Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮ মাঘ ১৪২৭, ০৮ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

চৌদ্দগ্রামে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে পিটিয়ে স্কুলশিক্ষক শ্রীঘরে

| প্রকাশের সময় : ৮ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা সংবাদদাতা : চৌদ্দগ্রামে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠানোর খেসারত হিসেবে এক হাইস্কুল শিক্ষককে গতকাল শ্রীঘরে পাঠিয়েছে পুলিশ। যৌতুকের জন্য বৌ পেটানো এ শিক্ষকের নাম মাহাবুবুল আলম পাটোয়ারী। তার বাড়ি উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নোর তারাশাইল গ্রামে। তিনি উপজেলার ছাতিয়ানি উচ্চবিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক। কুমিল্লা জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে দায়েরকৃত মামলার বিবরণ এবং শিক্ষক মাহাবুবুল আলমের শ্বশুর একই উপজেলার জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের কেছকিমুড়া গ্রামের মো: ইউনুসের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তার মেয়ে আসমা আক্তারের সাথে বিগত ২০১৫ সালে মাহাবুবুল আলম পাটোয়ারীর বিয়ে হয়। বিয়ের সময় আসমার পিতা মেয়ের সুখের কথা ভেবে আট ভরি ওজনের স্বর্ণালঙ্কার এবং প্রায় দুই লাখ টাকার আসবাবপত্র দেন। বিয়ের পর শিক্ষক মাহাবুবুল আলম এবং তার পরিবার যৌতুকের জন্য আসমার উপর চাপ দিলে মেয়ের সুখের ঘর রচনার জন্য আসমার পিতা তার নিজ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে আড়াই লাখ টাকার রড সিমেন্ট পাঠিয়ে দেন। গত ২৯ অক্টোবর মাহাবুবুল তার স্ত্রী আসমাকে মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন কাগজপত্রে দস্তখত নেয় এবং তারপর থেকে বাড়ির ছাদ করার জন্য আরো তিন লাখ টাকা আনার জন্য চাপ দিতে থাকে। আসমা এতে সম্মত না হলে তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। খবর পেয়ে আসমার পিতা তাকে উদ্ধার করে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ বিষয়ে শিক্ষক মাহবুবুল আলমসহ চারজনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার সূত্রধরে চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই ফজলুল হকের নেতৃত্বে পুলিশ গতকাল ছাতিয়ানী হাইস্কুল হোস্টেল থেকে শিক্ষক মাহাবুবুল আলমকে এবং তারাশাইলের বাড়ি থেকে তার ভাই শাহআলম পাটোয়ারীকে গ্রেফতার করে পরদিন বুধবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চৌদ্দগ্রামে


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ