প্রতিযোগী অংশ নেয়। এতে প্রথম স্থান অধিকার করে চট্টগ্রাম সরকারী মহসিন কলেজের ছাত্রী নাসরিন আক্তার। দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে চট্টগ্রাম সরকারী সিটি কলেজের ছাত্র হাসানুর রহমান। চুয়েটের ইইই বিভাগের ছাত্র ফয়সাল আহমেদ হয় তৃতীয়। এ অলিম্পিয়াডের ১০ জন ছাত্র বুয়েটে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় অলিম্পিয়াডে অংশ নেবেন।
এ উপলক্ষে চুয়েটের কেন্দ্রীয় অডিটরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালায় প্রধান অতিথি ছিলেন ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। সম্মানিত অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সুপার নিউমারী অধ্যাপক ড. মোসলেহ উদ্দিন আহমদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মুজিবুর রহমান চৌধুরী, বুয়েটের অধ্যাপক ড. মনিরুল আলম সরকার, চুয়েটের প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. আশুতোষ সাহা, রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন চুয়েটের গণিত বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো: ইয়াকুব আলী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অলিম্পয়াডের সদস্য সচিব ড. উজ্জ্বল কুমার দেব। সঞ্চালনায় ছিলেন চুয়েটের গণিত বিভাগের শিক্ষক কামরুল হাসান চৌধুরী।
প্রধান অতিথি  ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, গণিত আছে বলেই আমরা জগতের অনেক কিছুর ব্যাখ্যা জানি। গণিতের যথার্থ ব্যবহার ও প্রয়োগের মাধ্যমে আমরা পেয়েছি একটি আধুনিক ও উন্নত সভ্যতা। আমাদের দরকার একদল যোগ্য সৎ, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক মেধাবী প্রজন্ম। এ দেশের মানুষ আজ মেধাবী নতুন প্রজন্মের দিকে তাকিয়ে আছে। তারাই পারবে মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে, আগামী দিনের উন্নত এক বাংলাদেশ গড়তে। মানুষের সেই আশা পূরণ করার জন্য নতুন প্রজন্মকে সৎচরিত্রের অধিকারী হতে হবে। লালন করতে হবে নিঃস্বার্থ দেশপ্রেম। প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য নেতৃত্বে মধ্যম আয়ের দেশের অভিযাত্রা এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ গঠনের লক্ষ্যে যে অগ্রযাত্রা চলছে সেখানে মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীরা আগামী দিনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও নেতৃত্বের ভূমিকায় থাকবে। এজন্য ছাত্র-ছাত্রীদের গভীর দেশপ্রেম ধারণ করে নিজেদেরকে গড়ে তুলতে হবে। ইতিবাচক মানসিকতায় নিজেদেরকে প্রস্তুত করতে হবে।
ষ শিক্ষাঙ্গন রিপোর্ট



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ