Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

নগরবাসীর পরিবেশবান্ধব জীবনযাপনই লক্ষ্য : চসিক মেয়র

| প্রকাশের সময় : ১৭ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, নগরবাসীর স্বাচ্ছন্দ্য ও পরিবেশবান্ধব পরিবেশে জীবনযাপনের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আমূল পরিবর্তন এনেছে। গতকাল (সোমবার) নগরীর এয়ারপোর্ট রোডস্থ ১৪ নম্বর ঘাট এলাকায় পাঁচটি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশনের উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র একথা বলেন।
সিটি মেয়র বলেন, ডোর টু ডোর আবর্জনা সংগ্রহ ও অপসারণ কার্যক্রম ব্যয় হুল হওয়া সত্তে¡ও ঝুঁকিপূর্ণ এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বর্তমানে সাতটি ওয়ার্ডে বাস্তবায়ন করা হয়েছে এবং অবশিষ্ট ওয়ার্ড গুলোতে এ কর্মসূচি বাস্তবায়িত হবে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে আরবান পাবলিক অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল হেল্থ সেক্টর ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকায় এডিবির অর্থায়নে আবর্জনা ও বর্জ্য ডাম্পিংয়ের জন্য নির্মিত হয়েছে সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস)। প্রায় ১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২টি প্রকল্পের মধ্যে ফলক উম্মোচন ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে পাঁচটি এসটিএসর উদ্বোধন করেন।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন যুগ্ম-সচিব ও প্রকল্প উপ পরিচালক উত্তম কুমার কর্মকার, ৪১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ছালেহ আহমদ চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ শফিকুল মান্নান ছিদ্দিকী। মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন ৪০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজী জয়নাল আবদীন, ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজী শফিউল আলম, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিসেস শাহানুর বেগম, সাবেক কাউন্সিলর আবদুল বারেক কোম্পানী, তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী আবু ছালেহ, নির্বাহী প্রকৌশলী অসীম বড়–য়া প্রমুখ।
মেয়র বলেন, রাস্তার সকল ডাস্টবিন ও কন্টেইনার অপসারণ করে নগরীর পরিবেশ আরো উন্নত করা হবে। তিনি বলেন, ৪১ নম্বর দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ডে এয়ারপোর্টসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা বিদ্যমান সে কারণে এ ওয়ার্ডের উন্নয়ন কার্যক্রমকে গুরুত্ব দিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। গ্রিন সিটির প্রকল্পের অধীনে এয়ারপোর্ট থেকে সড়কদ্বীপ ও আশপাশের ফুটপাত বিউটিফিকেশনের আওতায় এনে দৃষ্টিনন্দন করা হবে। তিনি বলেন, চলমান উন্নয়ন কাজের মধ্যে ব্রিজ, কালভার্ট ও নালা নির্মাণ অন্যতম। এ ওয়ার্ডে জাইকা, এডিপি, এডিবি, থোক ও রাজস্বসহ প্রায় ৫০ কোটি টাকারও অধিক উন্নয়ন কর্মকাÐ চলমান রয়েছে। তিনি বলেন, নগরীর অবকাঠামোগত উন্নয়ন, আলোকায়ন, পরিচ্ছন্নতা, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবায় তিন বছরের প্লান কার্যকর করা হচ্ছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ