Inqilab Logo

শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজিরী
শিরোনাম

তৈরি হচ্ছে দ্বিতীয় এক ‘সূর্য’! কবে চালু হবে?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ নভেম্বর, ২০২২, ৬:৩২ পিএম

সূর্য নিভে যাবে-- অনেকদিন ধরেই এরকম শোনা যাচ্ছে। এদিকে সৌরশক্তিই বেঁচে থাকার শক্তি, বেঁচে থাকার রসদ। তাই মানুষ এক কৃত্রিম সূর্য তৈরির সিদ্ধাত নিয়েছিল। বহু দেশ এই প্রকল্পে যোগ দেয়। সেই প্রকল্প এখন তার চূড়ান্ত পর্যায়ে।

ফ্রান্সে ৩৫টি দেশ মিলে একটি ‘কৃত্রিম সূর্য’ তৈরির কাজ করছে। ‘কৃত্রিম সূর্য’র নাম ইন্টারন্যাশনাল থার্মোনিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর বা আইটিইআর। একে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ‘কৃত্রিম সূর্য’ বলা হচ্ছে। এ কাজে বড় অগ্রগতি হয়েছে। চীন বলেছে, তারা আইটিইআরের প্রধান একটি উপাদান তৈরির কাজ ইতিমধ্যেই শেষ করেছে।

আইটিইআর নিউক্লিয়ার ফিউশন নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক মেগা প্রকল্প। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, চীন, ভারত, রাশিয়া, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সুইজারল্যান্ড ও ইইউয়ের ২৭টি দেশ এই প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত। দেশগুলির আশা, সূর্যের শক্তি উৎপন্নের প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এর মাধ্যমে পরিবেশবান্ধব বিপুল শক্তি উৎপাদন সম্ভব হবে।

বিজ্ঞানী ও গবেষকেরা মূলত নিউক্লিয়ার ফিউশন ব্যবহার করে এই কাজটি করছেন। এই প্রক্রিয়ায় নিউক্লীয় বিক্রিয়া ঘটিয়ে একাধিক হালকা নিউক্লিয়াস সংযোজন করে তুলনামূলক ভারী নিউক্লিয়াস গঠিত করা হয়। পাশাপাশি এই প্রক্রিয়ায় সৃষ্টি হয় বিপুল শক্তি। মূলত সূর্যের নিউক্লিয়ার ফিউশনের প্রক্রিয়াই অনুসরণ করছেন বিজ্ঞানীরা।

কৃত্রিম এই সূর্য তৈরির খরচের প্রায় ৪৫ শতাংশ বহন করছে ইউরোপ। আর প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত অন্য দেশগুলির প্রতিটি ৯ শতাংশ করে ব্যয় বহন করছে। প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত প্রতিটি দেশ আইটিইআর প্রকল্পের জন্য বিভিন্ন উপাদান ও কাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে কৃত্রিম এই সূর্য তৈরিতে নিজের নিজের অবদান রেখে চলেছে।

চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম সম্প্রতি ঘোষণা করেছিল, কৃত্রিম সূর্যের এক প্রধান উপাদান ‘এনহ্যান্সড হিট ফ্লাক্স’। যার একটি ‘প্রোটোটাইপ’ তৈরি করছে চীন। সেই কাজও তারা প্রায় শেষ করে এনেছে। নকশার জন্য বিজ্ঞানী ও গবেষকেরা যে তালিকা দিয়েছিলেন, তা মেনেই এই প্রোটোটাইপটি তৈরি করা হয়েছে। সূত্র: গ্লোবাল টাইমস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ