Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

সেরা কয়েকটি স্মার্টফোন ডিভাইস

| প্রকাশের সময় : ১৭ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

রকমারি হ্যান্ডসেটের ভিড়ে পছন্দসই ডিভাইসটি বেছে নেয়াই দুষ্কর। বিশেষ করে নতুন ফোন কেনার ক্ষেত্রে এমন সমস্যায় বেশি পড়তে হয় ব্যবহারকারীকে। সম্প্রতি সেরা কয়েকটি স্মার্টফোন ডিভাইসের তালিকা প্রকাশ করেছে টেলিগ্রাফ। তা নিয়েই আজকের এই আয়োজন। জানাচ্ছেন শওকত আলম পলাশ
 
স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ
পূর্ববর্তী সংস্করণ গ্যালাক্সি এস৬ বিক্রির দিক দিয়ে স্যামসাংকে খানিকটা হতাশ করলেও পুষিয়ে দিয়েছে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ। ৫ দশমিক ৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের হ্যান্ডসেটটির ক্যামেরা ১২ মেগাপিক্সেলের। ব্যাটারি ২৭ ঘণ্টার। ডিভাইসটিতে যোগ করা হয়েছে এসডি কার্ড। স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ এসেছে দুটো নতুন বৈশিষ্ট্য নিয়ে। এর একটি হচ্ছে অসাধারণ কার্ভড ডিজাইন, অন্যটি চমৎকার ক্যামেরা। এছাড়া রয়েছে কিছু অতিরিক্ত সফটওয়্যার। দামটা স্যামসাংয়ের অন্য ডিভাইসগুলোর তুলনায় খানিকটা বেশি। এটি পানি নিরোধক।
 
আইফোন ৭ প্লাস
দুই বছরে আইফোন ‘প্লাস’ মডেলে শুধু স্ক্রিনের আকারে তারতম্য আনা হয়েছে। ৪ দশমিক ৭ ইঞ্চির স্ক্রিনটি সাড়ে ৫ ইঞ্চিতে উন্নীত করা হয়েছে এ মডেলের হ্যান্ডসেটগুলোয়। তবে আইফোন ৭ প্লাসে রয়েছে বেশি র্যাম, নতুন ডুয়াল লেন্স ক্যামেরাটি ১২ মেগাপিক্সেলের। ব্যাটারি (টক টাইম) ২১ ঘণ্টার। এর ক্যামেরাটি নতুন পোর্ট্রেট মোডসহ ফটো জুম ও সাবজেক্টকে ফোকাস করার সময় ব্যাকগ্রাউন্ড অস্পষ্ট করতে পারে। বড় ব্যাটারিসহ ডুয়াল ক্যামেরা আইফোন ৭ থেকে উন্নত। আকারে খুব বেশি বড়, হেডফোন জ্যাক নেই।
 
আইফোন ৭
আধুনিক স্মার্টফোনের নির্মাতা হিসেবে অ্যাপলকে কৃতিত্ব দেন প্রযুক্তিভক্তরা। প্রতিষ্ঠানটি সেরা কিছু হ্যান্ডসেট ভক্তদের উপহারও দিয়েছে। এর একটি আইফোন ৭। এতে রয়েছে চমত্কার ডিজাইন ও আইওএস সফটওয়্যারের সমন্বয়। গত বছর উন্মোচিত আইফোন ৭-এ বিশেষ কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। পানি নিরোধক, একটি উন্নত মানের ক্যামেরা ও স্টেরিও স্পিকার রয়েছে। এটি তেমন জনপ্রিয়তা পায়নি। হেডফোন জ্যাক নেই। ব্যবহারকারীরা ব্যাটারির কার্যক্ষমতা নিয়ে অভিযোগ করেছেন। ৪ দশমিক ৭ ইঞ্চি স্ক্রিন ও ১২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা বিশিষ্ট ডিভাইসটির  ব্যাটারি টক টাইম ১৪ ঘণ্টার।
 
ওয়ান প্লাস থ্রিটি
ওয়ান প্লাসের আগের মডেলগুলো উচ্চমানসম্পন্ন স্মার্টফোনের মতো নয়। তবে সর্বশেষ সংস্করণে বেশকিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। এর ডিজাইন ও মান চমত্কার এবং এতে এনএফসি ও দ্রুত চার্জিংয়ের মতো কিছু ফিচার যোগ করা হয়েছে। সাড়ে ৫ ইঞ্চি স্ক্রিনের ফোনটিতে আছে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। বিশেষ চার্জার ব্যবহার না হলে ফোন চার্জে বেশি সময় লাগবে।

মটো জি৪
বাজেট সাশ্রয়ী হ্যান্ডসেট কিনতে চাইলে বেছে নিতে পারেন মটো জি৪। এ সেলফোনে রয়েছে উন্নত মানের স্ক্রিন, ক্যামেরা ও প্রসেসর। সাড়ে ৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে সংবলিত ফোনটির ক্যামেরা ১৩ মেগাপিক্সেল। তবে এর ডিজাইন অনেকেরই পছন্দ নয়। সেরা হাই-এন্ড হ্যান্ডসেটের তুলনায় এটি দেখতে খানিকটা সেকেলে।
 
আইফোন এসই
ছোট আকারের আইফোনটি গত বছরের মার্চে উন্মোচন করে অ্যাপল। এতে ৭ অথবা ৬এসের মতো বিশেষ কোনো ফিচার নেই। পানিনিরোধকও নয়। তবে রয়েছে হেডফোন জ্যাক। ৪ ইঞ্চি স্ক্রিনের ডিভাইসটি ১২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা-সংবলিত। ব্যাটারি (টক টাইম) ১৪ ঘণ্টার। দুটি কারণে আইফোন এসই কেনা যেতে পারে। ছোট আকারের স্মার্টফোন ব্যবহার সুবিধাজনক ও আইফোন হিসেবে দাম তুলনামূলক কম।
 
এইচটিসি ১০
এইচটিসি ১০ ডিভাইসের ক্যামেরা সেরা স্মার্টফোনের ক্যামেরাগুলোর মধ্যে অন্যতম। এর ফ্রন্ট ক্যামেরা ৫ ও রিয়ার ক্যামেরা ১২ মেগাপিক্সেলের। দুটোতেই আছে অপটিক্যাল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন। ৫ দশমিক ২ ইঞ্চি স্ক্রিনের ডিভাইসটির ব্যাটারি (টক টাইম) ২৭ ঘণ্টার। দুদিন ব্যাটারির কার্যক্ষমতা থাকে বলে বিজ্ঞাপনে দেখানো হয়। তবে এটি সব ক্ষেত্রে ঠিক নয়। এছাড়া রয়েছে স্লিক মেটাল ডিজাইন, অ্যান্ড্রয়েডের ব্যবহারযোগ্য সংস্করণ ও সেরা অডিও সিস্টেম। এত কিছুর পরও স্যামসাংকে ছাপিয়ে যেতে পারেনি এইচটিসির এ মডেল।
 
গুগল পিক্সেল ফোন
গুগলের প্রথম নিজস্ব ব্র্যান্ডের ফোন পিক্সেল। বাজারে আসা স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে এতেই আছে সেরা ক্যামেরা। পিক্সেল ও পিক্সেল এক্সএলে রয়েছে সীমাহীন ফটো স্টোরেজ সুবিধা, দীর্ঘমেয়াদি ব্যাটারি, গুগলের ইন্টেলিজেন্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ও হেডফোন জ্যাক। ডিভাইস দুটো চলে গুগল অ্যান্ড্রয়েডের ক্লিন ভার্সনে। ফলে ফোনে সফটওয়্যার ব্যবহারে সেরা অভিজ্ঞতা পাওয়া যায়। অপারেটিং সিস্টেম আপডেটও হয় খুব দ্রুত। ৫ ও সাড়ে ৫ ইঞ্চি স্ক্রিনের পিক্সেল ও পিক্সেল এক্সএলে আছে ১২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। ব্যাটারি (টক টাইম) ২৬ ঘণ্টার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।