Inqilab Logo

সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৯ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সাতক্ষীরায় চার হাজার হেক্টর জমিতে আমের আবাদ

| প্রকাশের সময় : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

আবদুল ওয়াজেদ কচি, সাতক্ষীরা থেকে : পৌষে কুশী মাঘে বোল, ফালগুনে গুটি, চৈত্রে আঁটি, বৈশাখে কাটি-কুটি, জৈষ্ঠে চাটি-চুটি, আষাড়ে ফেলাই আঁটি, শ্রাবনে বাজায় বাসি। এর অর্থ হলো পৌষ মাসে আম গাছে কুশি হয় মাঘ মাসে বোল ধরে, ফালগুনে আমেতে গুটিতে পরিণত হয়। চৈত্রে মাসে আঁটি হয়। বৈশাখে কাঁচা আম আমরা কেটে-কুটে খায়। জৈষ্ঠি মাসে আমরা পাকা আম চেটে চুটে খায়। আষাড় মাসে আমরা আমের আঁটি ফেলে দেই। শ্রাবন মাসে আঁটিতে যখন গাছ গজায় তখন কিশোর-কিশোরিরা বাসি বাজায়। এই কথাগুলো গ্রাম বাংলায় প্রচলিত।
সাতক্ষীরার ১০০ হেক্টর জমির ওপর অবস্থিত ৩৭৭টি বাগানের প্রায় সাড়ে ১৪ হাজার গাছের আম ব্রিটেনে রপ্তানির জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। জাতগুলোর মধ্যে রয়েছে হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে সাতক্ষীরায় এবার আমের বাম্পার ফলন হবে বলে মনে করছেন কৃষিবিদরা।
গত বছর এই জেলা থেকে ২৩ টন আম ব্রিটেনের বাজারে রপ্তানি হয়েছিল। এবছর কৃষি বিভাগ যাচাই-বাছাই করে সদর উপজেলার ১৫০টি, কলারোয়ার ১০০টি, দেবহাটার ৪০টি ও তালার ৮৭টি বাগান নির্বাচিত করেছে। ১০০ হেক্টর জমির এসব আমবাগানের মালিক ২২০ জন। গাছের সংখ্যা ১৪ হাজার ৪৫১টি। এসব বাগানে হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি জাতের আমগাছ রয়েছে।
কৃষি বিভাগের তত্ত্ববধানে এসব বাগানে বিষমুক্ত আম উৎপাদনের কার্যক্রম চলছে। লক্ষ্য ব্রিটেনে রপ্তানি করা। এ প্রক্রিয়ায় বাগানগুলো থেকে ৬০০ মেট্রিক টন আম উৎপাদন করা সম্ভব হবে বলে কৃষি বিভাগ মনে করছে। যা থেকে বাছাই করে ২০০ টন আম বিদেশে রপ্তানি করা যাবে বলে তাদের আশা।
এজন্য এ বছর কোয়ারেন্টাইনের এক্সপোর্ট ডিডি, বাংলাদেশ ফ্রুট অ্যান্ড ভেজিটেবল এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তা, রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ইসলাম এন্টারপ্রাইজ ও দীপ ইন্টারন্যাশনালের কর্মকর্তাসহ হার্টেক্স ফাউন্ডেশন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সাতক্ষীরার আমবাগান পরিদর্শন করেছেন এফএও ফুড সেলের প্রোগ্রাম অফিসার মাইক ডিলন।
কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় এবার আমের আবাদ করা হয়েছে তিন হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে; যা গতবারের চেয়ে ৫০ হেক্টর বেশি। আর আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ হাজার মেট্রিক টন; যা গতবারের চেয়ে ১৫ হাজার টন বেশি।
বাংলাদেশে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ বাদ দিলে আম উৎপাদনে সাতক্ষীরা জেলা উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। মাটি, আবহাওয়া ও পরিবেশগত কারণে সাতক্ষীরায় উৎপাদিত আম খুবই সুস্বাদু। তাছাড়া অন্যসব এলাকার আগে এ জেলার আম পাকে। সে কারণে এর কদর দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশের বাজারেও।
সাতক্ষীরায় বিভিন্ন জাতের আম চাষ হয়ে থাকে। এর মধ্যে হিমসাগর, ল্যাংড়া, গোবিন্দভোগ, আম্রপালি, মল্লিকা, সিঁদুররাঙা, ফজলি, কাঁচামিঠা, বোম্বাই, লতাবোম্বাই বেশি চাষ হয়।
ফলন ও কদর ভালো হওয়ায় জেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠছে নতুন নতুন আমবাগান। ফলে দিনে দিনে এ অঞ্চলে আমচাষ বেড়েই চলেছে। শ্রমিক দিয়ে সারা বছর পরিচর্যা করা হয় আমবাগান। এতে বহু লোকের কর্মসংস্থানও হচ্ছে। বিনিয়োগ করা হচ্ছে বিপুল অংকের টাকা।
এদিকে, গাছে গাছে মুকুলের সমারোহে আমবাগান হাতবদল হতে শুরু করেছে। আমের মুকুল বেশি হওয়ায় এবার বেশি দামে বাগান বিক্রি হচ্ছে। ঢাকা ও চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীরা এরই মধ্যে সাতক্ষীরার বাগানগুলো কিনতে (এক মৌসুমের জন্য) শুরু করেছেন। সাতক্ষীরার আমের চাহিদা বিদেশে বেড়ে যাওয়ায় গতবারের চেয়ে এবার ব্যবসায়ীরা বেশি আসছেন। স্থানীয় আমচাষিরা জানান, মুকুলের ওপর ভিত্তি করেই বাগান কেনাবেচা হয়ে থাকে। এজন্য আমগাছ পরিচর্যার সঙ্গে সঙ্গে মুকুল রক্ষায় বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহারে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। এবার আমের মুকুল বেশি হওয়ায় বাগানের দামও বেশি। মৌসুমের শুরুতেই সরেজমিনে বিভিন্ন আমবাগান ঘুরে দেখা গেছে, গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে কেবলই মুকুল। এ যেন হলুদ আর সবুজের মহামিলন। মুকুলে মুকুলে ছেয়ে আছে গাছের প্রতিটি ডালপালা। চারদিকে ছড়াচ্ছে সেই মুকুলের সুবাসিত পাগল করা ঘ্রাণ। বড় ধরনের কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে এ বছর আমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন কৃষি কর্মকর্তাসহ জেলার আমচাষিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সাতক্ষীরা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ