Inqilab Logo

শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ০৫ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

প্রশ্ন : নামাজরত অবস্থায় যদি কারো পিছনের রাস্তা দিয়ে বায়ু বের হয়ে যায়, আর যদি সে সংকোচ করে নামাজ থেকে বের না হয়ে ওই অবস্থাতেই রুকু সিজদা করে নামাজ শেষ করে, তাহলে কি সে কাফির হয়ে যাবে ?
উত্তর : সে অবস্থায় নামাজ থেকে বের হয়ে অজু সেরে পুনরায় নামাজে যোগ দেওয়াই নিয়ম। কালচার ডেভেলাপ না করায়, আমাদের সমাজে এ স্বাভাবিক বিষয়টিকে মানুষ খারাপ চোখে দেখে। এখানে মানুষের পরোয়া না করে, শরীয়তের বিধান পালন করাই উচিত। তবে, কেউ যদি লজ্জাবশত অজু ছাড়াই নামাজ অভিনয় করে থাকে এবং পরে অজু করে নামাজ দোহরায়, তাহলে সে কাফের হবে না। নিয়ম ভাঙ্গার জন্য গুনাহগার হবে।
প্রশ্ন : সরকারি চাকরিজীবিদের যে জেনারেল প্রভিডেন্ট ফান্ড (জিপিএফ) আছে সেখানে টাকা রাখলে সুদ হবে কি না?
উত্তর : সরকারি চাকরিজীবিদের জন্য সরকারের দেওয়া সব টাকা পয়সা প্রথমবার নেওয়া জায়েজ। কিন্তু যে কোনো ফান্ডে, যেখানে সুদ দেওয়া হয়, তা জিপিএফ হোক বা অন্যকিছু সেখানে নিজের টাকাগুলো রেখে সুদ বা লাভ উঠানো জায়েজ নেই। এ টাকা তুলে ফেললে হয় নিজে খরচ করতে হবে কিংবা কোনো হালাল জায়গায় বিনিয়োগ করতে হবে। সুদওয়ালা কোনো ফান্ড বা ব্যবসায় লাগিয়ে এর লাভ খাওয়া হালাল হবে না।
উত্তর : হিসাব নিকাশ হাসরের দিন হবে। সর্বপ্রথম হিসাব হবে নামাজের। যার নামাজের হিসাব ঠিক থাকবে। তার বাকি সব হিসাব সহজ হবে। মৃত্যুর পর কবরে রাখা কিংবা জনসমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর তার কবর জগত শুরু হয়। মৃতকে লোকেরা ছেড়ে চলে গেলে শুরু হয় প্রশ্ন উত্তর পর্ব। দুই ফেরেশতা এসে মৃত ব্যক্তিকে তিনটি প্রশ্ন করে। জবাব দিতে পারলে কেয়ামত পর্যন্ত সুখে নিদ্রায় ঘুম পাড়িয়ে দেওয়া হয়। জবাব দিতে না পারলে শুরু হয় কবর কিংবা কবরজগতের আজাব। এ বিষয়টি কেয়ামত পর্যন্ত চলে। হাশরের মাঠে পুনরুত্থানের পর হিসাব নিকাশ, ওজন, পুলসিরাত ইত্যাদি পর্ব শেষে হয় জান্নাত না প্রশ্ন : আমার ভাই আমাকে পড়ালেখা বাবদ এবং অন্যন্য খরচ বাবদ নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিয়ে থাকেন, আমি যদি এই টাকা থেকে দান-সদকাহ করি ? এর সওয়াব কি আমি পাবো ?
উত্তর : এ টাকা যদি আপনাকে নিদাবী করে দিয়ে দেওয়া হয়, তাহলে এ থেকে দান-সদকাহ করলে আপনি সওয়াব পাবেন। যদি শুধু খরচ করার জন্য দেওয়া হয় বাকী টাকা ফেরত দিতে বলা হয়, তাহলে খরচ কম করে আপনি দান-সদকাহ করতে পারবেন। উদ্বৃত্ত থেকে দান করতে পারবেন না। আপনার ভাইয়ের অনুমতি নিয়ে করলে সওয়াব তিনি পাবেন। বিষয়টি এখানে মালিকানার।
ব্যবহারের নয়। আর যদি আপনার টাকাই তিনি আপনাকে দিয়ে থাকেন, তাহলে এর সব সুফল ও দায় আপনারই। প্রশ্ন থেকে মনে হয়, বড় ভাই নিজের টাকায় আপনাকে পড়ান। এখানে প্রয়োজন অতিরিক্ত টাকাগুলো আপনার ভাইয়ের। যতক্ষণনা তিনি আপনাকে সব টাকা ব্যয়ের অনুমতি দেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন