Inqilab Logo

শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ০৫ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

চীনের মধ্যস্থতায় রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে রাজি মিয়ানমার : সাংবাদিকদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০২২, ১২:০০ এএম

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, মিয়ানমারের জান্তা সরকার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে রাজি হয়েছেন। চীনের মধ্যস্ততায় প্রত্যাবাসন করতে রাজি মিয়ানমার। তবে রোহিঙ্গাদের পরিচয় নিশ্চিত করে এ কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন তারা।
গতকাল রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ঘণ্টাব্যাপী চীনা দূতাবাসের প্রতিনিধিদের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। এ সময় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং চীনা দূতাবাসের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, কবে নাগাদ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়া হবে এ বিষয়ে এখনও নিশ্চিত করে কোনো কিছু বলতে পারেনি চীন। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসন ও সংকট সমাধানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। তবে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেনি চীনা পক্ষ।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চীনের রাষ্ট্রদূত এখনও সুখবর দিতে পারেননি। তিনি আশা করেছিলেন, একটি সুখবর দেবেন কিন্তু সফল হননি। আমি তাকে প্রশ্ন করেছিলাম ‘আপনি বলেছেন সবাইকে সুখবর দেবেন’। জবাবে রাষ্ট্রদূত জানান, তার আশা ছিল সুখবর দেওয়ার কিন্তু তা এখনও পূরণ হয়নি।
এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আমরা বললাম, আপনি এই প্রজেক্ট কতদিন ধরে নিয়েছেন কিন্তু ঝুলিয়ে রেখেছেন। এটি ভালো না। আমাদের কত আশা। উনি বলছিলেন সুখবর দেবেন। নতুন কিছু সুখবর দিতে পারেননি। এটুকু বলেছেন যে তারা এখনও রোহিঙ্গাদের নেওয়ার জন্য এক পায়ে দাঁড়িয়ে। এটিই সুখবর।
মিয়ানমারের দিক থেকে উৎসাহ অনেক কম, তারা নিজেদের সমস্যা নিয়ে ব্যস্ত জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সমস্যা যেটি হয়েছে যে রোহিঙ্গারা যখন আসে তখন তারা নির্যাতনের শিকার হয়েছিল। তাদের হত্যা করা হচ্ছিল, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তখন তারা পালিয়ে আসে। কিন্তু তারা কোনও ডকুমেন্ট নিয়ে আসেনি। এখন মিয়ানমার সরকার ডকুমেন্টের ওপর খুব জোর দিচ্ছে। আরেকটি সমস্যা হচ্ছে যাচাই বাছাই এর সময়ে তারা পরিবারগুলোর সব সদস্যকে স্বীকৃতি দেয়নি অর্থাৎ বাবা-মা করেছে কিন্তু বাচ্চা করেনি বা স্বামী করেছে কিন্তু স্ত্রীকে করা হয়নি। আমরা বলেছি যে গেলে পুরো পরিবার যাবে।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন