Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫, ৮ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

‘ভারতীয় সিরিয়াল দেখে দেশে ৮০ ভাগ বিবাহ বিচ্ছেদ’

| প্রকাশের সময় : ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ‘ভারতীয় টিভি চ্যানেলগুলোয় প্রচারিত অপসংস্কৃতিতে ভরা নাটক-সিরিয়ালে উদ্বুদ্ধ হয়ে বাংলাদেশের শতকরা ৮০ শতাংশ বিবাহ বিচ্ছেদ হচ্ছে’ বলে মন্তব্য করেছেন নাট্য ব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ। ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনালস অর্গানাইজেশনের (এফটিপিও) এই সভাপতি বলেন, ‘ইদানিংকালে দেশে শতকরা ৮০ শতাংশ বিবাহ বিচ্ছেদের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ কারণ হলো ভারতীয় সিরিয়াল।’
তিনি সুনির্দিষ্টভাবে দাবি করেন ২০০৬ সালের সরকারি আইন টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে মানতে হবে। বিজ্ঞাপনের অত্যাচার থেকে আমাদের বাঁচাতে হবে। বিদেশি শিল্পীদেরও আনার ক্ষেত্রে আইন মানতে হবে। গতকাল একটি অনলাইন মিডিয়া আয়োজিত ‘বিদেশি সিরিয়াল : সংস্কৃতির আপনপর’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ চিত্র তুলে ধরেন। সংস্কৃতিকর্মীদের আন্দোলন, বিদেশি সিরিয়াল ও ভারতীয় চ্যানেলগুলোর দৌরাত্ম্যকে সামনে রেখে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, মিডিয়া কর্মী, বিজ্ঞাপনদাতাসহ টেলিভিশন শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা হয়। মামুনুর রশীদ ছাড়াও বক্তৃতা করেন ডিরেক্টরস গিল্ডের সভাপতি গাজী রাকায়েত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ফাহমিদুল হক, দীপ্ত টিভির উরফী আহমদ, গ্রে অ্যাডভার্টাইজ লিমিটেডের গাউসুল আলম শাওন, উদিসা ইসলাম, জুলফিকার রাসেল প্রমুখ।
আলোচনার শুরুতেই সংস্কৃতি কর্মীদের দাবি নিয়ে আলোচনা উঠে আসে। জানানো হয় ভারতের জি-বাংলা প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে ১শ’ কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে। নাট্য ব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ বলেন, ‘টেলিভিশন শিল্প সিনেমার চেয়েও বড়। একটি এক ঘণ্টার নাটকে ২০ মিনিটের বিজ্ঞাপন দেয়া হচ্ছে। বিদেশে থেকে কলকুশলী আনা হয়। আবার বিপুল পরিমাণ অর্থ ডাউনলিংকের মাধ্যমে বিদেশে চলে যাচ্ছে। আরেকটি বিষয়, আমাদের মূল্যবোধের ওপর আক্রমণ হচ্ছে। ভারতের কিছু চ্যানেলের সিরিয়াল এটি করছে। বিদেশি সিরিয়ালগুলো যে ধরনের সংস্কৃতির ধারক-বাহক তা আমাদের সংস্কৃতি ও মূল্যবোধের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, ‘ইদানিংকালে দেশে শতকরা ৮০ শতাংশ বিবাহ বিচ্ছেদের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ কারণ হলো ভারতীয় সিরিয়াল।
বিদেশী টিভি চ্যানেলে অপসংস্কৃতি এবং বিজ্ঞাপন প্রসঙ্গে ডিরেক্টরস গিল্ডের সভাপতি ও নাট্যব্যক্তিত্ব গাজী রাকায়েত বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয়কে ভ্যাট-ট্যাক্স দিয়ে মোটামুটি বোঝাতে পারা যায়। কিন্তু একটি সুনির্দিষ্ট সিরিয়াল অনুমোদিত কিনা সেটি কী করে বুঝব। কারণ একটি নির্দিষ্ট কমিটি রয়েছে যারা এই সিরিয়ালগুলোর ছাড়পত্র দেয়। সেই কমিটির ছাড়পত্র রয়েছে কিনা তা যাচাই করা উচিৎ। সে কারণে সম্প্রতি জারি করা তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘যতক্ষণ না ছাড়পত্র দেয়া হয় ততক্ষণ পর্যন্ত বিদেশি সিরিয়াল দেখানো যাবে না। এসব বিদেশি সিরিয়াল কোন সময় প্রচার হবে সেটি নিয়েও টেলিভিশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এফটিপিও’র কথা হয়েছে। এগুলো যথাযথ নিয়ম মেনে প্রচার হচ্ছে কিনা তাও দেখতে হবে। গাউসুল আলম শাওন বলেন, ‘আমাদের টোটাল প্যাকেজ নিয়ে ভাবতে হবে। টেলিভিশন চ্যানেলগুলো কেউ রেসপন্সিবল না। বিজ্ঞাপন তারা কতক্ষণ চালাবেন এটা তাদের ব্যাপার। সিদ্ধান্ত তাদের নিতে হবে। বিশ্বায়নের যুগে বড় বড় বাজেট নিয়ন্ত্রণ হচ্ছে অনলাইনের মাধ্যমে। তাদের থামাবেন কীভাবে? আমাদের আন্দোলন হবে চ্যানেলগুলোর বিপক্ষে। জি-বাংলা বছরে ১শ’ কোটি টাকা নেয়। এভাবে সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা মাটির নিচ দিয়ে চলে যায় সেটি নিয়ে আমরা কথা বলি না। আমরা পড়ে আছি ৮শ’ কোটি টাকা নিয়ে। তিনি বলেন, ‘ভারতীয়দের মধ্যে ৪০ বছরের বেশি আর বাংলাদেশে ৩০-এর নিচের দর্শকরা মূলত সিরিয়ালগুলো দেখেন। এগুলো নিয়েও আমাদের আরও গবেষণা করতে হবে।’ টেলিভিশনে মূল্যবোধ তৈরি নিয়ে কথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফাহমিদুল হক। তিনি বলেন, ‘মিডিয়া পলিসি যারা প্রণয়ন করছে তাদের দূরদৃষ্টি থাকা দরকার। ভবিষ্যতে আমরা টেলিভিশন শিল্পকে কোথায় দেখতে চাই তা নিয়েও ভাবতে হবে। তাছাড়া বর্তমানে একটা অনুষ্ঠানে কতক্ষণ বিজ্ঞাপন চলবে এটা টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ ঠিক করছে, কিন্তু এটি ঠিক করা উচিৎ সম্প্রচার নীতিমালার মাধ্যমে।’ তিনি আরও বলেন, মূল্যবোধ কিন্তু স্থির কোনও বিষয় নয়। সময়ের সঙ্গে বদলাচ্ছে মূল্যবোধ। এখন মানছি না পরে সেটিকে মেনে নিচ্ছি। আর এটি মনে রাখতে হবে সংস্কৃতি কিন্তু উন্মুক্ত। টেলিভিশন ডাউনলিংক বন্ধ করতে পারবেন কিন্তু ইন্টারনেট ডাউনলিংক কী করে আটকাবেন? আপনি বাধা দিলেও দর্শক কিন্তু ভিন্ন সোর্স থেকে সেই জিনিস দেখে ফেলছে। এখানে দর্শক রুচিই মুখ্য। আমাদের সেটাই ভাবতে হবে।



 

Show all comments
  • abdulaziz ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ৩:১৩ এএম says : 1
    sorkar jodi star jelshs o z bangla bondo kori dai taholi desh mohela biker ar sogkha aisa kori komi jabi.aita ki deshar jono valo dik hoti pari na.
    Total Reply(0) Reply
  • Md Aziz ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১১:৫৭ এএম says : 0
    বাংলাদেশে এই সব বন্ধ করার সাহস কি কারো নাই.?
    Total Reply(0) Reply
  • Zaman Asad ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১১:৫৮ এএম says : 0
    বন্ধ করা হোক ভারতীয় চ্যানেল, ,,
    Total Reply(0) Reply
  • Syed Sanaullah ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ পিএম says : 0
    আমাদের উচিত আমাদের মা বোনদের কে এগুলো দেখার থেকে বিরত থাকার জন্য তাগিদ দেওয়া
    Total Reply(0) Reply
  • Muhammad Kawsar Sheikh ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০১ পিএম says : 0
    চ্যানেল গুলো বন্ধ করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি
    Total Reply(0) Reply
  • Hafiz Khan ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০৪ পিএম says : 0
    ভাল একটি সংবাদ।
    Total Reply(0) Reply
  • Jahirul ISlam ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:১১ পিএম says : 0
    আমিও আপনাদের সাথে একমত ভাই
    Total Reply(0) Reply
  • Sujon Chowdhury ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:১২ পিএম says : 0
    সবাই এক হয়ে বন্ধ করার জন্য আন্দোলন করতে হবে
    Total Reply(0) Reply
  • Moslem Sheikh ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:১২ পিএম says : 0
    ষ্টার জলসা, ষ্টারপ্লাস, জিটিভি চ্যানেল বন্ধ চাই
    Total Reply(0) Reply
  • Khairul Islam ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:১৩ পিএম says : 0
    right
    Total Reply(0) Reply
  • md.didar ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:৩৮ পিএম says : 0
    আমিও আপনাদের সাথে এক মত
    Total Reply(0) Reply
  • selina ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ৬:৫১ পিএম says : 0
    needs end this cultural aggression right now start cultural reforms .
    Total Reply(0) Reply
  • RuhulaminTalokdar ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ৮:৪২ পিএম says : 0
    আমাদের উচিত আমাদের মা বোনদের কে এগুলো দেখার থেকে বিরত থাকার জন্য তাগিদ দেওয়া -
    Total Reply(0) Reply
  • Rafiqul islam ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ৯:১৭ পিএম says : 0
    ami sobar shatha ak mot. sorkar k anurot ata bondho karun.
    Total Reply(0) Reply
  • ২২ জানুয়ারি, ২০১৭, ৯:২৪ পিএম says : 0
    dada Babura Ja Rag Korba?
    Total Reply(0) Reply
  • আবুল কাশেম ২৩ জানুয়ারি, ২০১৭, ৯:৩৯ এএম says : 0
    আমার সামনে আমার পরিবার বা আমার বন্ধু-আত্মীয় যেই হোকনা কেন কেউ এইসব সিরিয়াল দেখতে পারে না, প্রতিবাদ করি এবং নাদেখতে বাধ্য করি। আপনারাও আপনাদের পরিবারকে কঠোর ভাষায় নিষেধ করুন। সাথে সাথে সরকার ও যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করবো ভারতীয় এইসকল সিরিয়াল নামীয় বিষাক্ত ছোবল থেকে আমাদের সংস্কৃতি আমাদের মা-বোনদের রক্ষা করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • saif ২৪ জানুয়ারি, ২০১৭, ৬:৪১ পিএম says : 0
    আগে কি আপনারা ঘুমিয়ে আছিলেন না কি
    Total Reply(0) Reply
  • Mazharul Chowdhury ২৬ জানুয়ারি, ২০১৭, ১:৪৮ পিএম says : 0
    Not only Indian serials is the root of social degradation we should also look into the our serials too. Ask yourself what social norms and values we are able to teach our generations through our TV dramas and serials... that is only love of two teen age boys and girls. Is it the meaning of life....and society... there are hundreds of issues that we can address through making constructive story of drama and serials which could obviously lead our society towards better life and social norms, values as well as our traditional culture. Thanks !
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ মুন্নাফ হোসেন ২৭ জানুয়ারি, ২০১৭, ৫:৫৫ পিএম says : 0
    ভারতীয় ষ্টার জলসা, ষ্টারপ্লাস, জিটিভি সহ চ্যানেল বন্ধ চাই
    Total Reply(0) Reply
  • Neaiz Morshed ২৯ জানুয়ারি, ২০১৭, ৪:৪৬ পিএম says : 0
    All we have been criticizing about hindi serial. Coz we know it has some negative effect on our social & personal life. but this is also true that people don't watch these program for learning those negative characteristics. people watch television for entertaining/recreation. but we get bored when we start watching our bangladeshi program because of too much advertisement.its not the plm of viewers that they watch hindi program. its the plm of our bangladeshi tv channels. they r responsible for this
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ