Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, ০৭ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

পাবনায় আ’লীগ নেতার হাতে সরকারি কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : নেতার অস্বীকার

| প্রকাশের সময় : ১৪ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

পাবনা জেলা সংবাদদাতা : পাবনার চাটমোহর উপজেলায় জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ আব্দুল হামিদ মাস্টারের হাতে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শারীরিকভাবে গত সোমবার লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার চাটমোহর থানায় এজাহার করা হয়েছে। অপরদিকে এ ঘটনায় সরকারি কর্মকর্তা আর আওয়ামী লীগের নেতার পক্ষের লোকজন এখন মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছেন। সরকারি কর্মকর্তারা ঘটনার সুষ্ঠু ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে গত বুধবার মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। এই কর্মসূচি থেকে দুইদিনের আল্টিমেটাম দেয়া হয়। এদিকে, ক্ষমতাসীন দলের লোকজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সকল কর্মসূচি থেকে সরে আসার জন্য চাপ দিচ্ছেন।
ঘটনার তিনদিন পর চাটমোহর থানায় একটি এজাহার করেছেন শিক্ষা অফিসার। এজাহারে বলা হয়েছে, গত ৯ জানুয়ারি সাব ক্লাস্টার প্রশিক্ষণ পরিদর্শনের জন্য ফৈলজানা ইউনিয়নের কুঠিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রশিক্ষণ শেষে চাটমোহর অফিসে ফেরার সময় বিকাল ৩টায় দিকে ক্ষমতাসীন দলের ৫-৭ জন ধারালো অস্ত্র, লাঠিসোটা নিয়ে তার গতিরোধ করে এবং তাকে (উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে) অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। এছাড়া শিক্ষা অফিসারকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয় বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার ওসি (প্রশাসন) একরামুল হক সরকার সাংবাদিকদের বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি পাওয়া গেলে দায়ের করা এজাহারটি মামলা হিসেবে রজু করা হবে। গত সোমবার বিকেলে চাটমোহর উপজেলার ফৈলজানা ইউনিয়নের কুঠিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাব ক্লাস্টার মিটিং শেষে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষ পর্যায়ের নেতা কর্তৃক উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল বাশার মোহাম্মদ শামসুজ্জামান শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল বাসার মোহাম্মদ শামসুজ্জামান জানান, মিটিং শেষে স্কুলের দোতলা থেকে নামার পরপরই এই নেতা জানতে চান, শিক্ষা অফিসার কে ? পরিচয় দেয়ার সাথে সাথে তিনি ‘আমাকে চড়-থাপ্পর মারেন। কি কারণে এ ঘটনা ঘটল আমি কিছুই জানি না।’ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেহেলী লায়লা এ ঘটনায় মর্মাহত হয়েছেন। তিনি বলেন, বিষয়টি জেলা প্রশাসক মহোদয়কে জানানো হয়েছে। এভাবে সরকারি কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করা হলে আমরা কোথায় যাবো? তিনি বলেন, এ বিষয়টি উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় আলোচনা করা হবে এবং রেজ্যুলেশন করে ঊর্ধ্বতন বিভিন্নস্থানে পাঠানো হবে। আইনগত ব্যবস্থা নেয়ারও প্রক্রিয়া চলছে। শিক্ষা অফিসার লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় চাটমোহরে সরকারি কর্মকর্তা ও শিক্ষকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ দিকে চিকিৎসার জন্যে ভারত যাওয়ার আগে সূত্রকে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ আব্দুল হামিদ মাস্টার বলেছেন, তিনি এই ঘটনার সাথে জড়িত নন। তার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এটা বিএনপি -জামায়াতের চক্রান্ত। তিনি কোনো কর্মকর্তাকে চড়-থাপ্পর মারেননি এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেননি। এটি মিথ্যা বানোয়াট এবং ষড়যন্ত্র।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাবনা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ