Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

চরমোনাই মাহফিলে দেওবন্দ এবং ওমানের ওলামা-মাশায়েখ ও সউদী সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণ মুসলিম দেশসমূহের মধ্যে ঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান

| প্রকাশের সময় : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

বরিশাল ব্যুরো : চরমোনাই বার্ষিক মাহফিলের দ্বিতীয় দিনে গতকাল দেশ ও দেশের বাইরে থেকে আগত ওলামা-মাশায়েখদের উপস্থিতিতে বিশাল ওলামা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওলামা সম্মেলনে সউদী আরব, ওমান, ভারতসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বিশ্ববরেণ্য ব্যক্তিবর্গের আগমনে মাহফিলে উপস্থিত মুসুল্লীদের মধ্যে ছিল ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা। চরমোনাই পীর ছাহেবের আমন্ত্রণে মাহফিলে যোগ দিতে গতকাল সকালে সউদী রাজকীয় সরকারের একটি প্রতিনিধি দল চরমোনাইতে আসেন। প্রতিনিধি দলের মধ্যে ছিলেন সউদী সরকারের ধর্ম মন্ত্রীর বিশেষ উপদেষ্টা ইবরাহীম ইবনে আব্দুল আজীজ আয যায়েদ, সর্বোচ্চ উলামা কাউন্সিলের সদস্য ও মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা সাদ বিন তুর্কী ইবন মুহাম্মাদ আল খাচলান, রিয়াদ জামিউল ইখলাসের সম্মানিত ইমাম ও খতীব মুহাম্মদ সালেহ মুহাম্মাদ আস সামেরী, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ জাইফুল্লাহ আল মাতিরী, সালেম সাইদ ইবনে সালেহ আব্দুল আযীযসহ সউদী রাষ্ট্রদূত ও অন্যান্য কর্মকর্তাগণ। চরমোনাই মাহফিল ময়দানে পীর ছাহেব মুফতি সৈয়দ মো: রেজাউল করীম, নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মো: ফয়জুল করীম ও আলিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মো: মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, তাদেরকে স্বাগত জানিয়ে লাল গালিচা সংবর্ধনা প্রদান করেন। পরে মেহমানবৃন্দ জামিয়ার কার্যালয়, কুরআন শিক্ষা বোর্ড অফিস ও মাহফিলের প্যান্ডেলসহ বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করেন।
পরিদর্শন শেষে মুসুল্লীদের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ইবরাহীম ইবনে আব্দুল আজীজ আয যায়েদ জানান, তিনি সউদী বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজীজ-এর পক্ষ থেকে এসেছেন। তিনি সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, চরমোনাইর পুরো ময়দান জুড়ে যেন নূর চমকাচ্ছে। তিনি ঈমানী এই দলের সাথে থাকতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান। এখানে আসতে পেরে তিনি আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করে বলেন, আমাদের নীতি হলো বিশ্ব মুসলিমের মধ্যে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা। এজন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তিনি পীর ছাহেবের পরিবারকে পবিত্র পরিবার উল্লেখ করে তাকে মাহফিলে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আয়োজক এবং আসার ব্যবস্থা করে দেয়ায় সরকারকে ধন্যবাদ জানান। চরমোনাইর এই দ্বীনি মারকাযের সাথে সউদী সরকারের সম্পর্ক আরো জোরদার হবে বলেও তিনি আশ্বস্ত করেন।
সাদ বিন তুর্কী ইবন মুহাম্মাদ আল খাচলান তার বক্তব্যে বলেন, পঙ্গপালের মতো অসংখ্য মানুষ দুনিয়ার কোন উদ্দেশ্যে নয়, শুধুমাত্র আল্লাহকে পাওয়ার জন্য এখানে ছুটে এসেছেন। তিনি সকল মুমিনকে একটি দেহের ন্যায় উল্লেখ করে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান। তিনি ঈমান, নামাজ, ইলম ও মুসলিম ভ্রাতৃত্ববোধ প্রতিষ্ঠারও জোর দেন।
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর পীর ছাহেব চরমোনাইর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওলামা সম্মেলনে বিশ্ববরেণ্য ওলামা-মাশায়েখসহ দেশের শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম বক্তব্য রাখেন। বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী বিদ্যাপীঠ ভারতের দারুল উলূম দেওবন্দের মুহতামিমের প্রতিনিধি হিসেবে আসেন নায়েবে মুহতামিম আব্দুল খালেক সাম্বলী, শায়খে সানী আল্লামা কমর উদ্দিন, নাজেমে তালীমাত আল্লামা ইউসুফ তাওলুভী, সাবেক নাজেমে তালীমাত আল্লামা মুজিবুল্লাহ। গতকালের এ মাহফিলে মক্কা শরীফের বাসিন্দা বিশ্ববরেণ্য মাশায়েখ আল্লামা আব্দুল হাফিজ মক্কী (রহ.) এর ৭ ছেলে উপস্থিত ছিলেন। তন্মধ্যে ১ ছেলে তার বক্তব্যে তাদের মৃত বাবার জন্য দোয়া কামনা করেন। উল্লেখ্য, মরহুম আব্দুল হাফিজ মক্কী গত বছর মাহফিলে এসে বক্তব্য রেখেছিলেন।
ওমানের মাসকাট উলুমে শরইয়্যা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচারার খালিদ ইবনে মুহাম্মাদ সালেম আবদালী তার বক্তব্যে বলেন, যারা কুরআনের বিরোধিতা করবে তারা ধ্বংস হবে। মুসলমানদেরকে কুরআন প্রতিষ্ঠার কাজে আত্মনিয়োগ করতে হবে। দেওবন্দের আল্লামা আব্দুল খালেক সাম্বলী বলেন, যুগে যুগে কাদিয়ানীসহ বাতিলগোষ্ঠী চেষ্টা করেছে মানুষকে আলেমদের থেকে বিচ্ছিন্ন করতে, কিন্তু তারা সফল হয়নি। তাই আলেমদেরকে সতর্ক থেকে দ্বীনের কাজ চালিয়ে যেতে হবে।
বক্তারা চরমোনাইকে বাংলাদেশ ও সারাবিশ্বের সহিহ দাওয়াতী মারকায হিসেবে অভিহিত করেন। বিদায়ের পূর্বে সউদী মেহমান ভালবাসার নিদর্শনস্বরূপ সউদী বাদশাহর পাঠানো নানাপ্রকার সম্মানজনক উপহার সামগ্রী পীর ছাহেব মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম, মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম, অধ্যক্ষ সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানীসহ পরিবারের সকল সদস্যের হাতে তুলে দেন।
গতকাল চরমোনাইর মাহফিলে দেশের শীর্ষ ওলামাদের মধ্যে তেজগাঁও মাদরাসার মুহাদ্দিস ড. মাওলানা মুশতাক আহমাদ, বরিশাল মাহমুদিয়া মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা ওবায়দুর রহমান মাহবুব, জামিয়া শরইয়্যাহ মালিবাগের শায়খুল হাদীস মাওলানা আবু সাবের আব্দুল্লাহ, মাওলানা আব্দুস সাত্তার (পীর সাহেব গালুয়া), মাওলানা মুফতী ওয়ালিউল্লাহ (পীর সাহেব বরগুনা) উপস্থিত ছিলেন। বিকেল এবং রাতেও ভারতের দারুল উলূম দেওবন্দের শীর্ষ ওলামাসহ দেশী-বিদেশী ওলামায়ে কেরামগণ বয়ান পেশ করেন। মাহফিলের নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আজ (রবিবার) সকাল ১১টায় ছাত্রদের উদ্যোগে ছাত্র-গণজমায়েত ও সোমবার সকাল ৮টায় আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক এ মাহফিলের সমাপ্তি ঘটবে।



 

Show all comments
  • محمد عبدالحليم ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:১০ পিএম says : 2
    এটি একটি বাস্তব খবর , ধন্যবাদ দৈনিক ইনকিলাবকে , সত্য খবর প্রকাশ করার জন্য ,
    Total Reply(0) Reply
  • Nazrul Islam Azad ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:১০ পিএম says : 2
    মাশাআল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • N Mohammad Riyaj ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:১১ পিএম says : 1
    আলহামদুলিললাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Prodhan ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:১৩ পিএম says : 1
    এভাবেই হক্কানি পীর মাশায়েখগন সারা বিশ্বকে আলোকিত করবেন। ইন্সা আল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • nd.kamal uddin ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১১:২৬ এএম says : 1
    চরমোনাই /ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশকে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় আল্লাহ্ কবুল করুক
    Total Reply(0) Reply
  • Azmal Hossain ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ৩:৪৪ পিএম says : 1
    চরমোনাই /ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশকে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় আল্লাহ্ কবুল করুক -এভাবেই হক্কানি পীর মাশায়েখগন সারা বিশ্বকে আলোকিত করবেন। ইন্সা আল্লাহ - এটি একটি বাস্তব খবর , ধন্যবাদ দৈনিক ইনকিলাবকে , সত্য খবর প্রকাশ করার জন্য - Thanks a lot Allah may accept all. Azmal
    Total Reply(0) Reply
  • Md musa ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ৯:৪১ পিএম says : 1
    আলহামদুলিল্লাহ!
    Total Reply(0) Reply
  • ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ২:০২ পিএম says : 0
    অনেক কওমি হুজুরদের বলতে শুনেছি চরমোনাই দেওবন্দি নয়, এখন দেখছি দেওবন্দি মাওলানারা অনেকে এসেছেন এখানে। ঘটনা কি?!!
    Total Reply(0) Reply
  • Atiq ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ৬:০৯ পিএম says : 0
    আমীন, আল্লাহ এ মারকাযকে কবুল করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • ইমাদুল হক । ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:৩২ এএম says : 0
    মুসলমান সকলে এক কাতারে আসলে জয় হবেই ।। ইনশাআল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১:৪৯ পিএম says : 0
    হক ও হক্কানিয়াতের মশালবাহি চরমোনাই
    Total Reply(0) Reply
  • ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ২:৫৩ পিএম says : 1
    আলহামদুলিল্লাহ্‌, আল্লাহ তুমি আমাদের সঠিক পথে চালার তওফিক দান করুন
    Total Reply(0) Reply
  • Abu Horaira Shamim ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ৫:৩৭ পিএম says : 0
    আল্লাহ দ্বীন কায়েমের জন্য চরমোনাই মিশনকে কবুল করে নিন, আমীন।
    Total Reply(0) Reply
  • ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ৫:৫৭ পিএম says : 0
    আল্লাহ কবুল করুন
    Total Reply(0) Reply
  • শাহেদুল ১ মার্চ, ২০১৭, ৫:১৬ এএম says : 0
    আল্লাহ পীর সাহেব চরমোনাইকে কবুল করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • ডাঃ মোহাম্মদ আবুল কালাম আব্দুল্লাহ ৪ মার্চ, ২০১৭, ১:১০ এএম says : 0
    শুধু আহ্বান জানিয়ে শেষ করলেই কি চলবে? চাই কথার সাথে কাজের মিল। কথার সাথে কাজ যখন বেশুমার ফারাকের হয় তখন কথাটিকে বিশ্বাসে আনা কঠিন হয়। সৌদি আরব যদি চায় মুসলিম বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ করতে তবে তার পক্ষ থেকে বাস্তবমুখি পদক্ষেপ দেখতে চাই আমরা। পবিত্র কুরআনের পবিত্র আয়াত-ওয়া তাসিমু বিহাবলিল্লাহ জামিয়াও ওয়ালা তাফাররাকু-তোমরা সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে আল্লাহর রজ্জুকে শক্ত করে আঁকড়ে ধরো পরস্পর বিচ্ছিণ্ন হয়ো না।” একথার ভিত্তিতে আজ দুনিয়ার মুসলিমকে এক প্লাটফর্মে দেখতে চাই-যেটাই কিনা আজ নির্যাতিত মুসলমান জাতির জন্য খুই দরকার। কে শিয়া, কে সুন্নি, কে আহলে সুন্নত ওয়াল জামাত আর কে আহলে হাদিস এসব বিভেদ ভুলে গিয়ে আজকের কালেমায় বিশ্বাসি সকল মুসলমানকে ঐক্যের ডাক দিতে পারে এমন একজন নেতার আজ মুসলিম বিশ্বে খুবই দরকার বোধ করছি। এ ঐক্যের ভিত্তি হবে মাত্র কুরআন আর সুন্নাহ। কথিত সেসব পথ-মত যা আমার নবিজি সাঃ এর সময় ছিলনা এবং যেসব অমৌলিক অজরুরি বিষয় মুসলামানের মধ্যে আজ বিভেদ সৃষ্টি করে রেখেছে সেসব অমৌলিক বিষয় পাশে রেখে শুধুমাত্র কোরআন আর হাদিসের ভিত্তিতে মুসলমানের ঐক্য চাই। ...................... নির্যাতিত মুসলমানের পরিত্রাণের জন্য আজ এমনি একজন নেতার দরকার। আমার তেমন ক্ষমতা নেই। কেননা আমি কোন রাষ্ট্র নায়ক নই। সমাজের কোন প্রভাবশালি লোকও নই। মাত্র একজন সামান্য ডাক্তার। আমার ঐরকম কোন অবস্থান বা ক্ষমতা থাকলে কুরআন আর হাদিসকে দুহাতে লয়ে মুসলিম বিশ্বের একত্রিকরণের জন্য একটা ডাক দিতাম।
    Total Reply(0) Reply
  • আবু বকর ৪ মার্চ, ২০১৭, ৮:২৯ এএম says : 0
    যথাযথ সংবাদ প্রকাশের জন্যে ইনকিলাবকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।
    Total Reply(0) Reply
  • heron ৪ মার্চ, ২০১৭, ১২:৪২ পিএম says : 0
    আজান দিয়ে ঘুমে কাটালে চলবে না, আর রাসুল স: যেভাবে কাজ করেছেন তাই হলো হক আর সব বাতিল সে কথা মাথায় রাখতে হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ