Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৭, ২ ভাদ্র, ১৪২৪, ২৩ যিলকদ ১৪৩৮ হিজরী

অভিমানে দুই সন্তানকে খুনের পর আত্মহত্যা করেন আনিকা

স্বামী শামীমের দু’দিনের রিমান্ড আবেদন

| প্রকাশের সময় : ১২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ভাত গরম না করায় স্বামীর বকুনি খেয়ে অভিমানে দুই সন্তানকে খুনের পর গৃহবধূ নিজেও আত্মহত্যা করেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শামীম পুলিশকে এ তথ্য দেয়। রাজধানীর দারুসসালাম এলাকায় স্পর্শকাতর এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর স্বামী শামীম হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গতকাল আদালতে দুই দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছে পুলিশ। যার পর স্ত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় প্ররোচনা মামলায় স্বামী মো. শামীমের দুদিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ। কিন্তু মামলার মূল নথি আদালতে না থাকায় ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক প্রণব কুমার শুনানির জন্য আজ বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেছেন। এর আগে গতকাল ওই ঘটনায় নিহত গৃহবধূ আনিকার মা বাদী হয়ে দারুস সালাম থানায় মামলা দায়ের করেন।
এদিকে গতকাল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে গৃহবধূ ও তার দুই সন্তানের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।
পুলিশ জানায়, গত মঙ্গলবার রাতে গৃহবধূর স্বামী শামীম হোসেনকে আটক করা হয়। থানায় রেখে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ সময় শামীম পুলিশকে জানায়, ঘটনার দিন মঙ্গলবার সকালে স্ত্রী আনিকা তাকে ঠা-া ভাত খেতে দেয়। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সামান্য কথাকাটাকাটি হয়। সকাল ৮টার দিকে শামীম তার কর্মস্থল বাড়ির পাশের সেলুনে চলে যায়। রাতে ফিরে তিনি দু’সন্তানসহ স্ত্রীর লাশ উদ্ধারের ঘটনা জানতে পারেন।
এদিকে এ ঘটনায় গৃহবধূ আনিকার মা বাদী হয়ে জামাই শামীমকে একমাত্র আসামি করে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে ৩৬০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দারুসসালাম থানার এসআই নওসের আলী বলেন, মামলার পর শামীমকে গ্রেফতার দেখিয়ে দুই দিনের রিমান্ড চেয়ে গতকালই আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তা মঞ্জুর করেন। তিনি আরো বলেন, আনিকার মা ও তাদের অন্যান্য স্বজনদের কাছে মামলা সংশ্লিষ্ট অনেক ব্যাপারে জানতে চাওয়া হয়। এ সময় তারা বলেন, আনিকা বেশ জেদি মেয়ে ছিলো। তার মেজাজ বিগড়ে গেলে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠত। পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, স্বামীর ওপর অভিমান করেই আনিকা সন্তানসহ আত্মহননের পথ বেছে নেয়। এর পরে অন্য কোন কারণ রয়েছে কিনা শামীমকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদেই তা বেরিয়ে আসবে।
এদিকে গতকাল দুপুর ১টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে আনিকা ও তার দুই সন্তানের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রভাষক ডা. প্রদীপ বিশ্বাসময়না তদন্ত শেষে সাংবাদিকদের বলেন, দুই শিশুর গলা কাটা ছিল। মা আনিকার গলায়ও দাগ পাওয়া গেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে  দুই শিশুকে ধারালো কিছু দিয়ে হত্যা করা হয়েছে ও মা আত্মহত্যা করেছেন। ময়না তদন্ত শেষে আনিকার মামা ই¯্রাফিল লাশ ৩টি গ্রহণ করেন। দাফনের জন্য লাশগুলি আনিকার বাবার বাড়ি নওগাঁর উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার  বিকেলে দারুসসালাম থানার দিয়াবাড়ি এলাকার ২৯/১ নম্বর টিন শেডের একটি বাসা থেকে শিশু শামীমা (৫) ও আব্দুল্লাহ (২) গলাকাটা এবং তাদের মা আনিকার ঝুলন্ত লাশ  উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশ বলছে, ঘরের ভেতর বিছানায় কাপড়ে মোড়ানো অবস্থায় শিশু দু’টির  গলা কাটা লাশ পাওয়া যায়। গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগানো আনিকার লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় ছিল। শামীম পেশায় নরসুন্দর। দারুস সালাম থানার ছোট দিয়াবাড়িতে টিনশেডের একটি কক্ষে সপরিবারে বসবাস করতেন। শামীমের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার মোকসেদপুরে। আর তার স্ত্রী আনিকার বাবার বাড়ি নওগাঁ জেলা সদরের বনগ্রামে।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।