Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৯ আশ্বিন ১৪২৬, ২৪ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

ভোটের অপেক্ষায় নারায়ণগঞ্জ

| প্রকাশের সময় : ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

তারেক সালমান ও মো. হাফিজুর রহমান মিন্টু : কিছু অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগ এবং আশঙ্কার সুর থাকলেও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন (নাসিক) সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবেই সম্পন্ন হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রতিদ্বন্দ্বী দলগুলোর প্রার্থীরা। এসব আশাবাদ নিয়েই গতকাল মধ্যরাত থেকে নাসিক নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে। এখন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, স্থানীয় নগরবাসীর সঙ্গে সঙ্গে দেশবাসীও আগামীকাল বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জে একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হবে বলে অপেক্ষায় রয়েছে। ২২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ৮ থেকে শুরু হবে ভোট গ্রহণ। ইতিমধ্যে ভোট গ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এখন কেবল অপেক্ষার পালা।
এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার নাসিক নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণার শেষ দিনেও সুষ্ঠু ভোট নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। অপরদিকে ‘কোনও অভিযোগ নেই’ জানিয়ে জয়ের আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। প্রচার-প্রচারণার শেষ দিনে গতকাল সকাল থেকে গণসংযোগের সময় সাখাওয়াত ও আইভী এসব কথা বলেন।
নাসিক নির্বাচনের ভোট হবে আগামী বৃহস্পতিবার ২২ ডিসেম্বর। বিধি অনুযায়ী মঙ্গলবার রাত ১২টা পর্যন্ত প্রচার-প্রচারণা করা যাবে। তবে সোমবার রাত ১২টার পর থেকে সিটি করপোরেশন এলাকার বাইরের কারও প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকায় অন্যান্য দিনের মতো মঙ্গলবার দুই দলের কোনও কেন্দ্রীয়  নেতাকে নারায়ণগঞ্জে দেখা যায়নি।
বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান গতকাল সকালে শহরের মাসদাইরে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও জেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের বাসায় সভা করেন। পরে তিনি তৈমূর, নগর বিএনপির সেক্রেটারি এটিএম কামাল, সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাড. আবুল কালাম, সাবেক সংসদ সদস্য মো. গিয়াস উদ্দিন, মো. সালাম, কাজী মনিরুজ্জামান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক জাহিদ হাসান রোজেলসহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। অন্য নেতাদের সঙ্গে নিয়ে শহরের ১৭নং ওয়ার্ডের পাইকপাড়া, জল্লারপাড় এলাকায় গণসংযোগ করেন।
এ সময় সাখাওয়াত অভিযোগ করেন, সুষ্ঠু ভোট নিয়ে আমি শঙ্কায় আছি। নির্বাচনের শুরু থেকেই আমি সেনা মোতায়েন চেয়েছিলাম। কিন্তু নির্বাচন কমিশন সেটা করেনি। এ কারণেই লোকজনের মধ্যেও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। আর সরকারও চাচ্ছে না সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হোক। সরকারের অবস্থান ভোটের দিন সকালেই বোঝা যাবে। তার পরেও আমি চাই সুষ্ঠু ভোট হোক। কারণ, মানুষ ধানের শীষকে ভোট দিতে উন্মুখ হয়ে আছে। লোকজন ধানের শীষকেই ভোটে পাস করাবে। এটা বুঝতে পেরেই সরকার ষড়যন্ত্র করছে।
এদিকে, নাসিক নির্বাচনে নৌকার পালে হাওয়া লেগেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আমাদের পার্টি এখন ঐক্যবদ্ধ, ঐক্যবদ্ধভাবেই এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। গতকাল সচিবালয়ে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে তিনি আরও বলেন, আমরা সবাইকেই সুযোগ করে দিতে চাই। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা আছে, নির্বাচন যেন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়। দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এ বিষয়ে আমিও একমত। নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে তাদের কর্মকা- পরিচালনা করুক। নারায়ণগঞ্জের মানুষ যাকে খুশি তাকেই ভোট দিক।
অপরদিকে, শেষ নির্বাচনটা ভালো করার ব্যবস্থা ইসি নেবে বলে আশা প্রকাশ করেছে বিএনপি। মেয়াদ শেষের আগে ‘ভালো নির্বাচন’ করার প্রয়াস নিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে দলটির পক্ষ থেকে অনুরোধ জানিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে সিইসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ দাবি জানায়।
বৈঠক শেষে নজরুল ইসলাম খান বলেন, বর্তমান কমিশনের অধীনে কোনও নির্বাচন ভালো হয়নি। তাদের প্রতি আমাদের আস্থা নেই। কিন্তু দেশে একটিই কমিশন। এজন্যে তাদের অধীনে আমাদের নির্বাচনে আসতে হয়। আশায় আছি, তারা শেষ নির্বাচনটা ভালো করার ব্যবস্থা নেবে। সিইসিও সুষ্ঠু নির্বাচনের আপ্রাণ চেষ্টার কথা জানিয়েছেন বলে নজরুল ইসলাম খান জানান।
এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার প্রচার-প্রচারণার শেষ দিনে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শহরের ১৭নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী। এসময় তিনি বলেন, প্রচারণার শেষ দিন আজ। আর কারও অভিযোগ শুনবো না, কারও বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ করবো না। আমিও চাই নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হোক। ভোটাররা যাতে সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে পারে; সেজন্য সব নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হবে। যে গণজোয়ার তৈরি হয়েছে সেটা এখন ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। ভোটারদের জন্য শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চাই। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট চাই। সুুুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।
১৬নং ওয়ার্ডে সেলিনা হায়াৎ আইভীর বাসার গেট থেকে গতকাল শেষ গণসংযোগ শুরু করেন তিনি। পরে তিনি ১৬নং ওয়ার্ডের দেওভোগ এলএন রোড, নিহত দিদারুল ইসলাম চঞ্চলদের বাড়ি,  দেওভোগ আখড়া মোড়, নতুন পালপাড়া মোড়, কাঠের দোতালা, দেওভোগ পাকারোড বড় মসজিদ, পুরাতন দেওভোগ পাকা রোড, খানকা রোড. জামাল উদ্দিন সড়ক, গার্মেন্টস গলিসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে নিজ বাড়িতে এসে গণসংযোগ শেষ করেন।
এদিকে, গতকাল শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন নাসিকের ২৭ ওয়ার্ডের সাধারণ ভোটারগণ। চারিদিকে বিশাল বিশাল মিছিল আর মিছিল তারা শ্লোগানে শ্লোগানে মুখর করে তোলে সারা নগরী। মিছিলকারীরা ঢাক-ঢোলসহ বিভিন্ন ধরনের বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে নেচে গেয়ে পরস্পর পরস্পরের উপর ফুলের পাঁপড়ীও ছিটিয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।
এবারের নির্বাচনে ৭ জন মেয়র প্রার্থী অংশ নিলেও এরমধ্যে এলডিপির কামাল প্রধান ও কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস বিএনপির প্রার্থী এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন  থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। যার ফলে ভোট যুদ্ধের জন্য রয়ে গেছেন ৫ জন মেয়র প্রার্থী। এর মধ্যে অন্যদের নিয়ে তেমন আলোচনা না থাকলেও আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীই রয়েছেন সকল আলোচনায়। মূল হিসেবটাই কষা হচ্ছে এই দুই দলের প্রার্থী আইভী ও সাখাওয়াতকে ঘিরে। এদিকে রাজনৈতিক হিসেব নিকেষের উপরেও এখানকার ভোটারদের একটাই চাওয়া এ নারায়ণগঞ্জ নগরী শাসন হোক নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধির দ্বারা এবং তা হোক সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটের মাধ্যমে।
এদিকে, এ নির্বাচনে সাধারণের উৎসাহ উদ্দীপনা দুটোই রয়েছে। তবে এখানে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আইভীকে নিয়ে নিজ দলীয় লোকদের মাঝেই নীরব দ্বন্দ্ব যেন রয়েই গেছে। অপর দিকে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দরা প্রতিদিন প্রচারণায় ঘাম ঝরালেও স্থানীয় বিএনপির ভূমিকা নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। বলা হচ্ছে, এখানকার অনেক বিএনপি নেতাকর্মী প্রকাশ্যে না হলেও গোপনে গোপনে আইভীর পক্ষে কাজ করছেন।
নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থা নির্বাচন কমিশন ইতিমধ্যে তাদের প্রায় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।  ভোটের আগের দিন সকাল ৮টা থেকেই রিটার্নিং কর্মকর্তা ভোটের উপকরণ প্রিজাইডিং কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করবেন। দিনভর কেন্দ্রে কেন্দ্রে মালামাল পৌঁছানো এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য নির্বাচনী কর্মকর্তাসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও সদা তৎপর থাকবেন।
ইতিমধ্যে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে নামানো হয়েছে ২২ প্লাটুন বিজিবি। পাশাপাশি পুলিশ, র‌্যাবসহ একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা নগরীতে টহল অব্যাহত রেখেছে। এছাড়াও মাঠে রয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। কোনো অনিয়ম হলেই যেন পার পেয়ে না যায়, সেজন্য কঠোর নির্দেশনাও দিয়েছে ইসি। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ ইতিমধ্যে শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনে  মোট ১৬৩ প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ১২১৭ সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ভোট গ্রহণ করবেন।
২২ ডিসেম্বর সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ করবে নির্বাচন কমিশন। এরপর  কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণা করার পর তা নারায়ণগঞ্জ ক্লাব (নির্বাচন কমিশনের অস্থায়ী কার্যালয়) রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হবে। এখান থেকে পূর্ণাঙ্গ ফলাফল প্রকাশ করা হবে।
হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী মুফতী মাসুম বিল্লাহর ২৭ দফা ইশতেহার ঘোষণা
গতকাল মঙ্গলবার চরমোনাই পীর মনোনীত ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী মুফতী মাসুম বিল্লাহ ডিআইটিতে দলের মহানগরের কার্যালয়ে নির্বাচনে ২৭ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেন। সকাল ১০টায় ইশতেহার ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন তার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির  মহানগরের আহ্বায়ক মাও. দ্বীন ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সেক্রেটারি ও নির্বাচনে মহানগরের সদস্য সচিব মুহা. সুলতান মাহমুদ, শহর শাখার জয়েন্ট সেক্রেটারি মু. আব্দুর রহমান প্রধান, ইসলামী যুব আন্দোলন, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন ও ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ।
নির্বাচনী এলাকায় টহল শুরু করেছে র‌্যাব
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার লক্ষ্যে নগরীতে র‌্যাবের পেট্রোলিং শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে নাসিকের ২৭টি ওয়ার্ডকে ভাগ করে র‌্যাবের এই  পেট্রোলিং শুরু হয়। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত এ টহল চলবে বলে র‌্যাব জানায়।
এব্যাপারে র‌্যাব-১১ কালীরবাজার কোম্পানী কমান্ডার এএসপি শাহ মো. শিবলী সাদিক জানান, নির্বাচনে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে র‌্যাব পেট্রোলিং শুরু করেছে। যদি কোথাও কোন ধরনের অনিয়ম ঘটে, সেখানেই এ্যাকশনে যাবে র‌্যাব। অনিয়মের চেষ্টাকারী কারো সঙ্গেই কোন ধরনের কম্প্রোমাইজ করা হবে না।
র‌্যাব-১১’র মিডিয়া উইং অফিসার এএসপি শাহ মো. মশিউর রহমান পিপিএম জানান, নাসিক নির্বাচনে যেন সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকে সেজন্য র‌্যাব মাঠে কাজ করছে। কোন ধরনের অনিয়ম বরদাস্ত করবে না র‌্যাব।  তিনি আরো জানান, র‌্যাবের ২৭টি মোবাইল টিম মাঠে আছে। প্রতিটি দলে ১২ জন করে সদস্য আছেন।
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ২৭ টি ওয়ার্ডে ১৫৬ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ও  ৩৮ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ৫ জন মেয়র পদপ্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এখানে ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ৮৯ হাজার ৩৯২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ৫১৪ জন এবং নারী ভোটার ২ লাখ ৩৭ হাজার ৮৭৮ জন। তারা ১৬৩টি কেন্দ্রের ১২১৭টি ভোটকক্ষে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার সুযোগ পাবেন।
বহিরাগত নিষিদ্ধ করায় বিপাকে রপ্তানীমুখী শিল্প মালিকগণ
নাসিক নির্বাচনকে ঘিরে অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য গত সোমবার রাত ১২ টা থেকে ২২ ডিসেম্বর নির্বাচনকালীন দিন পর্যন্ত সিটি এলাকায় নিষিদ্ধ করা হয়েছে বহিরাগতদের অবস্থান। এদিকে বহিরাগতদের অবস্থানের উপর বিধি নিষেধ আরোপ করায় সিটি করপোরেশন এলাকার প্রায় শতাধিক রপ্তানীমুখি কল-কারখানাসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকগণ পড়েছেন বিপাকে। নিষেধাজ্ঞার পর (২০-২২ ডিসেম্বর) থেকে এ অঞ্চলের কালকারখানায় অনেকটা অচলাবস্থা চলছে। সিটি অঞ্চলে যেসব শিল্প-কারখানাসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে সেগুলো এই তিনদিন সম্পূর্ণ বন্ধ রাখতে হবে ফলে তৈরী পোষাক রপ্তানীতে পড়বে বিরূপ প্রভাব পড়বে বলে মালিকরা আশংকা করছেন।
এ ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিকেএমইর সহসভাপতি (অর্থ) জিএম ফারুক জানান, এ নিয়ে তারাও চিন্তিত। কেন না, প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে এ প্রসঙ্গে কোন রকম দিক নির্দেশনা  দেয়া হয়নি। দিক নির্দেশনা দেয়া হয়নি শিল্প কলকারাখানার মালিক শ্রমিকদের প্রতিও। তাই প্রশ্ন উঠেছে, এসব শিল্প কলকারখানায় যেসব বহিরাগতরা কাজ করেন তাদের কী উপায় হবে? তিনি প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ রেখে বলেন, এ তিনদিন আমাদের শিল্প প্রতিষ্ঠানে বাহির থেকে আসা শ্রমিকরা যাতে সমস্যায় না পড়েন, সে ব্যাপারে যেন প্রশাসন দৃষ্টি রাখেন। কর্মস্থলের পরিচয়পত্র  দেখানোর পর প্রশাসন যেন তাদের সহযোগিতা করেন।



 

Show all comments
  • আমীর হোসেন ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১১:৫১ এএম says : 0
    দেখা যাক নির্বাচন সুষ্ঠ হয় কিনা
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shoyel Rashid Choudhury ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:২৬ পিএম says : 0
    ভোট হোক শান্তিপূর্ণ
    Total Reply(0) Reply
  • Abu Taleb Mohammad Sahid ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:৫৪ পিএম says : 0
    নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনে দুর্বৃত্তায়ন না হলে ধানের শীষ ৭০ হাজার ভোট বেশি পেয়ে পাস করবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Zia Uddin Ahmed ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:৫৭ পিএম says : 0
    ভোটাররা নির্বিঘ্নে ভোট দিতে না পারলেও ভোটের বাক্স অন্তত খালি থাকবেনা, কেননা, সরকারি দলের লোকজন অতীতের সকল নির্বাচনের মতোই নিজ দায়ীত্বে জনগণের ''ভোটের অধিকার'' প্রতিষ্ঠা করবেন বলে আমরা আশাবাদী!!
    Total Reply(0) Reply
  • Hm Belal Hossain ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:৫৮ পিএম says : 0
    যেখানে একটা ইউপি নির্বাচনে কেন্দ্র দখল করে সব পেপারে সিল মারে সেখানে মেয়র নির্বাচনে আপনি সুষ্ঠু নির্বচনের আসা কিভাবে করবেন?
    Total Reply(0) Reply
  • Elious ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:৫৯ পিএম says : 0
    নারায়ণগন্জে আগামী কাল ভোট হবে,আমি আশা করি সকল ভোটার তাদের মতামত প্রকাশ করবেন এবং তাদের পছন্দের পার্থী কে মননিত করবেন. নিবাচন হোক নিরপেক্ষ এই কামনা.
    Total Reply(0) Reply
  • আঃ রাজ্জাক ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১:০১ পিএম says : 1
    নারায়ণগঞ্জের সন্মানিন ভোটারদের ভোটে দ্বিতীয় বারের মত মেয়র নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন সেলিনা হায়াৎ আইভী।
    Total Reply(0) Reply
  • মাহমুদ আল হাসান ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১:০৩ পিএম says : 1
    সারা দেশে একটি নির্বাচন,,,, সকলের চোখ নির্বাচনের দিকে। আশা করি সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ খোকন ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১:০৪ পিএম says : 1
    100% পাস আঃলীগ
    Total Reply(0) Reply
  • Jashim Uddin ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১:০৫ পিএম says : 1
    নাসিক মানে আইভি
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নাসিক নির্বাচন

২৩ ডিসেম্বর, ২০১৬
২২ ডিসেম্বর, ২০১৬

আরও
আরও পড়ুন