Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

কলাপাড়ায় দুদকের গণশুনানি হাসপাতালের সেবার মান উন্নয়নের জন্য একমাসের আলটিমেটাম

| প্রকাশের সময় : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

কলাপাড়া উপজেলা সংবাদদাতা : পটুয়াখালীর কলাপাড়ার দুর্নীতি দমন কমিশন ও ট্রান্সপারেনসি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের আয়োজনে দেশের ৪১তম গণশুনানি অনুতিষ্ঠ হয়। পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক ছিদ্দিকী ও দুদক বরিশালের পরিচালক আক্তার হোসেনের সঞ্চলনায় পহেলা ফেব্রæয়ারী অনুষ্ঠিত এ গণশুনানিতে প্রধান অতিথি ছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ। সকাল নয়টা থেকে বেলা দুইটা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত গণশুনানিতে উপজেলা ভূমি অফিস, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিস, উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিস, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিস, সমবায় অফিস, সমাজসেবা অফিস, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের সেবা ও মান এবং সাধারণ মানুষের পক্ষ থেকে প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে কর্মকর্তাগণ উপস্থিত থেকে সরাসরি অভিযোগের উত্তর দেন। একই সাথে সেবা নিশ্চিতের বিষয়টি স্পষ্ট করেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
ভুক্তভোগীদের মধ্যে কলাপাড়া উপজেলা হাসপাতালের স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে বেশ জোরালো কথা বলেন আপন নিউজ এজেন্সীর এসএম আলমগীর শিকদার। বলা হয়, দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা কলাপাড়ায় একের পর এক উন্নয়নের ছোয়া বইছে। বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হতদরিদ্র মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য কলাপাড়া হাসপাতালটি ৩১ শয্যাবিশিষ্ট থেকে ৫০ শয্যায় উন্নতি করেছেন। অথচ হাসপাতালটি দিন দিন অচল হয়ে পড়ছে। ল্যাব-ক্লিনিক বাণিজ্য কারণে হাসপাতালে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি থাকা সত্তে¡ও বছরের পর বছর সিজার অপারেশন বন্ধ রয়েছে। অপরদিকে হাসপাতালের চিকিৎসকরা ক্লিনিকে গিয়ে অপারেশন করছেন। অফিস চলাকালীন সময় অনেক ডাক্তারকে হাসপাতালে পাওয়া যায় না এবং ভর্তি রোগীদের খোঁজখবর নেয়া হয় না। ল্যাব-ক্লিনিকের দালালদের আনাগোনার কারণে সরকারের সকল সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে হতদরিদ্র মানুষ। অভিযোগ রয়েছে দালালদের সহযোগিতা করার। স্বাস্থ্য প্রশাসকের নিশ্চুপ আচরণে নি:স্ব হচ্ছে হতদরিদ্র মানুষ।
এ সময় এসএম আলমগীর হোসেন বলেন, হতদরিদ্র মানুষের কষ্টের কথা চিন্তা করে সিজারসহ যাবতীয় অপারেশন চালু করা, অফিস চলাকালীন সময় বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানি প্রতিনিধি ও ল্যাব-ক্লিনিকের দালাল হাসপাতালে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা, ল্যাব-ক্লিনিকে টেস্ট বাণিজ্য বন্ধ করাসহ রোগীদের সেবায় আন্তরিক হওয়ার জন্য জোর অনুরোধ জানান।
এসব অভিযোগের ভিত্তিতে, কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে আগামী একমাসের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেন দুদক কমিশনার ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ। এ সমম কলাপাড়া স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনি আগামী একমাসের মধ্যে ব্যবস্থা না হলে আপনার চাকরি করার দরকার নেই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কলাপাড়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ