Inqilab Logo

সোমবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯, ০৭ রজব ১৪৪৪ হিজিরী
শিরোনাম

ইউক্রেনের আট কমান্ড পোস্ট ধ্বংস, ৩১০ সেনা নিহত

ডোনেৎস্কের দুটি এলাকা মুক্ত চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু হচ্ছে ইউক্রেনীয় সেনাদের জাপোরোজিয়ায় ৭০০ কমান্ডো পাঠিয়েছে কিয়েভ শীতের জন্য সেনাকে ‘প্রস্তুত’ থাকার নির্দেশ জেলেনস্কির

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ সোমবার জানিয়েছেন, ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযানের সময় রাশিয়ার যুদ্ধ বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র এবং আর্টিলারি সৈন্যরা গত দিনে ইউক্রেনের আটটি সেনা কমান্ড পোস্ট ধ্বংস করেছে। পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় যুদ্ধে ইউক্রেনের ৩১০ জন সেনা নিহত হয়েছে। এদিকে, ডোনেৎস্কের দুটি এলাকা মুক্ত করেছে মিত্র বাহিনী।

রাশিয়ান বাহিনী কুপিয়ানস্ক এলাকায় লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর আক্রমণ প্রতিহত করেছে, গত দিনে ৫০ জনেরও বেশি জঙ্গিকে নির্মূল করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। ‘কুপিয়ানস্কের দিকে, শত্রুর দুটি কোম্পানির কৌশলগত দল লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের কুজেমোভকার বসতি এলাকায় রাশিয়ান অবস্থানগুলিতে আক্রমণ করার চেষ্টা করেছিল। ফায়ারপাওয়ার দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার ফলে, আক্রমণগুলি প্রতিহত করা হয়েছিল এবং ইউক্রেনীয় সেনা ইউনিটগুলি খারকভ অঞ্চলের বেরেস্টোভয়ে সম্প্রদায়ের কাছে প্রাথমিক অবস্থানে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল,’ মুখপাত্র বলেছেন। যুদ্ধের সময়, রাশিয়ান বাহিনী ৫০ জনেরও বেশি ইউক্রেনীয় সেনা, একটি ট্যাঙ্ক, দুটি সাঁজোয়া কর্মী বাহক এবং একটি পিকআপ ট্রাক ধ্বংস করেছে, জেনারেল নির্দিষ্ট করেছেন।

রাশিয়ান আর্টিলারি ক্র্যাসনি লিমান এলাকায় লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক আক্রমণের জন্য অগ্রসর হওয়া দুটি ইউক্রেনীয় কোম্পানির কৌশলগত গোষ্ঠীর ক্ষতি করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। রুশ বাহিনী যুদ্ধের সময় শত্রু জনশক্তি এবং সামরিক সরঞ্জাম নির্মূল করেছে, জেনারেল বলেছেন। ‘ফায়ারপাওয়ার দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার ফলে, শত্রু ইউনিটগুলি ছড়িয়ে পড়েছিল। ৩০ জনেরওও বেশি ইউক্রেনীয় সৈন্য, দুটি সাঁজোয়া যান এবং তিনটি পিকআপ ট্রাক ধ্বংস হয়েছিল,’ কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। জেনারেল বলেছেন, ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের আর্টিওমভস্ক এলাকায় পাল্টা আক্রমণের ব্যর্থ প্রচেষ্টায় ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী প্রায় ৮০ জন নিহত হয়েছে। আর্টিওমভস্ক এলাকায়, শত্রুর চারটি কোম্পানির কৌশলগত গোষ্ঠী রাশিয়ান সৈন্যদের অগ্রগতি ঠেকাতে ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের বেলোগোরোভকা, বাখমুটস্কয়, ইয়াকভলেভকা এবং ইভানগ্রাদের বসতিগুলির এলাকায় পাল্টা আক্রমণ করার চেষ্টা করেছিল, মুখপাত্র বলেছেন। ‘সম্মিলিত ফায়ারপাওয়ার দ্বারা সৃষ্ট ক্ষয়ক্ষতির ফলে, ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর ইউনিটগুলিকে থামিয়ে দেয়া হয়েছিল এবং বিক্ষিপ্ত করা হয়েছিল। ইউক্রেনের ৮০ জন সৈন্য, একটি ট্যাঙ্ক, তিনটি যুদ্ধের সাঁজোয়া যান, দুটি পিকআপ ট্রাক এবং একটি মোটর গাড়ি ধ্বংস করা হয়েছিল,’ জেনারেল উল্লেখ করেছেন।

রাশিয়ান বাহিনী গত দিনে ৫০ জনেরও বেশি সেনাকে হত্যা করে দক্ষিণ ডোনেৎস্ক এলাকায় ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর দুটি পাল্টা আক্রমণ ব্যর্থ করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। তিনি জানান, রাশিয়ান এরোস্পেস ফোর্স ডিনেপ্রোপেট্রোভস্ক অঞ্চলে সংগৃহীত ইউক্রেনীয় জনশক্তি এবং সামরিক সরঞ্জামের বিরুদ্ধে নির্ভুল অস্ত্র দ্বারা একটি স্ট্রাইক সরবরাহ করেছে, যার ফলে ১০০ জনেরও বেশি সেনা নিহত হয়েছে। রাশিয়ান বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী গত দিনে খেরসন অঞ্চলে দুটি হার্ম রাডার বিরোধী ক্ষেপণাস্ত্র বাধা দিয়েছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছে।

সব মিলিয়ে, ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী ৩৩৩টি ইউক্রেনীয় যুদ্ধবিমান, ১৭৭টি হেলিকপ্টার, ২,৫৭২টি মনুষ্যবিহীন আকাশযান, ৩৯০টি সারফেস টু এয়ার মিসাইল সিস্টেম, ৬,৮৬৬টি ট্যাংক ও যুদ্ধের অন্যান্য সাঁজোয়া যান, ৯০৪টি মাল্টিপল রকেট লঞ্চার, ৩,৬২৪ ফিল্ড আর্টিলারি গান ও মর্টার এবং ৭,৩৯৫টি বিশেষ সামরিক মোটর যান ধ্বংস করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন।

ডোনেৎস্কের দুটি এলাকা মুক্ত করেছে মিত্র বাহিনী : মিত্র বাহিনী ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের (ডিপিআর) ত্রাভনিয়া এবং আন্দ্রেয়েভকা এলাকা মুক্ত করেছে। গতকাল ডিপিআর আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা সদর দফতর এ তথ্য জানিয়েছে। ‘২৯ নভেম্বর, ২০২২-এ, ডিপিআর এবং এলপিআরের বাহিনী রাশিয়ান সেনাবাহিনীর আর্টিলারি সহায়তায় ত্রাভনিয়া এবং আন্দ্রেয়েভকাকে মুক্ত করেছে,’ সদর দফতর তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে রিপোর্ট করেছে।

এর আগে গতকাল, ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়া বলেছিল যে, গত দিনে প্রজাতন্ত্রের বাহিনী এবং রাশিয়ান সেনাবাহিনীর সাথে সংঘর্ষে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর ৬০ জনেরও বেশি সদস্য নিহত হয়েছে। ‘ডিপিআর এবং রাশিয়ান সৈন্যদের যৌথ বাহিনী নিম্নলিখিত শত্রুর অস্ত্র ও সরঞ্জামগুলি নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে: একটি সোভিয়েত স্ব-চালিত হাউইটজার ২এস১ গভোজডিকা, চারটি ১২২-মিমি হাউইটজার ডি-৩০, দুটি টি-৬৪বি ট্যাঙ্ক, নয়টি বর্ম সরঞ্জাম ও বিশেষ মোটর গাড়ি এবং তিনটি শত্রু ড্রোন ভূপাতিত করা হয়েছে। শত্রুর জনবলের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৬০ জনের বেশি,’ বিভাগটি তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে একটি বার্তায় বলেছে।

চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু হচ্ছে ইউক্রেনীয় সেনাদের : লুহানস্কের কুপিয়ানস্ক এবং ক্র্যাসনি লিমান শহরের কাছাকাছি অবস্থিত ইউনিটগুলিতে আহত ইউক্রেনীয় সেনাদের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যা তীব্রভাবে বেড়েছে। লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকস (এলপিআর) পিপলস মিলিশিয়ার কর্মকর্তা আন্দ্রে মারোচকো গতকাল এ তথ্য জানিয়েছেন।
‘কুপিয়ানস্ক এবং ক্রাসনি লিমানের কাছে অবস্থানরত ইউক্রেনীয় সশস্ত্র ইউনিট থেকে আহত সেনাদের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে,’ তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘কারণগুলি হল আহতরা সময়মতো চিকিৎসা সহায়তা পাচ্ছে না, পর্যাপ্ত বিশেষ যানবাহন এবং হাসপাতালের বিছানা নেই,’ মারোচকো ব্যাখ্যা করেছিলেন। সোমবার রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে যে, কুপিয়ানস্কের দিকে, ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনী কুজেমোভকার এলপিআর সেটেলমেন্টের দিকে আক্রমণাত্মক অভিযান চালানোর চেষ্টা করেছিল, যখন ক্র্যাসনি লিমানের দিকে, রাশিয়ান আর্টিলারি ইউনিট দুটি ইউক্রেনীয় কোম্পানির কৌশলগত গ্রুপকে পরাজিত করেছিল।

জাপোরোজিয়ায় ৭০০ কমান্ডো পাঠিয়েছে কিয়েভ : সোমবার সোলোভিয়েভ লাইভ টিভি চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচারে ‘উই আর টুগেদার উইথ রাশিয়া’ আন্দোলনের চেয়ারম্যান ভøাদিমির রোগভ বলেছেন, জাপোরোজিয়া অঞ্চলের কিয়েভ-নিয়ন্ত্রিত অংশে বর্তমানে ৭০০ জনেরও বেশি ইউক্রেনীয় কমান্ডো অবস্থান করছে। ‘ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সরকারের নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে ইউক্রেনের বিশেষ অভিযান বাহিনীর ৭০০ জনেরও বেশি সেনাকে জাপোরোজিয়া অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে। এরা ডিনিপার অতিক্রম করতে, আক্রমণকারী বাহিনী অবতরণ করতে এবং বড় শিল্প স্থাপনা দখল করার জন্য প্রশিক্ষিত,’ তিনি বলেন।

যাইহোক, রাশিয়ার হামলা ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর এই পরিকল্পনাগুলোকে ব্যাহত করে ‘অস্ত্র, গোলাবারুদ ডিপো, সামরিক সরঞ্জাম এবং অন্যান্য যুদ্ধাস্ত্র ধ্বংস করে তাদেরকে ক্রমাগত পঙ্গু করে দিচ্ছে’, আঞ্চলিক কর্মকর্তা বলেছেন। রোগভ এর আগে বলেছিলেন যে, ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী জাপোরোজিয়া অঞ্চলে সংঘর্ষ রেখা বরাবর ওরেখভ এবং গুলিয়ায়পোল শহরের এলাকায় তার যুদ্ধদল তৈরি করে চলেছে। তিনি বলেছিলেন যে, জাপোরোজিয়ে শহরে ইউক্রেনীয় সামরিক হার্ডওয়্যারগুলোর আগমন অব্যাহত রয়েছে যেখান থেকে সেগুলো বৃহত্তর পরিমাণে ওরেখভ ও গুলিয়ায়পোল এলাকায় এবং কমেন্সকোয়ে গ্রামে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।’

শীতের জন্য সেনাকে ‘প্রস্তুত’ থাকার নির্দেশ জেলেনস্কির : কী হতে চলেছে শীতের মরশুমে? যুদ্ধক্ষেত্রে কি আসতে চলেছে বড়সড় কোনও মোড়? এসব প্রশ্ন উসকে দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। সোমবার দেশের ফৌজকে ‘প্রস্তুত’ থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তারপর থেকেই তুঙ্গে জল্পনা।
রয়র্টাস সূ্ত্ের খবর, শীতের মরসুমে নতুন করে বিধ্বংসী হামলা চালাতে পারে রাশিয়া বলে আশঙ্কা করছেন ভলোদিমির জেলেনস্কি। এই পরিস্থিতিতে সোমবার তিনি দেশবাসীর উদ্দেশে এক বক্তৃতায় বলেন, ‘বিদ্যুতের সরবরাহ কম থাকায় আমাদের সকলকে কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।’ দেশবাসীর উদ্দেশে এক ভিডিও বার্তায় কমেডিয়ান থেকে রাষ্ট্রনায়ক হয়ে উঠা জেলেনস্কি আরও বলেন, ‘আমরা জানি ওই সন্ত্রাসবাদীরা (রাশিয়া) লতুন হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। যতদিন ওদের মিসাইল শেষ না হচ্ছে ওরা হামলা চালিয়ে যাবে। তবে আমাদের বাহিনী তৈরি আছে। গোটা দেশ তৈরি।’

বিশ্লেষকদের মতে, এই যুদ্ধে রাশিয়ার অন্যতম অস্ত্র হচ্ছে শীত। এখন কিয়েভে তাপমাত্রা শূন্যের নিচে। ফলে ঘর গরম রাখতে ও পানির পাইপগুলিকে সচল রাখতে বিদ্যুতের প্রয়োজন। সেই দুর্বল জায়গাতেই আঘাত করছে রাশিয়া। ফলে ইউক্রেনের প্রায় এক কোটি বাসিন্দা বিদ্যুৎ সঙ্কটের মুখে পড়েছেন। এভাবে জনতার মনোবল ভাঙতে চাইছে পুতিন বাহিনী। শুধু তাই নয়, ঠান্ডায় ইউক্রেনীয় বাহিনীকে ঘিরে ফেলার একটি পরিকল্পনাও করছে রুশ সেনা। নতুন করে সামরিক অভিযান নিয়ে জেলেনস্কিদের সতর্ক করে অনেকেই বলছে, ঠান্ডার জেরেই নেপোলিয়নকে রাশিয়ার সঙ্গে লড়াই হারতে হয়েছিল। একইভাবে ‘জেনারেল উইন্টার’-এর দাপটে বিপর্যস্ত হয়েছিল নাৎসি বাহিনী। তাই শীতের মরশুমে অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হবে।

রাশিয়ার এই কৌশল বুঝে গত সপ্তাহে জেলেনস্কি জানিয়েছিলেন, দেশ জুড়ে বিশেষ আশ্রয় শিবির খোলা হবে। সেখানে বিদ্যুৎ থাকবে, ঘর গরম রাখার ব্যবস্থা থাকবে, পানি, ইন্টারনেট, মোবাইল নেটওয়ার্ক, ওষুধ, বিনামূল্যে যন্ত্রপাতি চার্জ দেয়ার ব্যবস্থা থাকবে। সেই মতো আমেরিকাণ্ডসহ পশ্চিমী দেশগুলির সহায়তায় আশ্রয়শিবির খোলার কাজও শুরু হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত ইউক্রেন সরকার কত জনের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করতে পারবে তা নিয়ে সন্দিহান পশ্চিমা দুনিয়া। এদিকে, সোমবার জেলেনস্কির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন বাল্টিক ও নর্ডিক দেশগুলির বেশ কয়েকজন মন্ত্রী। সূত্র : তাস, রয়টার্স, বিবিসি নিউজ, আল-জাজিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ