Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯, ১৭ রজব ১৪৪৪ হিজিরী
শিরোনাম

নতুনধারার ইশতেহার ও পরিবর্তিত বিশ্বে যথার্থতা

কামরুল ফারুকী | প্রকাশের সময় : ২০ জানুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

কোন সমাজ ও সভ্যতায় বড় ধরনের পরিবর্তন হলে শিল্প ও সাহিত্যেও বড় পরিবর্তন আসে।কারণ,সমাজ ও মানুষের সাথে শিল্প-সাহিত্যের সম্পর্ক অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ।ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লবের পর নগর সভ্যতার পত্তনের ভেতর দিয়ে মানুষের জীবনে যে বহুমুখী সামাজিক ও মানসিক পরিবর্তন এসেছে তার প্রভাবে সেই সময়ের সাহিত্য ও চিত্রশিল্পে বহুমাত্রিক বিস্তার এসেছে,সৃষ্টি হয়েছে নানা ধারা ও আঙ্গিক।শিল্পে যে নৈর্ব্যক্তিকতা সেটাও কিন্তু এই একঘেয়ে নগর বাস্তবতার ফল,ফলে নৈর্ব্যক্তিক হলেও সমাজ বাস্তবতার নিরিখেই তা নৈর্ব্যক্তিক এবং সমাজ বাস্তবতার আলোকেই তার প্রকৃত পাঠোদ্ধার সম্ভব।
করোনা ও যুদ্ধোত্তর পৃথিবীতে একই কারণে উত্তরাধুনিক কবিতাপর্ব শেষ হবার দিন ঘনিয়ে আসছে।জীবন কঠিন হচ্ছে।দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি,যুদ্ধ,মহামারি ইত্যাদির ফলে কবিরা আর বেশিদিন শব্দবিলাসে মেতে থাকতে পারবেন না।তারা আবার অনুভূতির কথা বলবেন,চারপাশের কথা বলবেন।সমাজ আবার প্রতিবিম্বিত হবে কবিতায়।যারা এখন লিখছেন তাদের মধ্য থেকেও এই ধারার কবিতা উঠে আসবে,আবার একদল নতুন কবিগোষ্ঠীও আত্মপ্রকাশ করবে।উত্তরাধুনিক কবিতা তাই বলে ব্যর্থ নয়।এটারও প্রয়োজন ছিল।কবিতার বিশেষ এক শাখা হিসেবে,নন্দনতত্ত্বের তিলোত্তমা হিসেবে এর নামও কবিতার ইতিহাসে লেখা থাকবে।সেই সাথে পাঠক বিমুখতার কলঙ্কও তাকে বয়ে বেড়াতে হবে। সম্ভবত গত ২০-৩০ বছরে কয়েক হাজার কবি উত্তরাধুনিক কবিতা লিখেছেন।তার মধ্যে সর্বোচ্চ ৫-১০ জনের নাম সাহিত্যের ইতিহাসে লেখা থাকবে।বাকিরা তাদের অনুচর,গুপ্তচর বা সমবৈশিষ্ট্যের অভিধায় ব্যক্তিস্বরের অভাবে হারিয়ে যাবেন।
করোনা পরবর্তী সংগ্রাম মুখর পৃথিবীতে তাই শুরু হয়েছে নতুনধারার সাহিত্য আন্দোলন।২৬ নভেম্বর,২০২১ মৌচাক টাওয়ার, মালিবাগে শরীয়তপুর সাহিত্য পরিষদ এর আয়োজনে সম্পন্ন হয় নতুন ধারার ইশতেহার ঘোষণার প্রথম আনুষ্ঠানিকতা।নতুনধারার সৃষ্টি বিষয়ে এই ধারার কবিদের ভাষ্য হল-করোনায় যে ভাবে বিশ্ব আজ দলিতমথিত, দ্রুত পরিবর্তিত, মৃত্যু,আর্তনাদ, শোক,একাকীত্ব, সন্দেহ, খাদ্যাভাব, অর্থ সংকট,বেকারত্ব,জন্মহীনতা-- অতীত বিশ্ব কখনও এমন ভয়ংকর চিত্রের মুখোমুখি হয়নি মনুষ্য সমাজ।করোনাকালীন সৃষ্ট সাহিত্যই বিশ্বে নতুন ধারা। এটা করোনাকালে ধুমকেতুর মত হঠাৎ, দৈবিক সৃষ্টি। কোনো বিবর্তন নয়। বিবর্তন ঘটে ধীরে।তাই নি¤েœাক্ত ইশতেহারের মাধ্যমে নতুন যুগের কবিগণ নতুনধারার ঘোষণা দিয়েছেন--
১.
জরুরি প্রমিত ভাষার সাথে স্থানীয় ভাষার কোমল মিশ্রণ। এদুটো বৈশিষ্ট্য নতুন পৃথিবীর নতুন ধারায় কবিতায় অনস্বীকার্য।
২.
অযথা ইংরেজি শব্দ ও বাংলিশ বর্জন। নতুন শব্দ তৈরি অপরিহার্য।
৩.
আধুনিকের মতো অভেদ্য নয়,এখন কিঞ্চিৎ সহজবোধ্য কবিতা হবে।কবিতার কোনো অংশকণা নিয়ে দীঘল ভাবনার অবসর কম থাকবে।
৪.
নন্দন তত্ত্ব অনেকাংশে শক্তি হারাবে। শিল্প, ছন্দ, অছন্দ থাকবে। উপমা,
রুপকল্পে কাঠিন্য নয়,সহজ স্বাভাবিক রূপ থাকবে। অথবা না থাকলেও ক্ষতি নেই। কাব্য গঠনে শিথিলতা রবে।
৫.
যা আধুনিকে ছিল না--মানুষ মৃত্যু আতংকে কম বেশি ধর্মমুখী হবে।আধুনিকরা যা পরোক্ষভাবে নিষিদ্ধ করেছিল।আস্তিকতা - নাস্তিকতা দুটোই থাকবে।
৬.
পরিহার্য্য রাজনৈতিক কোন্দল। প্রকৃতি,
বিয়ং (রহস্যময়তা), কল্পনা, অলৌকিকতা জরুরি।
৭.
ভোগবিমুখতা, নির্জনতা থাকবে। অসাম্যের মৃত্যু ঘটবে। নতুন পৃথিবী এগিয়ে যাবে প্রগতির চাকা ছুঁয়ে, সবুজ ও মৃত্তিকার মেলবন্ধনে।
৮.
শুধু ইতিহাস ঐতিহ্য নয়,এবার পুরাকীর্তি গণ্য হবে অধিক । পুরাকীর্তি না থাকলে সে ইতিহাস মিথ্যাময়।
৯.
আত্মীয় আর সম্পর্ক বাচক শব্দের নাম সহ প্রয়োগ অপরিহার্য।
১০.
বহুরৈখিকতা আবশ্যক। আধুনিকের মতো শুধু মৌল নয়,গৌণদের কথাও থাকবে। সমাজ কাঠামো নির্মাণে তাদের প্রভূত অবদান।
১১.
ভালোবাসা, কাম,নারীর সৌন্দর্য ও ক্ষমতায়ন বৈধ। নতুন পৃথিবীতে সব কিছুই নবীনকরণ।
কবিতায় ঘটা করে ইশতেহার ঘোষণা অনেকের কাছেই জরুরি মনে না হতে পারে কিন্তু কবিতা যখন চারপাশ থেকে মুখ সরিয়ে কৃত্রিম আলোর ল্যাবরেটরিতে বসে গন্ধহীন ব্যতিক্রমের প্রতি সর্বশক্তি নিয়োজিত করে তখন ভিন্ন একটি স্রোতে শিল্পের চিরায়ত ধারাকে বিকাশের জন্য ইশতেহার ঘোষণা জরুরি হয়ে পড়ে।যে শিল্প আন্দোলন কবিতায় তার সময় ও চারপাশের জীবনকে গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলে তা অবশ্যই কোন গ-ীবদ্ধ সীমানা নয়।নিজস্ব সংজ্ঞার জন্যই তা সবসময়ের জন্য নতুন।
নিয়ম বেঁধে দিয়ে সাহিত্য আন্দোলন কখনও ফলপ্রসূ হয় না।তবে কখনও কখনও স্তিমিত বর্তমান থেকে নতুনের ধারাকে পৃথক করে বুঝার জন্য কিছু স্বল্পকালীন নিয়মের প্রয়োজন হয়।নদীকে যেমন দুইদিকে বাঁধ দিয়েই জলকে একদিকে গন্তব্যমুখী করতে হয় সাহিত্যেও কখনও কখনও এরকম নির্দিষ্ট কিছু নিয়ামক জরুরি হয়ে পড়ে।ব্যক্তিগতভাবে আমি কোন সাহিত্য আন্দোলনকে ধর্মের মত একমাত্র উপাস্য হিসেবে মানি না।সব ধারাই কম-বেশি সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে।গত ২০-৩০ বছরে উত্তরাধুনিক ধারার প্রচুর কবিতা লেখা হয়েছে।আমি মনে করি এর থেকে যা পাওয়ার তা আমরা পেয়েছি।এখন শুধু নন্দনের ঘনঘটা করে এর চর্বিত অংশের চর্চা চলছে।ফলে বাংলা কবিতায় নতুন কিছু যোগ হচ্ছে না।গত ৩০ বছরে কয়েক লক্ষ কবিতা লেখা হলেও,সেখানে প্রতিভার স্বাক্ষর থাকলেও,দুঃখের সাথেই বলতে হয় সেখান থেকে একটি কবিতাও আলোচনার কেন্দ্রে উঠে আসতে পারেনি।এই সমগ্র কালখ- আবুল হাসানের -ঝিনুক নীরবে সহো কবিতার তুল্য একটি দীপ্তিময় পঙক্তি আমাদের উপহার দিতে পারেনি ।গত ৩০ বছরের উত্তরাধুনিকতার চর্চা বাংলা কবিতায় আবুল হাসানের মত ক্ষণজীবি কবির স্থানও দখল করতে পারেনি।সেই অর্থে উত্তরাধুনিক কবিতা একপ্রকার ব্যর্থ হয়েছে।পাওয়ার মধ্যে যা পাওয়া তা হল এর নন্দনতত্ত্বের পরাকাষ্ঠা,যার খ-াংশ ভবিষ্যতের নতুন কবিতায় ব্যবহৃত হতে পারে।
উত্তরাধুনিক কবিতা থেকে আরেকটি প্রাপ্তি হল তার ব্যর্থতা থেকে পাওয়া শিক্ষা।রবীন্দ্রোত্তর কবিতায় সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত ছন্দের যাদু দেখিয়ে যা করেছিলেন উত্তরাধুনিকতাও নন্দনের যাদু দেখিয়ে অনেকটা তাই করেছে।সত্যেন্দ্রনাথ সমকালের পাঠকমহলে স্বল্পস্থায়ী অনুনাদ সৃষ্টি করতে পারলেও উত্তরাধুনিকতা তা থেকেও তিরোহিত।ভাবের অপুষ্টিতে সত্যেন্দ্রনাথ আজ অনুচ্চারিত।কাঠামো ও চিত্রকল্পের উচ্চাসন সত্তেও ভাব ও সমাজবিচ্ছিন্নতার চরিত্র উত্তরাধুনিক কবিতাকেও তেমনি একঘরে করে ফেলেছে।তাই এই শিল্পব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে পরিবর্তীত বিশ্বে শুরু হয়েছে নতুনধারার আন্দোলন।নন্দনের কষাঘাতকে নিয়ন্ত্রণ করে তা আবার সমাজের কথা,মানুষের কথা বলতে চাইছে।এটা খুবই আশার কথা।
নতুনধারার কথা শুনে ব্যক্তিগতভাবে আমি আনন্দিত হয়েছি।অনেকদিন থেকেই উত্তরাধুনিক কবিতার নন্দনচর্চার বাড়াবাড়ি, জনবিচ্ছিন্নতা, কবিতাকে অতিরিক্ত কবিতা করতে গিয়ে কবিতার মূল সত্ত্বা থেকেই দূরে সরে যাওয়া এসব অনেককেই পীড়া দিচ্ছিল।কবিতা আবার জীবনমুখী হবে এটাই প্রত্যাশা।তবে তা আবার শামসুর রাহমান,নির্মলেন্দু গুণের ভাষার দিকে গেলে আবার পুরনোতেই ফিরে যাওয়া হবে।›নতুনধারা›র ইশতেহারে প্রমিত ভাষার সাথে প্রচলিত ভাষার মিশ্রণের কথা বলা হয়েছে।এটা একটা নতুনত্ব আনতে পারে।তবে এ বিষয়ে কবিদের খুব দক্ষতা দেখাতে হবে যেন এর মিশ্রণ শিল্পীত হয়,যেন তা বেসুর মনে না হয়।যেকোন নতুন আন্দোলনের প্রথমদিকেই উৎকৃষ্ট ফসল পাওয়া যায় না,শুরুতে তা একটু লঘু থাকে।এতে হতাশ হওয়ার কিছু নেই।মাটির রাস্তা প্রথমে পায়ের হাঁটার উপযোগী করেই পরবর্তীতে সেখানে গাড়ি চালানোর স্বপ্ন দেখা যায়।তাই এখন পায়ে হাঁটা আত্মবিশ্বাসী কিছু পথিক জরুরি যারা পথের পাশের নির্জনতা,শব্দময়তা সব মনোযোগ দিয়ে শুনবে।
কবিতায় কবি একান্তভাবে স্বাধীন।তিনি কী লিখবেন,কী লিখবেন না এ ব্যাপারে তার ইচ্ছাই চূড়ান্ত।তবে নিজের অবচেতনে বা সচেতনভাবে প্রকাশের দিক থেকে তিনি একটি ধারাকে অনুসরণ করে চলেন।এ কারণেই মধ্যযুগ থেকে মাইকেল আলাদা,মাইকেল থেকে রবীন্দ্র-নজরুল আলাদা।একই ধারাবাহিকতায় রবীন্দ্রযুগ থেকে তিরিশ আলাদা।এই যুগে দাঁড়িয়ে স্বাভাবিকভাবেই তাই কেউ আর তাদের মত লিখেন না।তার মানে কবিতার বিবর্তনে প্রকাশভঙ্গি ও বিষয়ের বিবর্তনকে অগোচরে সবাই মেনে চলেন।উত্তরাধুনিকতাও কি কবিতার একটি আদর্শ বা ধারা মেনে চলছে না?নির্লিপ্ত দৃষ্টিভঙ্গি ও চিত্রকল্পের নিরীক্ষাধর্মী ব্যবহারে বিষয়হীন অবয়বই কি তার মূল লক্ষ্য নয়?সেই হিসেবে উত্তরাধুনিক কবিগোষ্ঠীও একটি দলের অন্তর্গত।
উত্তরাধুনিক কবিতায় ইতিহাস,ঐতিহ্য,লোকজীবন দারুণভাবে উপেক্ষিত হয়েছে।আমার বিশ্বাস নতুনধারায় বাঙালিপনা আবার নতুনভাবে জাগ্রত হবে।সেজন্য কবিদের বাঙালীর গত দুই হাজার বছরের ভাষা,সাহিত্য ও সমাজ বিবর্তনের ইতিহাস সম্পর্কে অন্তত ধারাবাহিক একটা ধারণা রাখতে হবে।মধ্যযুগের কবিতা থেকে শুরু করে আল মাহমুদ পর্যন্ত চুলচেরা পাঠ জরুরি।পাঠের অভ্যাস ছাড়া দৃষ্টি গভীর হবে না।ফলে লেখাও অগভীর থেকে যাবে,শুধু ভাষার শূন্য কাঠামো হয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে।
চিত্রকল্পের অতিমাত্রার ব্যবহার থেকে বেরিয়ে এসে যতটুকু ব্যবহার কবিতাকে হৃদয়গ্রাহী করে ঠিক ততটুকুই ব্যবহার করতে হবে।দক্ষ রাধুনি মসলার ব্যবহার সম্পর্কে যেরকম সচেতন সেরকম সচেতন হতে হবে।হালের উত্তরাধুনিকতা দুধে হলুদগুড়া দিতেও দ্বিধা করে না।চমকই তার লক্ষ্য,চিরায়ত কিছুর লক্ষ্য তার নেই।আমার বিশ্বাস নতুনধারা প্রকাশে নতুন কিন্তু শিল্পের চিরায়ত আদর্শ মানুষ,জীবন ও প্রকৃতিকে সফলতার সাথে কবিতায় ফিরিয়ে আনবে।
কবিতার কোন ধারাই অন্য কোন ধারার সাথে বিরোধ পোষণ করে না।মূলত পারিপার্শ্বিকের প্রভাব ও প্রয়োজনেই তাদের চরিত্রে ভিন্নতা তৈরি হয়।প্রতিভাবান কবি কোন ধারাই মানেন না তবে তিনি তার যুগধর্মকে স্বীকার করেন।সেই যুগধর্ম আজ নতুন কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন