Inqilab Logo

বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০৯ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

প্রথম দেখায় জয় পেতে মরিয়া নেদারল্যান্ডস-যুক্তরাষ্ট্র

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম


কাতার বিশ্বকাপের নক আউট পর্বের প্রথম ম্যাচে আজ মুখোমুখি হচ্ছে ‘এ’ চ্যাম্পিয়ন নেদারল্যান্ডস ও ‘বি’ গ্রুপ রানার্সআপ যুক্তরাষ্ট্র। দোহার খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হবে ম্যাচটি। এবারই প্রথম বিশ্বকাপে একে অন্যের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে দু’দল। তাই প্রথম দেখা স্মরণীয় করে রাখতে জয় পেতে মরিয়া দু’দলই।
বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে তিন ম্যাচে দুই জয় ও এক ড্রতে ৭ পয়েন্ট পেয়ে সেরা হয়েই শেষ ষোলতে জায়গা পায় ডাচরা। সেনেগালের বিপক্ষে ২-০ গোলের জয় দিয়ে গত ২১ নভেম্বর বিশ্বকাপ শুরু করেছিল তারা। দ্বিতীয় ম্যাচে ইকুয়েডরের বিপক্ষে ১-১ ব্যবধানে ড্র করে নক আউট পর্বের পথে এগিয়ে যায় নেদারল্যান্ডস। আর শেষ ম্যাচে স্বাগতিক কাতারকে ২-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় দলটি। ২০১৮ রাশিয়া বিশ^কাপের মূল পর্বে খেলতে ব্যর্থ হয়েছিল তারা। কিন্তু আগের দুই আসরে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান নিয়ে বিশ্বকাপ শেষ করে ডাচরা। এবার তাদের প্রত্যাশাটা আরেকটু বেশি। তাই শেষ ষোলতে খেলার আগে কোন সমীকরণের দিকে না তাকিয়ে আগ্রাসী মনোভাব নিয়েই মাঠে নামতে চায় নেদারল্যান্ডস।
গ্রুপ পর্বে খেলা সেরাদের নিয়ে শেষ ষোলতে আক্রমণ ভাগ সাজাবেন ডাচ কোচ লুইস ফন খাল। রক্ষণে কিছু পরিবর্তন আনতে পারেন তিনি। রক্ষণভাগে মাথিস ডি লিটের সঙ্গে জুরিয়ন টিম্বারকে দেখা যেতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে। তবে মধ্যমাঠে টেয়ান কুপমেইনাসের্র স্থানে স্টিভেন বার্গুইস ফিরতে পারেন। ইতোমধ্যেই দুই গোল করা গাকপোকে মেমফিসকে আক্রমণভাগে দেখা যাবে স্টিভেন বার্গুইনের সঙ্গে।
আট বছর পর বিশ্ব সেরার মঞ্চে ফিরে নিজেদের প্রমাণ করতে চান ফন। শেষ ষোলতে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে তিনি বলেন,‘আমরা ইতোমধ্যে নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করেছি। এখন লক্ষ্য শেষ ষোল’র গণ্ডি পেরুনো। আশাকরি ছেলেরা নিজেদের সেরাটা মাঠে ঢেলে দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে জয় তুলে নেবে। নক আউট পর্বের আগে দলের সবাই সুস্থ থেকে নিজেদের প্রমাণ করার অপেক্ষায় আছে।’
অন্যদিকে ‘বি’ গ্রুপে ওয়েলসের বিপক্ষে ১-১ ব্যবধানের ড্র দিয়ে গত ২১ নভেম্বর কাতার বিশ্বকাপ শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। পরের ম্যাচে শক্তিশালী ইংল্যান্ডকে গোলশূন্য রুখে দিয়ে শেষ ষোল’র আশা বাঁচিয়ে রাখে তারা। আর গ্রুপের শেষ ম্যাচে এশিয়ার দল ইরানকে ১-০ গোলে হারিয়ে তিন ম্যাচে ৫ পয়েন্ট পেয়ে গ্রুপের দ্বিতীয় দল হিসেবে নক আউট পর্বে জায়গা পায় যুক্তরাষ্ট্র। এখন তাদের লক্ষ্য নিজেদের সেরা সাফল্য তুলে নেওয়া। ডাচদের হারিয়ে শেষ আটে জায়গা পেতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। সর্বশেষ ২০১৮ বিশ^কাপে খেলার সুযোগ পায়নি দলটি। তবে এবারের আসরে গ্রুপ পর্বে আক্রমণাত্মক ফুটবল উপহার দিয়ে সবার নজর কেড়েছে তারা। শেষ ষোল’র ম্যাচে ডাচদের বিপক্ষে টিমোথি উইয়াহ’রা জ্বলে উঠলে ম্যাচের ভাগ্যে কি ঘটতে পারে তা বলা মুশকিল। যুক্তরাষ্ট্রের কোচ গ্রেগ বারহাল্টার মনে করেন, এবারের আসরে তার দল সেরা ফুটবলই খেলেছে। তারা নক আউট পর্বে ম্যাচ বাই ম্যাচ এগিয়ে যেতে চায়। যুক্তরাষ্ট্রের স্কোয়াডে এবারের আগে বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা আছে কেবল ডিফেন্ডার ডিআন্ড্রে ইয়াডলিনের। এর আগে নিজেদের দুটি বিশ^কাপে যুক্তরাষ্ট্র নক আউট পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছিল। ২০১৪ সালে পর্তুগালের পর গ্রুপে দ্বিতীয় স্থান ও ২০১০ সালে ইংল্যান্ডকে টপকে প্রথম স্থান লাভ করেছিল। এবার কাতারে তাদের প্রত্যাশাটা আরেকটু বেশি। কোচ বারহাল্টার বলেন,‘আমরা শেষ ষোল’র প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে সাফল্য পেয়ে এগিয়ে যেতে চাই। আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য কোয়ার্টার ফাইনাল। আমি আশাবাদী ছেলেরা নিজেদের সেরাটা দিয়েই চেষ্টা করবে।’
এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র ও নেদারল্যান্ডস পাঁচবার মুখোমুখি হয়েছে। যেখানে চারবার জিতেছে ডাচরা। আর একবার যুক্তরাষ্ট্রু। ২০১৫ সালে দুই দলের সর্বশেষ সাক্ষাতে যুক্তরাষ্ট্র জিতেছিল ৪-৩ গোলে।

বিশ্বকাপে প্রথম দেখা তাদের...
আট বছর পর বিশ্ব সেরার মঞ্চে ফেরা নেদারল্যান্ডস ও যুক্তরাষ্ট্র গ্রুপ পর্বের বৈতরণী পেরিয়ে কোয়ার্টার-ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে নামতে যাচ্ছে। এবারই প্রথম বিশ্বকাপে একে অন্যের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে দল দুটি। বাংলাদেশ সময় আজ রা ৯টায় দোহার খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে গড়াবে শেষ ষোলোর ম্যাচটি। তার আগে দেখে নেওয়া যাক দুই দলের কিছু পরিসংখ্যান-
* নেদারল্যান্ডস এখনও পর্যন্ত বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলেছে তিনবার- ১৯৭৪, ১৯৭৮ ও ২০১০। চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি একবারও।
* ডাচরা শেষ ষোলোয় উঠেছে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে। সেনেগাল ও কাতারকে ২-০ গোলে হারানো দলটি ১-১ ড্র করে একুয়েডরের সঙ্গে।
* এক বছর পিছিয়ে গত বছর অনুষ্ঠিত ২০২০ ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ ষোলোয় চেক রিপাবলিকের কাছে হারের পর থেকে টানা ১৮ ম্যাচ অপরাজিত আছে নেদারল্যান্ডস।
* গ্রুপ পর্বে নেদারল্যান্ডসের তিন ম্যাচেই একটি করে গোল করেছেন কোডি হাকপো। দেশটির চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপে টানা তিন ম্যাচে গোলের কীর্তি গড়েছেন তিনি। প্রথম তিন জন হলেন ইয়োহান নিশকেন্স (১৯৭৪), ডেনিস বার্গকাম্প (১৯৯৪) ও ভেসলি স্নেইডার (২০১০)।
* ‘বি’ গ্রুপ থেকে রানার্সআপ হয়ে শেষ ষোলোয় জায়গা করে নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের সঙ্গে ড্র করা দলটি গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে ইরানকে হারায় ১-০ গোলে।
* যুক্তরাষ্ট্রের স্কোয়াডে এবারের আগে বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা আছে কেবল ডিফেন্ডার ডিআন্ড্রে ইয়াডলিনের।
* এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র ও নেদারল্যান্ডস পাঁচবার মুখোমুখি হয়েছে। চার বার জিতেছে ডাচরা। ২০১৫ সালে দুই দলের সবশেষ সাক্ষাতে সালে যুক্তরাষ্ট্র জিতেছিল ৪-৩ গোলে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কাতারবিশ্বকাপ২০২২

২৩ ডিসেম্বর, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন