Inqilab Logo

রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫ মাঘ ১৪২৯, ০৬ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

ভারত-পাকিস্তান পানি বিরোধে মধ্যস্থতায় বিশ্বব্যাঙ্কের পদক্ষেপ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ অক্টোবর, ২০২২, ১২:০০ এএম

সিন্ধু অববাহিকা চুক্তি লঙ্ঘন করে ভারতের পশ্চিম নদীতে দুটি পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের বিষয়ে পাকিস্তানের উদ্বেগ মোকাবেলায় দুটি সমান্তরাল আইনি প্রক্রিয়া শুরুর ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। ভারতকে প্রকল্পটি সম্পন্নের সুযোগ দিয়ে ৬ বছর পর বিশ্বব্যাংক এ পদক্ষেপ নিল।
দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন রিপোর্ট করেছে যে, ১৯৬০-এর সিন্ধু অববাহিকা চুক্তির মধ্যস্থতাকারী বিশ্বব্যাংক ইসলামাবাদ এবং নয়াদিল্লি চুক্তিতে দেওয়া বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য কোনো একক প্রক্রিয়ায় ঐকমত্য তৈরি করতে না পারার পরে একটি জটিল পথ নিয়েছিল।
ব্যাঙ্ক একটি বিবৃতিতে বলেছে ‘সিন্ধু পানি চুক্তির অধীনে তার দায়িত্বের সাথে সামঞ্জস্য রেখে কিষেণগঙ্গা এবং র‌্যাটল পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিষয়ে ভারত ও পাকিস্তানের অনুরোধ করা দুটি পৃথক প্রক্রিয়ার মধ্যে বিশ্বব্যাংক নিয়োগগুলো করেছে’। ভারত একজন ‘নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ’ নিয়োগের অনুরোধ করেছিল, অন্যদিকে পাকিস্তান সালিশি আদালত বেছে নিয়েছিল।
বিশ্বব্যাংকের মতে, জবাবে মিশেল লিনোকে নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে এবং প্রফেসর শন মারফিকে সালিশি আদালতের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। এতে যোগ করা হয়, তারা তাদের স্বতন্ত্র ক্ষমতায় বিষয় বিশেষজ্ঞ হিসাবে এবং বর্তমানে তাদের যে কোনো নিয়োগে স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালন করবে।
পাকিস্তানের সিন্ধু কমিশনার সৈয়দ মেহের আলী শাহ এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘সালিসি আদালতের স্থগিতাদেশ দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে, আর নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞের কাছে এমন ক্ষমতা নেই’। ‘পাকিস্তান ও ভারত কোনো একক প্রক্রিয়ায় ঐকমত্য গড়ে তুলতে না পারার পর বিশ্বব্যাংক কাজ করেছে’ তিনি যোগ করেছেন।
২০১৬ সালে পাকিস্তান দুটি পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের নকশা সম্পর্কে তার উদ্বেগ দেখার জন্য একটি সালিশি আদালত স্থাপনের সুবিধার্থে বিশ্বব্যাংককে বলেছিল। ভারত একই উদ্দেশ্যে একজন নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ নিয়োগের কথা বলে। বিষয়টি গত ছয় বছর ধরে ঝুলে ছিল।
দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, স্থায়ী সিন্ধু কমিশন কিছুক্ষণের জন্য এ বিষয়ে আলোচনায় নিযুক্ত থাকার পর পাকিস্তান ও ভারত উভয়ের অনুরোধ আসে। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে, বিশ্বব্যাংকের পাকিস্তানের নির্বাহী পরিচালক নাভিদ কামরান বালোচও ইসলামাবাদের অবস্থান মেনে নিতে ব্যাংকটিকে রাজি করাতে কার্যকর ভূমিকা পালন করেছেন। এর আগে, ২০১৮ সালে বিশ্বব্যাংক পাকিস্তানকে সালিশি আদালতের জন্য তার অনুরোধ প্রত্যাহার করতে বলেছিল।
বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘বিশ্বব্যাংক সেই সব পক্ষের উদ্বেগ শেয়ার করে চলেছে যারা একই সাথে ব্যবহারিক এবং আইনি চ্যালেঞ্জের জন্য দুটি প্রক্রিয়া চালাচ্ছে’।
‘বিশ্বব্যাংক নিশ্চিত যে, নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ হিসাবে এবং সালিশি আদালতের সদস্য হিসাবে নিযুক্ত উচ্চ যোগ্য বিশেষজ্ঞরা তাদের এখতিয়ার সংক্রান্ত আদেশের ন্যায্য এবং যত্নশীল বিবেচনায় নিযুক্ত হবেন, যেহেতু তারা চুক্তির মাধ্যমে ক্ষমতাপ্রাপ্ত হয়েছে, এটি যোগ করেছে।
১৯৬০ সালের চুক্তি বলে যে, সালিশি আদালত গঠন করা যেতে পারে যখন একজন বা উভয় পক্ষই ‘একমত বিরোধটি আলোচনা বা মধ্যস্থতার মাধ্যমে সমাধান করার সম্ভাবনা নেই’।
এ দুটি পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রযুক্তিগত নকশা বৈশিষ্ট্য চুক্তির পরিপন্থী কিনা তা উভয় দেশ একমত নয়। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে মতপার্থক্য ঝিলম নদীর ওপর নির্মিত ৩৩০-মেগাওয়াট কিষেণগঙ্গা এবং চেনাব নদীর ওপর স্থাপিত ৮৫০পি-মেগাওয়াট র‌্যাটল পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের নকশা বৈশিষ্ট্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে।
ক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, ২০১৮ সালে ভারত কিষেণগঙ্গা প্রকল্পের উদ্বোধন করে, আর র‌্যাটল প্রকল্পের কাজ কয়েক মাস আগে শুরু হয়েছিল।
তবে কোনো পক্ষ একতরফাভাবে কোনো প্রকল্প নির্মাণ করলে তা সব ধরনের ঝুঁকি বহন করে। আইনি প্রক্রিয়া শুরু করতে ছয় বছর সময় নেওয়ার বিশ্বব্যাংকের সিদ্ধান্ত ভারতকে কিষেণগঙ্গা প্রকল্প সম্পন্ন করার সুযোগ দিয়েছে। চুক্তিটি এ দুটি নদীকে, সেইসাথে সিন্ধুকে, ‘পশ্চিম নদী’ হিসাবে মনোনীত করে যেখানে কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া পাকিস্তানের অবাধ ব্যবহার রয়েছে।
পরিশিষ্টে উল্লেখ করা সীমাবদ্ধতা সাপেক্ষে চুক্তির অধীনে, ভারতকে এসব নদীতে পানিবিদ্যুৎ সুবিধা নির্মাণের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বিশ্বব্যাংক বলছে যে, চুক্তিতে স্বাক্ষরকারী হিসেবে এর ভূমিকা সীমিত এবং পদ্ধতিগত।
বিশেষ করে, ‘পার্থক্য’ এবং ‘বিবাদ’-এর ক্ষেত্রে এর ভূমিকা নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ বা আদালতের সালিশি কার্যধারার প্রেক্ষাপটে নির্দিষ্ট ভূমিকা পালন করার জন্য ব্যক্তিদের মনোনীত করার মধ্যে সীমাবদ্ধ যখন উভয় পক্ষের দ্বারা অনুরোধ করা হয়।
বিশ্বব্যাংক অতীতে বলেছে যে, তারা একটি বন্ধুত্বপূর্ণ সমাধানের জন্য কাজ করেছে এবং একাধিক উচ্চ-পর্যায়ের বৈঠক ডাকা হয় এবং বিভিন্ন প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করা হয়।
গত ৩১ মার্চ বিশ্বব্যাংক সালিশি আদালতের জন্য একজন নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ এবং একজন চেয়ারম্যান নিয়োগের প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করার সিদ্ধান্ত নেয়। সূত্র : আইএএনএস ও দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত-পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ