Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সম্ভব-অসম্ভব নানা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি ছড়াচ্ছেন প্রার্থীরা

| প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মোঃ হাফিজুর রহমান মিন্টু, নারায়ণগঞ্জ থেকে : নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (নাসিক) নির্বাচনি হাওয়া বেশ জোরেশোরে বইতে শুরু করেছে। প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা উন্নয়নের সম্ভব-অসম্ভব নানা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি ছড়িয়ে বেড়াচ্ছেন ২৭টি ওয়ার্ডের ভোটারদের মাঝে। প্রার্থীদের দেয়া প্রতিশ্রুতির কোনটি সম্ভব আর কোনটি সম্ভব না, সাধারণ ভোটারগণ না জানলেও প্রার্থীগণ অবশ্যই জানেন। তবুও পাড়া-মহল্লার ভোটারদের মাঝে নানা ধরনের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনি বৈতরণী পার হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জের সচেতন দুজন ভোটার গোলাম সাদেক তুহীন ও আবদুল মালেক মিলন প্রার্থীদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা আমাদের আর মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেবেন না, এবার মুখে লাগাম টানুন, মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে সম্মানিত ভোটারদের পবিত্র ভোটাধিকারকে অপবিত্র করবেন না। এদিকে নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বড় দু’দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দু’মেয়র প্রার্থী বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনি প্রচারণা সভা সমাবেশে পরস্পর পরস্পরকে উদ্দেশ্য করে আপত্তিকর বাক্যবাণ নিক্ষেপ করছেন।
বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সাখাওয়াতের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করার ঘোষণা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তবে সে মামলা নির্বাচনের পর দায়ের করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন একটি বে সরকারি টিভির টক শো’তে।
একই টক শো’তে আইভীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী অ্যাড. সাখাওয়াত হোসেন খান। তিনি দাবী করেছেন, আইভী মেয়র থাকাকালীন প্রভাব বিস্তার করে অনেক দুর্নীতি করেছেন। যা দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করে প্রমাণও পেয়েছেন।
অপরদিকে সাখাওয়াতের অভিযোগ অস্বীকার করে আইভী বলেছেন, আমি কোন দুর্ণীতি করি নি। দুণনীতি দমন কমিশনও কোন প্রমাণও পায় নি। সাখাওয়াত সাহেব যে অভিযোগ তুলছেন তার প্রমাণ দিতে হবে। তা না পারলে তার (সাখাওয়াত) বিরুদ্ধে নির্বাচনের পর মানহানির মামলা করা হবে।
‘আইভী কাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে, জনগণই বিচার করবে’ : সাখাওয়াত
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান বলেছেন, বিগত দিনে আইভী কোন সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কথা বলেনি, কথা বলেছে একটি পরিবারের বিরুদ্ধে। আমি সব ধরনের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। আমি ওই পরিবারের বিরুদ্ধে ও অত্যাচার অপরাধ কর্মকা-ের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। এখন আইভী কার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে সেই বিচারটা জনগণের উপর দিলাম।
গতকাল সোমবার সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণার সময় এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে বিএনপি নেতা তাবিথ আওয়াল, যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ কোষাধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
সাখাওয়াত বলেন, আইভী নিজেই বলেছেন তিনি গ্যাস, পানিসহ অনেক রাস্তাঘাটের কাজ করতে পারেননি। ১৩ বছর এসব কাজ করতে না পারার ব্যর্থতা নিজেই স্বীকার করেছেন। এ সময় তিনি ভোটারদের উদ্দেশে বলেন, ৫ বছর সময় দিলে আমি নারায়ণগঞ্জ থেকে সন্ত্রাস নির্মূল করব। সাখাওয়াত আরও বলেন, আইভী বুঝে গেছে ওনার পায়ের তলায় মাটি নেই। জনগণ ওনাকে আর ভোট দিবে না। ওনি নিউজল্যান্ডের নাগরিক ছিলেন। ২০০৩ সালে নির্বাচন করার জন্য নাগরিকত্ব ছেড়ে এখানে এসেছেন। ওনার স্বামী নিউজিল্যান্ডের নাগরিক। অপরদিকে আমাদের পরিবার এ শহরে ১৫০ বছর ধরে ব্যবসা-বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত। আমার শিক্ষা জীবন এখানে কেটেছে। আমি আমার ২৫ বছরের পেশাজীবনে এ নারায়ণগঞ্জের মানুষের সাথেই ছিলাম। আজীবন থাকব।
সাখাওয়াত শীতলক্ষ্যার ব্রিজ কিভাবে বানাবেন : আইভী
নির্বাচিত হলে শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর সেতু করে দেবÑ বিএনপি প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খানের এমন প্রতিশ্রুতির জবাবে প্রতিদ্বন্দ্বী আইভী বলেছেন, সাখাওয়াত হোসেন যে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন ব্রীজ করে দেবেন। তা তিনি কিভাবে করবেন? উন্নয়নের এ ধারাবাহিকতা রাখতে হলে আইভীকেই প্রয়োজন আছে। এ সরকারের প্রয়োজন আছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবশ্যই এ সেতু করে দিবেন।
সোমবার সকালে শহরের ১২নং ওয়ার্ডের ইসদাইর উত্তর চাষাঢ়ায় গণসংযোগের সময়ে তিনি এসব কথা বলেন। আইভী বলেন, ‘শীতলক্ষ্যা সেতু করে দেবো এ ধরনের কোনো প্রতিশ্রুতি আমি কখনো দেইনি। বিগত ৫ বছর অনেক চেষ্টা করেছি সেতু করার জন্য। আমি সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে ৫নং খেয়াঘাট এলাকা দিয়ে তৈরি করতে চাচ্ছি সেটার কাজও অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আমি চেষ্টা করবো যাতে এ ব্রীজটা যেনো করা যায়।’
আইভী বলেন, ‘গ্যাস ও পানি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নয়। গ্যাসের একটা সমস্যা নারায়ণগঞ্জে আছে। ইতোমধ্যে আমি প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তবে এখন হয়তো কিছুটা গ্যাসের চাপ কমে গেছে। তবে গ্যাসের কাজ এখানে চলছে। তাই দয়া করে এনিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াবেন না। পানির সমস্যা ঢাকা ওয়াসার কাজ সেটা ওয়াসা দেখবে। কিন্তু এ কাজটাকে সহযোগিতা করার জন্য আমাদের যতটুকু সহযোগিতা প্রয়োজন সেটা করবো।’
সাখাওয়াতের পক্ষে নজরুল ইসলাম খানের গণসংযোগ
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপিধানের শীষ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের পক্ষে গণসংযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা নজরুল ইসলাম খান। সোমবার সকালে শহরের ডিআইটিস্থ জেলা ও নগর বিএনপি কার্যালয় থেকে গণসংযোগ শুরু করেন। পরে তারা শহরের নয়ামাটি, টানবাজার, পৌরকলোনী (সুইপার কলোনী) এলাকায় গণসংযোগ করে ভোট প্রার্থনা করেন এসময় তার সঙ্গে নারায়ণগঞ্জ নগর বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, জাতীয়তাবাদী শ্রমিকদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন (সোনালী ব্যাংক সিবিএ নেতা), জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি আসাদুজ্জামান বাবুল, জেলা শ্রমিকদলের সভাপতি নাসিরউদ্দিনসহ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী শ্রমিকদলের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ।
নায়েবে আমীর মুফতী ফয়জুল করীম
সোমবার পীর সাহেব চরমোনাই মনোনীত ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী মুফতী মাসুম বিল্লাহ হাতপাখা প্রতীক নিয়ে সকাল থেকে নেতা কর্মীদের নিয়ে শহর শাখার মাসদাইর বাজার, ডিআইটি, ২নং রেলগেইট, প্রেস ক্লাব মোড়, শহীদ মিনার এলাকা ও চাষাঢ়া চত্বর এলাকায় গণসংযোগ করেন। গণসংযোগ কালে ডিআইটিতে বিকেল ৩টায় নগর সেক্রেটারি মুহা. সুলতান মাহমুদের সঞ্চালনায় পথ সভায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মুহতারাম নায়েবে আমীর হযরত মাওলানা মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম পীরে কামেল চরমোনাই হুজুর বক্তব্যে জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, নগর উন্নয়ন ও জনগণের কল্যাণের পথে বড় বাধা দুর্নীতি। দুর্নীতিকে পাকাপোক্ত করার জন্য সন্ত্রাস, স্বজনপ্রীতি ও দলীয় করণের আশ্রয় নেওয়া হয়। অপরিকল্পিত পরিকল্পনা এবং সেই অনুযায়ী কর্মকা-ও দুর্নীতির একটি হাতিয়ার। অপরিকল্পিত কর্মকা-ের মাধ্যমেও জনগণের আমানতের খেয়ানত করা হয়। নগর বাসীর কাছে উদাত্ত আহ্বান জানাই মেয়র প্রার্থী মাসুম বিল্লাহকে হাত পাখা প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের নির্মূলকরণ কর্মসূচি গ্রহণ করতে আপনারা সহযোগিতা করবেন। তিনি আরও বলেন, নারীরা মায়ের জাতি। আমার মা বোনেরা প্রয়োজনের তাগিদে বখাটেদের দৌরাত্ম্যের কারণে নির্বিঘেœ কর্মস্থলে যেতে পারে না। আমি মা বোনদেরকে অনুরোধ করবো ইসলামের পক্ষে হাতপাখা প্রতীকে আপনার একটি মূল্যবান ভোট দিয়ে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিমুক্ত নগর গড়তে সহযোগিতা করুন।
না.গঞ্জে যুবলীগ নেতা কাউন্সিলর প্রার্থীর ক্যাম্পে হামলা
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১১নং ওয়ার্ডে লাটিম প্রতীকে কাউন্সিলর প্রার্থী যুবলীগ নেতা ওমর খৈয়াম চঞ্চলের ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে তাকে মারধর এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শহরের বরফকল মাঠ সংলগ্ন লাটিম প্রতীকের নির্বাচনী ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে। এসময় কাউন্সিলর প্রার্থীসহ তার সঙ্গে থাকা আরো দু’জনও মারধরের শিকার হন। ওই ওয়ার্ডে একটি বিএনপি নেতা কাউন্সিলরদের পক্ষে কাজ করা নিয়ে বিরোধের জের ধরেই এ হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগে জানা গেছে। এ ঘটনায় ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। তবে চঞ্চলের সঙ্গে হাতাহাতির কথা স্বীকার করলেও বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আওয়ামীলীগের নেতারা।
প্রত্যক্ষদর্শী র‌্যাব-১১ এর কর্পোরাল মোঃ ইউনুছ জানান, তিনি তখন ভেতরের রুমে বসে কথা বলছিল। হঠাৎ করেই ৬/৭ জন লোক কক্ষের ভেতরে প্রবেশ করে চঞ্চলকে মারধর করতে থাকে। তবে কি কারণে তাকে মারধর করেছে তা তিনি বলতে পারেন না। ওইসময় তিনি বাধা দেয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। পরে খবর পেয়ে চঞ্চলের লোকজন ভেতরে প্রবেশ করলে তিনি কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান। এদিকে খবর পেয়ে সদর মডেল থানার ওসি আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
তরিকুল ইসলাম নয়ন, সিদ্ধিরগঞ্জ (না.গঞ্জ) থেকে জানান,
গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সিটি কর্পোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জের ১নং ওয়ার্ডে বিএনপি প্রার্থী এডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে নিয়ে গণসংযোগ করেছেন। তিনি লিফলেট বিতরণসহ ধানের শীষের পক্ষে ভোট চান। এসময় সাখাওয়াত হোসেনের সাথে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদিন ফারুক, নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল, মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনসহ জাতীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং কর্মী-সমর্থকরা গণসংযোগে অংশ নেন।
ওই ওয়ার্ডে প্রচারণা শেষে সিদ্ধিরগঞ্জ পুল এলাকায় সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন সাখাওয়াত হোসেন। আইভী সাখাওয়াতকে ভাড়াটিয়া প্রার্থী বলা সম্পর্কে তার মন্তব্য জানতে চাইলে এডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল আমাকে নমিনেশন দিয়েছে, নারায়ণগঞ্জের ২৭টি ওয়ার্ডের তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে। অপরদিকে নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগ ২৭টি ওয়ার্ড থেকে ৩ জন প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠিয়েছিল। ওই তালিকায় আইভীর নাম ছিল না। তৃণমূল আইভীকে সমর্থন দেয়নি। কেন্দ্র আইভীকে নারায়ণগঞ্জে নৌকার প্রার্থী হিসেবে চাপিয়ে দিয়েছে। সুতরাং আমি মনে করি নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগ এবং বিএনপি একাকার হয়েছে, ধানের শীষের প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্য।
আইভী ভাড়াটিয়া -জয়নাল আবেদিন ফারুক
একই প্রশ্নের জবাবে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদিন ফারুক বলেন, এত নোংরা কথা ব্যবহার করা আমাদের নেত্রী আমাদের শেখায়নি। আমার মনে হয়, ওনি নোংরা থেকে জন্ম নিয়েছেন। না হলে একটা বৃহত্তম দলের প্রার্থী তাকে ভাড়াটিয়া বলাটা, সে যদি শিক্ষিত ডক্টর হয়ে থাকে, একটা প্রাচীনতম দলের মনোনীত প্রার্থী হয়ে থাকে, তার মতো মহিলা এবং প্রার্থী হয়ে এ ধরনের কথা বলায় তীব্র প্রতিবাদ জানাই। বরঞ্চ আমি বলতে চাই, যাকে এখন নৌকাটা হাতে তুল দিয়েছেন আওয়ামীলীগ, প্রকৃত পক্ষে ওনিই ভাড়াটিয়া, ওনি নমিনেশন পাননি। ওনাকে প্রধানমন্ত্রী নমিনেশন দিয়েছেন আওয়ামীলীগ ওনাকে নমিনেশন দেননি।
৭ ও ৫ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ
গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ৭ নং ওয়ার্ডের কদমতলী এলাকায়  ও বিকেলে ৫ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেছেন নির্বাহী কমিটির সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব, নাজিমউদ্দিন আলম, নির্র্বাচনের সিদ্ধিরগঞ্জের প্রধান সমন্বয়কারী বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম সিকদার, হেলেন জেরিন খান, যুবদলের মামুন হাসান, সুসান্ত বিপ্লব, কৃষক দলের সাজাহান স¤্রাট, জাহাঙ্গীর আলম, মনির মিয়া, ইমাম হোসেন, মিজানুর রহমানসহ কেন্দ্রিয় ও স্থানীয় নেতারা।
৭ নং ওয়ার্ডে বিকালে গণসংযোগ করেছেন থানা বিএনপি’র সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মোশারফ হোসেনসহ স্থানীয় নেতারা।
নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম বলেছেন, এই অনির্বাচিত ফ্যাসিস্ট সরকার জনগণের উপর যেভাবে জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসেছে তার বিরুদ্ধে আমরা সংগ্রাম করছি। নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনে জনগণ ধানের শীষে ভোট দিয়ে বিজয়ী করে আওয়ামী দুঃশাসন থেকে মুক্তির আন্দোলন এগিয়ে নিয়ে যাবে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের আপোষহীন নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আহ্বানে সাড়া দিয়ে নারায়ণগঞ্জের মানুষ ধানের শীষে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে আগামী ২২ ডিসেম্বর।
নির্বাচনি আচরণ বিধি ভঙ্গের অভিযোগ
 ১৩নং ওয়ার্ডের গত ২ বার নির্বাচিত কাউন্সিলর। এবারো আমি ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত অংশ নিচ্ছি। আমি বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত বিধায় আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রবিউল হোসেন আমার কর্মী সমর্থকদের নিয়মিত হুমকি ধমকি দিচ্ছে।
এছাড়াও রবিউল হোসেনের কর্মীরা ১৩নং ওয়ার্ডে আমলাপাড়া, জামতলা, গলাচিপা, মাসদাইর সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আমার পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলছে এবং বাড়ী বাড়ী লাগানো আমার ষ্টিকার গুলো ছিঁড়ে ফেলছে ও আমার ষ্টিকারের উপর তার নিজের ষ্টিকার লাগাচ্ছে। ছবি সহ দেওয়া হইলো।অতএব, জনাব উল্লেখিত বিষয়গুলো দৃষ্টিপাত করার জন্য অনুরোধ করছি।



 

Show all comments
  • আবুছাদেক ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ৩:০৮ পিএম says : 4
    নির্বাচন কমিশন কি শাদিন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নাসিক নির্বাচন

২৩ ডিসেম্বর, ২০১৬
২২ ডিসেম্বর, ২০১৬

আরও
আরও পড়ুন