Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৭, ০৭ মাঘ ১৪২৩, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী

রাষ্ট্র হিসেবে ইসরাইলের স্বীকৃতি প্রত্যাহার করে নেয়া হতে পারে

| প্রকাশের সময় : ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মার্কিন দূতাবাস তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে সরিয়ে নেওয়া হলে ইসরাইলকে রাষ্ট্র হিসেবে দেওয়া স্বীকৃতি তারা ফিরিয়ে নিতে পারে। প্রসঙ্গত, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত ডোনাল্ড ট্রাম্প বিভিন্ন সময়ে দূতাবাস স্থানান্তরের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন। গত মাসে কট্টরপন্থি আইনজীবী ডেভিড ফ্রাইডম্যানকে ইসরাইলে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মনোনীত করেন ট্রাম্প। ট্রাম্পের মুখপাত্র কেলিঅ্যান কনওয়েও এক মার্কিন রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, দূতাবাস সরানোটা ট্রাম্প প্রশাসনে বিশেষ প্রাধান্য পাবে। ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা মোহাম্মদ শাতায়েহ বলেছেন, মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জন্য এক চপেটাঘাত, আর তার মানে হলো দুই রাষ্ট্র সমাধান প্রক্রিয়ার সমাপ্তি।
রামাল্লায় ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্টের দফতরে শাতায়েহ বলেন, আমার ধারণা ফিলিস্তিনি, মুসলিম ও খ্রিস্টানদের জন্য জেরুজালেমের গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারেন ট্রাম্প। ফিলিস্তিনি নেতারা তাদের প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে এই শুক্রবার বিশ্বব্যাপী সকল মসজিদে বিশেষ দোয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে রবিবার সকল গির্জায় ঘণ্টা বাজানোর আহ্বান জানিয়েছেন। এতদিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য দেশ তাদের দূতাবাস তেল আবিবেই রেখেছেন। শান্তি প্রক্রিয়া এগিয়ে নেওয়ার জন্যই তা করা হয়। তবে এবার ট্রাম্প প্রশাসনে দূতাবাস সরানোর ঘোষণা দেওয়ার পর পুরো শান্তি প্রক্রিয়াই ভেস্তে যেতে চলেছে বলে মনে করা হচ্ছে। শাতায়েহ জানিয়েছেন, ক্ষমতা গ্রহণের পর দেওয়া ভাষণেই ট্রাম্প দূতাবাস স্থানান্তরের ঘোষণা দিতে পারেন বলে এক কূটনৈতিক সূত্রে তিনি জেনেছেন। এর বিপরীতে পাল্টা জবাব দেওয়ার কথা ভাবছে বিভিন্ন ফিলিস্তিনি গ্রুপের জোট প্যালেস্টাইন লিবারেশন অরগানাইজেশন (পিএলও)।
তিনি বলেন, পাল্টা জবাব হিসেবে ইসরাইলকে রাষ্ট্র হিসেবে দেওয়া স্বীকৃতি ফিরিয়ে নিতে পারে পিএলও। পারস্পরিক স্বীকৃতির অংশ হিসেবেই পিএলও ইসরাইলকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। আর এখন তার বৈধতা থাকছে না। ১৯৯৩ সালে অসলো চুক্তি অনুযায়ী পিএলও ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেয়।
প্রসঙ্গত, ১৯৯০-এর দশকের শুরু থেকে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে বেশ কয়েক দফায় শান্তি আলোচনা হয়েছে। শান্তি আলোচনায় জেরুজালেমের এক বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। এই শহরটি ইসলাম, ইহুদি ও খ্রিস্টান উভয় ধর্মেরই তীর্থস্থান। ফিলিস্তিনিরা চায় পশ্চিম তীরে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে এবং পূর্ব জেরুজালেমকে এর রাজধানী বানাতে। ১৯৬৭ সালের আরব যুদ্ধের পর থেকে ইসরাইল পূর্ব জেরুজালেম দখল করে রেখেছে। পূর্ব জেরুজালেমকে নিজেদের অবিভাজ্য রাজধানী বলে দাবি করে থাকে ইসরাইল। অবশ্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পূর্ব জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। ১৯৬৭ সালের পর পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে ১শ’রও বেশি বসতি স্থাপন করেছে ইসরাইল। আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় এ বসতি স্থাপনকে অবৈধ বলে বিবেচনা করা হলেও ইসরাইল তা মানতে নারাজ। ফিন্যানসিয়াল টাইমস।

 

Show all comments
  • হাফেজ এনায়াতুল্লাহ আল মূঈনী ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:৫৯ পিএম says : 0
    সিদ্ধান্ত ঠিক থাকবে কি! না দিগবাজির জিলিক মারবে !! ইসরাইল ইহুদিদের রাষ্ট্র নয়। তারা এটাকে জবর দখলে নিয়েছে
    Total Reply(0) Reply
  • Moniruzzaman Monir ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১:০০ পিএম says : 1
    Tato hobai
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Jahangir Alam Chowdhury ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১:০০ পিএম says : 0
    করতে পারলে এটাই হবে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ সিদ্ধান্ত।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Mannan ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১:০১ পিএম says : 0
    যুগান্তকারী প্রদক্ষেপ।
    Total Reply(0) Reply
  • Shapon Mazumder ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১:০২ পিএম says : 0
    Amin
    Total Reply(0) Reply
  • mahbub ১৪ জানুয়ারি, ২০১৭, ৯:২৭ এএম says : 0
    may be this is impossible for filistini this govment
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ