Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯, ১৭ রজব ১৪৪৪ হিজিরী
শিরোনাম

জমাদিউস সানি : গুরুত্ব ও ফজিলত

ডা. মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ | প্রকাশের সময় : ৭ জানুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

১৪৪৪ হিজরির জমাদিউস সানি মাসের গণনা সোমবার (২৬ ডিসেম্বর ২০২২ ইং ) থেকে শুরু হয়েছে। হিজরি সনের ষষ্ট মাস ‘জমাদিউস সানি’। এর আগের মাসের নাম জমাদিউল আউয়াল। এই জোড়া মাস দুটিকে বলা হয় জুমাদাল উলা ও জুমাদাস সানিয়াহ বা প্রথম শীত ও দ্বিতীয় শীত; অর্থাৎ শীতকালের প্রথম মাস ও শীতকালের দ্বিতীয় মাস। আরবে তৎকালে এই দুই মাস ছিল শীতকাল। তাই মাস দুটির নামকরণ এভাবেই হয়েছে। আরবিতে ‘জুমাদাস সানিয়াহকে ‘জুমাদাল উখরাও বলা হয়। আমাদের উপমহাদেশে মাস দুটি ‘জমাদিউল আউয়াল’ ও ‘জমাদিউস সানি’ নামে সমধিক পরিচিত। (আল মুনজিদ)।

জমাদিউস সানি মাসের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলি কি : যেহেতু শীতকালে তীব্র শীতে তরল পানি জমে কঠিন বরফে পরিণত হয়ে যায়; জড় পদার্থগুলো জমে শক্ত হয়ে যায়; উদ্ভিদ ও জীব নিথর হয়ে যায়; প্রাণীরা নীরব হয়ে যায়; তাই এই মাসকে এই নামে নামকরণ করা হয়েছে। ইমাম আবু হানিফা (রহ.) বলেন, ‘জুমাদা’ হলো শীতকাল। এটি বসন্তের নিকটবর্তী, গ্রীষ্মের পূর্ববর্তী। ইসলামে অন্যান্য মাসের মতো এই মাসেও নফল ইবাদত, নফল রোজা, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির-আসকার, দোয়া-দরুদের অনেক মূল্য রয়েছে। তাই জমাদিউস সানি মাসে পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজের পাশাপাশি নফল নামাজ তথা তাহাজ্জুদ, ইশরাক, চাশত ইত্যাদি নফল নামাজ আদায় করা, কাজা রোজা থাকলে তা পুরা করা; মান্নত রোজা থাকলে তা আদায় করা।

আইয়ামে বিজের রোজার ফজিলত : আইয়ামে বিজের রোজা রাখার ফজিলত ও গুরুত্বারোপ করে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে ঘোষণা করেছেন- হজরত আবু যার রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রতি মাসে তিনটি রোজা রাখল; সে যেন সারা বছরই রোজা রাখল।’ অতঃপর এর সমর্থনে আল্লাহ তাআলা তাঁর কিতাবে নাজিল করেন-যে একটি নেকি নিয়ে আসে তার জন্য রয়েছে তার ১০গুণ।অতএব একদিন ১০ দিনের সমান।’ (তিরমিজি)। হজরত আব্দুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রত্যেক মাসে তিনদিন রোজা রাখতেন।’ (আবু দাউদ)।

হজরত ইবনু মিলহান আল-ক্বাইসি তাঁর পিতার সূত্রে বর্ণনা করেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের আইয়ামে বিজের রোজার ব্যাপারে নসিহত করেছেন; আমরা যেন তা (মাসের) ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখ পালন করি। তিনি আরও বলেছেন, এটা সারা বছর রোজা রাখার মতোই।’ (আবু দাউদ)। এছাড়াও আইয়ামে বিজের রোজা সম্পর্কে বর্ণিত আছে যে-হজরত আদম ও হাওয়া আলাইহিস সালাম বেহেশতের নিষিদ্ধ গাছের ফল খাওয়ার পর তাদের শরীর থেকে জান্নাতি পোশাক চলে যায়। আর তাদের শরীরের রংও কুৎসিত হয়ে যায়। অতঃপর হজরত আদম ও হাওয়া আলাইহিস সালাম আল্লাহর হুকুমে চন্দ্র মাসের তের, চৌদ্দ ও পনের তারিখে রোজা রাখলে আবার তাদের শরীরের রং পূর্বের ন্যায় উজ্জ্বল হয়ে যায়।

তাই এই তিন দিনকে আইয়্যামে বিজ বা উজ্জ্বলতার দিন বলা হয়। আইয়ামে বিজের রোজা রাখার ফজিলত বর্ণনায় হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ বুখারি ও মুসলিমে এসেছে- রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, প্রত্যেক মাসে তিনদিন রোজা পালন, সারা বছর রোজা পালনের সমান।’ জমাদিউস সানিকে মূল্যহীন বিবেচনা করে হেলায় কাটিয়ে দেওয়া কখনও উচিত হবে না। এমনটি যাদের অভ্যাস, হাশরের কঠিন দিনে তাদের সময়ের অপচয়ের জন্য অনুতাপ ও অনুশোচনা করতে হবে। মানুষের জীবন আসলে কিছু দিনের সমষ্টি মাত্র। একটি দিন চলে যাওয়ার অর্থ জীবনের একটি অংশ নিঃশেষ হয়ে যাওয়া।

অসংখ্য হাদিসে সময়কে মূল্য দেওয়ার এবং জীবনের গুরুত্ব প্রদানের তাগিদ রয়েছে। এক হাদিসে নবীজি (সা.) বলেন, ‘পাঁচটি বিষয়কে পাঁচটি বিষয়ের আগমনের আগে গনিমত মনে করো। বার্ধক্যের আগে যৌবনকে, অসুস্থতার আগে সুস্থতাকে, দরিদ্রতার আগে সচ্ছলতাকে, কর্মব্যস্ততার আগে অবসরকে এবং মৃত্যুর আগে জীবনকে।’ (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ৩৫৪৬০)। এমনকি জান্নাতের অনন্ত সুখের জায়গায় গিয়েও মানুষ অবহেলায় হারিয়ে ফেলা সময়ের কারণে আফসোস করবে। রাসুল (সা.) বলেন, ‘জান্নাতের অধিবাসীগণ দুনিয়ার কোনো কিছুর জন্য আফসোস করবে না। শুধু সেই সময়গুলো জন্য আফসোস করবে, যা আল্লাহর জিকির ছাড়া অতিবাহিত হয়েছে।’ (তাবারানি: ২০/৯৩; তারগিব: ২/৩৭৫)।

তাছাড়া শীত ও গরমের মৌসুমে বিশেষ ইবাদত প্রসঙ্গে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যেহেতু কোরাইশদের আসক্তি আছে, তাদের আসক্তি শীত ও গ্রীষ্মে ভ্রমণের। অতএব তারা এই (কাবা) গৃহের প্রভুর ইবাদত করুক। যিনি তাদের ক্ষুধায় অন্ন দিয়েছেন এবং শঙ্কায় নিরাপত্তা দান করেছেন।’ (সুরা কুরাইশ: ১-৪)। এছাড়াও ‘রজব’ মাসের প্রস্তুতি হিসেবে জমাদিউস সানিতে বেশি বেশি নেক আমল করা উচিত। মুমিনের এই চেতনা থাকা জরুরি যে নেক আমলের জন্য কোনো মৌসুমই মূল্যহীন নয়। সময়ের গুরুত্ব সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘সময়ের শপথ! নিশ্চয় মানুষ রয়েছে নিশ্চিত ক্ষতিতে। তারা ব্যতীত যারা ইমান এনেছে, আর নেক আমল করেছে। এবং একে অন্যকে সত্যের উপদেশ দিয়েছে ও একে অন্যকে ধৈর্যে উৎসাহ জুগিয়েছে।’ (সুরা আসর : ১-৩)।

পরিশেষে বলতে চাই, যেসব দিবসের ও যেসব মাসের বিশেষ বৈশিষ্ট্য ও ফজিলত কোরআন ও হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, সেসব দিনে ও মাসে সবাই ইবাদত করবেন সুতরাং যেসব দিন ও মাসের বিশেষ ফজিলত ও বৈশিষ্ট্য কোরআন ও হাদিসে উল্লেখ করা হয়নি, সেসব দিন ও মাসে বেশি করে নেক আমল করলে আমলকারী অবশ্যই অন্যদের চেয়ে এগিয়ে যাবেন ও অগ্রগামী হবেন। তাই আসুন আমরা যেনো শিরক মুক্ত ঈমান নিয়ে কবরে যেতে পারি আল্লাহ তা’আলা আমাদের তাওফিক দান করুন। আমীন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন