Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

দুপচাঁচিয়ায় আমের মুকুলে ভরে গেছে ডাল চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে মৌ মৌ ঘ্রাণ

প্রকাশের সময় : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মো. গোলাম ফারুক, দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) থেকে : দুপচাঁচিয়া উপজেলায় প্রকৃতিতে শীতের বিদায়ের সাথে সাথে বসন্তের আগমনে ফাল্গুনের হাওয়া চারিদিক মুখরিত। সময়ের পালাবদলে প্রকৃতির এই খেলায় ঋতুরাজ বসন্তে প্রকৃতি সেজেছে নতুন রূপে। আগুন ঝরা ফাল্গুনের আহ্বানে শিমুল গাছে ফুটেছে পলাশ। গ্রামের মেটো পথের দূর সীমানা থেকে ভেসে আসছে কোকিলের কুহু কুহু কলতান। নানা ফুলের সঙ্গে সূর ছড়াচ্ছে আমের গাছের মুকুলও। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে গাছে গাছে আমের মুকুলের মিষ্টি ঘ্রাণে চারিদিকে কেবল মৌ মৌ করতে শুরু করেছে। মুকুলের সেই সুমিষ্ট সুবাস আলোকিত করে তুলছে মানুষের হৃদয়। বনফুল থেকে মৌমাছির দল গুণগুণ করে ভিড়তে শুরু করেছে এই সব আমের মুকুলে। গাছের শাখার পর শাখায় ফুলগুলো চারিদিক যেন ফাল্গুনের রূপের ঝলসানোময় উচ্ছ্বাসের জানান দিচ্ছে। ঋতু বৈচিত্র্যের মধুর মাস আগমন এই বসন্তে। সবুজ প্রকৃতির আমেজ অনেকটা এখন আবেগের। বসন্তের ফাল্গুন আর আমের মুকুল তাই যেন একই সূত্রে গাঁথা। বছরের এই নির্দিষ্ট সময় জুড়ে প্রায় চারিদিকে শ্রেণী পেশার মানুষেরও দৃষ্টিও থাকে চির সবুজ আম গাছের মগডালে। আম গাছের সদয় মুকুল ফোটার এ দৃশ্য ছেঁয়ে গেছে দুপচাঁচিয়া উপজেলা সদরসহ প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও। উপজেলার সব এলাকাতেই এখন কম-বেশি রয়েছে আমের বাগান। লাভজনক হওয়ায় প্রতি বছরই এই আমের বাগানের সংখ্যা বাড়ছে। তবে গড়ে উঠা নতুন আম বাগানগুলো প্রায় বনেদি জাতের। বিশেষ করে নির্মিত জাত নেংড়া, গোপালভোগ, হাড়ি ভাঙ্গা, কিসরাপাত ও আর্শিনা জাতের আম গাছ সবার পরিচিত। এ গাছগুলো হয়ও বেশি। উপজেলার জিয়ানগরে আম চাষি মোজাফফর রহমান খান জানান, এ বছরে আবহাওয়া আমের মুকুলের জন্য বেশ অনুকূলে। টানা শীত ও কুয়াশার দাপট কেটে আবহাওয়া আমের মুকুলের অনুকূলে এসেছে। গতবারের মতো এ মৌসুমের শুরুতে আবহাওয়ার তেমন বিপর্যয়ও ঘটেনি। এরই মধ্যে আমের গাছে গাছে মুকুল ব্যাপকভাবে এসেছে। আশা করছে ভরা ফাল্গুনে এবার উপজেলা সদরসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে আম গাছে ব্যাপক আম ধরবে। তবে মাঝে মধ্যে আকাশে মেঘ জমে উঠছে। এর মধ্যে শীলা বৃষ্টি হলে আমের মুকুলের ব্যাপক ক্ষতি হবে। এই আশঙ্কাও রয়েছে। আবহাওয়া ও প্রকৃতির দুর্ভোগ নিয়েই যথেষ্ট শঙ্কায় রয়েছে এই আম চাষি। তবে গাছে গাছে আমের যেভাবে মুকুল এসেছে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার আমের ব্যাম্পার ফলন হবে বলে তিনি জানান। এ দিকে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোস্তফা কামাল হোসেন ‘দৈনিক ইনকিলাব’ কে জানান, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার আম গাছে খুব একটা কীটনাশক প্রয়োগের প্রয়োজন হবে না। তবে ছত্রাক জনিত রোগেও আমের মুকুল ফুল গুটি আক্রান্ত হতে পারে। এ ক্ষেত্রে ম্যানকোজেব গ্রুপের ছত্রাক নাশক ২ গ্রাম অথবা এমাডোক্লোরিড গ্রুপের দানাদার প্রতি লিটার ২ গ্রাম তরল .২৫ মিলি মিটার ও সাইপারমেথ্রিন গ্রুপের কীটনাশক প্রতি লিটার পানিতে ১ মিলি লিটার মিশিয়ে স্প্রে করা যেতে পারে। আবার মুকুল গুটিতে রূপান্তরিত হলে একই মাত্রায় ২ বার স্প্রে করতে হবে। এতে ছত্রাক জাতীয় রোগ থেকে আমের মুকুলগুলো রক্ষা পাবে সেই সাথে উপজেলায় বাম্পার আমের ফলন হবে বলে তিনি জানান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।