Inqilab Logo

সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯, ১৪ রজব ১৪৪৪ হিজিরী
শিরোনাম

ডেন্টাল কলেজের প্রভাষক যখন ছাত্রলীগ নেতা!

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ নভেম্বর, ২০২২, ৪:৪৭ পিএম

শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠন, জাতির মুক্তির স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া, জীবন ও যৌবনের উত্তাপে শুদ্ধ সংগঠন, সোনার বাংলা বিনির্মাণের কর্মী গড়ার পাঠশালা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। সাম্প্রতিক সময়ে নানান অভিযোগে অভিযুক্ত রংপুর মেডিকেল কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সেক্রেটারি রাকিবুল হাসান তারেকের বিরুদ্ধে। গত ৩১ মে ২০২১ ইং মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বিলুপ্ত করে বিকালে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে রংপুর মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের ৯ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

কমিটিতে সানাউল হুদা রিয়াদকে সভাপতি ও রাকিবুল হাসান তারেককে সাধারণ সম্পাদক করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ১ বছরের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়। এক বছর শেষ হলেও বিভিন্ন তালবাহানা করে কমিটি দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ উঠেছে বর্তমান কমিটির বিরুদ্ধে । উক্ত কমিটি দেওয়ার পর পর রংপুরের তৃনমূল ছাত্রলীগ কমিটি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে ছিলেন কমিটির বর্তমান সেক্রেটারি রাকিবুল হাসান তারেক কে নিয়ে । চিহ্নিত ছাত্রশিবির কর্মীকে ছাত্রলীগ এর এতোবড় পোস্ট দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পদ প্রত্যাশী ও ত্যাগী নেতা-কর্মীরা। বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জানান, কোনও ধরনের পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই ছাত্রশিবিরে কর্মীকে ছাত্রলীগে পদ নেওয়া হয়েছে তৎকালীন বিষয়টি জানাজানি হলে রাজনৈতিক মহল এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা ও নিন্দার ঝড় উঠে।

বর্তমান সেক্রেটারি রাকিবুল হাসান তারেক চট্টগ্রামের সরকারি মহসিন কলেজে ছাত্রাবাসগুলো যখন শিবিরের দখলে ছিলো,তখন চট্টগ্রামের শিবির অধ্যুষিত সরকারি মহসিন কলেজে ২০১৩-১৪ সেশনের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলো,শিবিরের সাথে তার সক্রিয় সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া যায় তার ব্যক্তিগত ফেসইবুকের ওয়াল থেকে। শিবির মুক্তকরণের পূর্বে (২০১৩-১৫) সালে চট্টগ্রাম মহসিন কলেজ ছাত্রাবাসে শিবিরের কর্মী হিসেবে সক্রিয় ছিলো বলে অভিযোগ উঠে।

তারেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে রংপুর মেডিকেলে ছাত্রলীগের সেক্রেটারি হয়েই ছাত্রশিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়নে ছাত্রাবাসে শিবিরের পুনর্বাসন শুরু করে যার প্রমাণ এখনো পাওয়া যাবে মেডিকেলের ডাঃ পিন্নু ও ডাঃ মুক্তা ছাত্রাবাসে। জনপ্রতি ১০ হাজার করে টাকা নিয়ে সে প্রায় ৩৪ জন শিবির সদস্যকে হোস্টেলে রুমে তুলেছে। পরে বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় সে নতুন করে শিবির তুলতে পারেনি।

একাদিক সূত্রে অভিযোগে উঠে এসেছে তারেক স্থায়ী ঠিকানা কক্সবাজারের চকরিয়ায়। পরিচয় গোপন করে তারেক রংপুরের ঠিকানায় করেছেন ভূয়া জাতীয় পত্র। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুয়ায়ী ছাত্রলীগে পদ থাকাকালীন কোনো চাকুরী করার সুযোগ নেই। তারেক গঠনতন্ত্রের তোয়াক্কা না করেই গত ১৯ অক্টোবর ২২ ইং রংপুর মেডিকেল কলেজের সাবেক শিবির কর্মী সার্বিক সহযোগিতায় তারেক রংপুর ডেন্টাল কলেজের এনাটমি বিভাগের প্রভাষক হিসেবে চাকুরী করছেন দেদারছে,নিচ্ছেন মোটা অংকের সেলারী, কর্মস্থলে প্রতিদিন উপস্থিত থাকার প্রমান ও মিলছে তারেকের নিয়মিত অ্যাটেনডেন্স খাতায়। প্রশ্ন ওঠে ছাত্রলীগের পদ নিয়ে তারেক অন্যত্র চাকুরী করে কিভাবে?

রংপুর মেডিকেলের হেলিপ্যাড ছাত্রাবাস (পূর্বনাম রাষ্ট্রপতি জিয়া ছাত্রাবাস) এর সাবেক ছাত্রদল সভাপতি এবং রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক স্টোর কিপার (২ কোটি টাকার ওষুধ চুরির অভিযোগে যুক্ত) ডাঃ গোলাম রসুল রাখির সাথে তারেকের গভীর সম্পৃক্ততা ও পাওয়া যায়।

সাম্প্রতিক সময়ে গত ১৫ আগস্ট ২২ জাতীয় শোক দিবসে ছাত্রলীগের প্রোগ্রামে ছাত্রলীগ কর্মীদের বাদ দিয়ে সাবেক ছাত্রদলের সভাপতিকে তারেক অতিথি করে। যা মেডিকেলের সাবেক ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দদের নজরে এলে তাদের জোর প্রতিবাদ করে।যার ফলশ্রতিতে ডাঃ রাখিকে রংপুর মেডিকেল হাসপাতাল থেকে অন্যত্র বদলি করা হয়। এই বিষয়টি ও তারেক কেন্দ্রীয় নেতাদের গোপন করে।

দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্বপ্নের পদ্না সেতু ও উদ্বোধন ও বাংলাদেশ আওয়ামিলীগ এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান করার কথা বলে কলেজ শিক্ষার্থী থেকে টাকা উঠালে ও অনুষ্ঠান না করেই পুরো টাকা তারেক তার নিজের পকেটে নিয়েছেন হলে সাধারন শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেছেন।

নাম প্রকাশে অনুচ্ছুক রংপুর মেডিকেল কলেজের একাদিক ছাত্রলীগ নেতা জানান,অভিনব কায়দায় তারেক রংপুর মেডিকেলের হেলিপ্যাড ছাত্রাবাস কমিটি করার সময় সে অর্থের বিনিময়ে সম্পূর্ণ নিয়ম বহির্ভূত ভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্যের নাম ভাঙ্গিয়ে মোটা অংকের টাকা নিয়ে যাকে পদ পাইয়ে দিয়েছেন ডাঃ মুক্তা ছাত্রাবাসে বসে পদ পাওয়া নেতার মদের বোতলসহ ছবি সেই রাতেই ভাইরাল হয়ে যায়, যেগুলো নিয়ে সে সময় রংপুর জুড়ে অনেক বিতর্ক ও সমালোচনা হয়।

বর্তমান রংপুর মেডিকেল ছাত্রলীগ কমিটি দেড় বছর শেষ হলেও এখনো পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারি তারেকের উদাসীনতায়। সে কর্মীদের নানান যুক্তি দেখিয়ে কমিটি গঠন করেনা।

বেপরোয়া তারেকের ভাষ্যমতে তার মাথার উপর অনেক শক্তিশালী হাত আছে। এজন্য সে ১ বছরেরও বেশি সময় ধরে ইন্টার্ন করছে হাসপাতালে, ইন্টার্ন পরিষদের সভাপতি। অথচ তার এই ১ বছরের অধিক সময়টার পুরোটাই সে মেডিসিন ইউনিটে দায়িত্ব পালন করেছে।এই ইউনিট থেকে সে বাহিরের ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সাথে টেস্ট বাণিজ্য করে, গরীব রোগীদের নানান ভাবে হররানি করে অর্থ আদায় করে। হাসপাতালে রয়েছে তারেকের ৩০ সদস্যের এক কর্মচারী সিন্ডিকেট, যারা ওয়ার্ড বয় হিসেবে কিংবা ট্রলি ঠেলার নাম করে প্রতি রোগীর কাছ থেকে ২০০ থেকে ৫০০ টাকা আদায় করে।

১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসে তারেক ছাত্রদলের যে নেতাকে অতিথি করেছেন সেই নেতাই আবার সরকারী ২ কোটি টাকার ওষুধ চুরির সাথে যুক্ত ছিলেন। রাকিবুল হাসান তারেক ছাত্রলীগের লেবাসে ছাত্রশিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়নে কাজ করছে বলে জানান রংপুরের তৃণমূল ছাত্রলীগ। তৃণমূল ছাত্রলীগের একটাই দাবী ছাত্রশিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়নকারী, পদব্যবসায়ী, মাদকব্যবসায়ী ও চাঁদাবাজকে দ্রুত ছাত্রলীগ থেকে অপসারন করা। এই বিষয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের কাছে জানতে তার মুঠোফোনে একাদিক বার কল দিলেও তিনি কল রিসিভ করেন নি।

অভিযুক্ত রাকিবুল হাসান তারেকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমি তো ভাই সংগঠন করি মিছিল-মিটিং করি আমার তো খরচ আছে তা নাহলে আমি সংগঠন চালাবো কি করে। চাকুরীর করেন বিষয় টি জানতে চাইলে তারেক জানান, আমি একজন প্যাগনেন্ট মহিলার অনুপস্থিতে ছয়মাস যাবত চাকুরী করছি। দুই জেলার জাতীয় পরিচয় পত্র নিয়ে তারেক এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান। আমি আট বছর ধরে রংপুর থাকি। আমিতো বাংলাদেশের নাগরিক, আমি তো রোহিঙ্গা নই যে আমার এনআইডি সংসোধন করা যাবে না। নাগরিক হওয়া যাবে না।

তিনি আরো জানান, আমি রংপুরে এনআইডি ঠিক করতে দিয়েছি কক্সবাজার নাম দিয়ে,তারা ভূল করলে আমার কি দোষ। দেড় বছর আগে নয় সদস্য বিশিষ্ট রংপুর মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগ কমিটি হলেও গেল দেড় বছরে রংপুর মেডিকেল কলেজের পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারেনি কেনো জানতে চাইলে তারেক জানান, পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে সেন্ট্রাল কমিটির সাথে কথা বলেছি এখানে কিছু কম্প্লিকেশন আছে যার জন্য দেড় বছরে ও রংপুর মেডিকেল কলেজের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিতে পারিনি। সেন্ট্রাল কমিটির সাথে কথা বলে আমরা দ্রুত কমিটি দিয়ে দিবো আর নতুন কমিটি আসলে তাদের ও পূর্ণাঙ্গ কমিটি করে দিবো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ