Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫, ৯ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

স্মার্টফোন উত্তপ্ত হওয়া ঠেকাতে

| প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

উচ্চক্ষমতার ব্যাটারি ও দ্রুত চার্জিং প্রযুক্তির কল্যাণে স্মার্টফোন ডিভাইসের কার্যসম্পাদন ক্ষমতা বেড়েছে কয়েক গুণ। কিন্তু সমস্যা হলো এ ধরনের উচ্চক্ষমতার স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা প্রায়ই ডিভাইস উত্তপ্ত হওয়ার সমস্যায় পড়েন। সাধারণত চার্জে থাকা অবস্থায়, ফোরকে কনটেন্ট প্লে বা রেকর্ডিংয়ের সময় অথবা ভারী কোনো অ্যাপ ব্যবহারের সময় ডিভাইস বেশি উত্তপ্ত হয়। সিংহভাগ ক্ষেত্রে হার্ডওয়্যারের কারণে ডিভাইস গরম হয়। কিছু নির্দেশনা মেনে চলার মাধ্যমে ডিভাইস উত্তপ্ত হওয়া রোধ করা সম্ভব।
কেস সরিয়ে ফেলুন
স্মার্টফোনে কেস ব্যবহার করা মানে ডিভাইসকে বাইরের পরিবেশ থেকে আলাদা করে ফেলা। অর্থাৎ কোনো কারণে ডিভাইস উত্তপ্ত হলেও ভেতরে সৃষ্ট তাপ বাইরে বেরোতে পারবে না। কিছু ক্ষেত্রে ডিভাইসের কেস সরিয়ে ফেলা উত্তপ্ত হওয়া রোধ করবে।
চার্জিংয়ের সময় শক্ত স্থানে রাখুন
ডিভাইস চার্জে দেয়ার সময় বেড বা সোফার উপর না রেখে শক্ত কিছুর ওপর রাখুন, যা তাপ শুষে নেবে। কারণ বেড বা সোফার ওপর রেখে চার্জ দিলে উৎপন্ন তাপ ডিভাইসের ভেতরে আটকা পড়ে, যা স্মার্টফোনকে আরো গরম করে তোলে।
ব্যাটারিতে প্রভাব ফেলে এমন অ্যাপ মুছে ফেলুন
স্মার্টফোন ডিভাইসে বিভিন্ন কাজ সম্পাদনের জন্য নানা অ্যাপ ব্যবহার করতে হয়। বেশকিছু অ্যাপ আছে যেগুলো ডিভাইসের ব্যাটারিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। সাধারণত এ অ্যাপগুলো বন্ধ করা হলেও ব্যাকগ্রাউন্ডে চলতে থাকে। ফলে দ্রুত ব্যাটারির চার্জ শেষ হয়ে যায় এবং ডিভাইসের কার্যসম্পাদন ক্ষমতা কমে যায়।
রাতব্যাপী চার্জে রাখা বাদ দিন
ব্যবহারকারীদের অনেকেই রাতভর ডিভাইস চার্জে দিয়ে রাখেন। রাতব্যাপী স্মার্টফোন চার্জে রাখা শুধু ব্যাটারির কার্যকারিতা কমিয়ে দেয় না, বরং ডিভাইসকে উত্তপ্ত করে।
সরাসরি সূর্যালোক এড়িয়ে চলুন
ডিভাইস ব্যবহারের সময় সরাসরি সূর্যালোক এড়িয়ে চলুন। কারণ সূর্যের আলো ও চালু থাকা ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ দুই মিলে ডিভাইসকে উত্তপ্ত করে তুলবে।
তৃতীয় পক্ষের চার্জার ও ব্যাটারি এড়িয়ে চলুন
বেশকিছু তৃতীয় পক্ষ প্রতিষ্ঠানের সরবরাহ করা চার্জার ও ব্যাটারি ডিভাইস গরম হওয়ার জন্য দায়ী। শুধু ব্যাটারি নয়; ভিন্ন ওয়াটের চার্জার কিছু কিছু ক্ষেত্রে স্মার্টফোনকে উত্তপ্ত করে তুলতে পারে।
স ইমরান খান



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ