Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ০১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

বাতিল হলো ডিএসসিসির সেই ৯৫ জন জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া

| প্রকাশের সময় : ১৭ মার্চ, ২০১৭, ১২:০০ এএম

নিয়োগ চলছে মাস্টাররোলে
সায়ীদ আবদুল মালিক : অবশেষে বাতিল হলো ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের পাঁচটি পদে ৯৫ জন জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া। প্রশাসক ও নির্বাচিত মেয়রের আমলে দুই ধাপে ডিএসসিসি’র পাঁচটি পদের বিপরীতে ৯৫ জন জনবল নিয়োগের জন্য গণমাধ্যমে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এরপর নিয়ম-নীতি অনুযায়ী কয়েক ধাপে এদের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষাও নেয়া হয়েছিল। নিয়োগ কার্যক্রমের শুধুমাত্র ফলাফল ঘোষণা ছাড়া আর বাকি সকল কাজ সম্পন্ন হয়েছিল। চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণার আগেই গত বুধবার এ নিয়োগ প্রক্রিয়াটির সকল প্রকার কার্যক্রম বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ডিএসসিসি’র সচিব খান মোহাম্মদ রেজাউল করিম গতকাল বৃহস্পতিবার ইনকিলাবকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
জানা গেছে, সর্বশেষ ২০১৫ সালের অক্টোবরে পাঁচটি পদের বিপরীতে ৯৫ জন জনবল নিয়োগ দিতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ডিএসসিসি। ২০১৬ সালের ২৯ এপ্রিল লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। উত্তীর্ণদের মে মাসে কম্পিউটার লিটারেসি পরীক্ষা নেয়া হয়। এরপর উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের একই মাসে ৫টি বোর্ডের মাধ্যমে মৌখিক পরীক্ষা নেয় কর্তৃপক্ষ। বাকি ছিল শুধু ফল ঘোষণা। এ জন্য মন্ত্রণালয় থেকে নির্ধারিত সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়। কিন্তু সে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফল ঘোষণা করতে না পারার কারণে মন্ত্রণালয় উক্ত নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করে দেয় বলে জানা যায়।   
সূত্র আরও জানায়, মেয়র হিসেবে মোহাম্মদ সাঈদ খোকন দায়িত্ব নেয়ার আগেই প্রশাসকদের আমলে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। কিন্তু সে সময় তা সম্পন্ন করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। পরে মেয়র হিসেবে সাঈদ খোকন দায়িত্ব নেয়ার পর দ্বিতীয় ধাপে আবার দরখাস্ত আহ্বান করা হয়। কিন্তু এ নিয়োগের তালিকায় পছন্দের ব্যক্তিরা না থাকায় সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তা ও দলীয় নেতাকর্মীরা মেয়রের কাছে তদবির শুরু করে। ফলে বেকায়দায় পড়ে যান মেয়র। এরপর আর চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি বলে বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ উঠেছে।
তবে সিটি কর্পোরেশনের একটি সূত্র জানায়, মন্ত্রীসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের তদবিরের কারণে মেয়র কোটা রেখে চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগে অনিয়মের পক্ষে ছিলেন না। তাই শেষ পর্যন্ত ফলাফল ঘোষণা আটকে যায় বলেও জানা গেছে।  
এদিকে পরীক্ষার মাধ্যমে অনুষ্ঠিত নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল হলেও থেমে নেই নিয়োগ প্রোক্রিয়া। নতুন করে মাস্টাররোলে কর্মরতদের চূড়ান্ত নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে কয়েক ধাপে ৭৫ জনেরও বেশি জনবল নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। এসব নিয়োগের ক্ষেত্রে পত্রপত্রিকায় কোনো প্রকার বিজ্ঞপ্তিও দেয়ার প্রয়োজন মনে করেনি কর্তৃপক্ষ।   
নিয়োগ দেয়া ব্যক্তিদের সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধীনে মৃত্যুজনিত কারণে শূন্যপদে নিয়োগ দেয়া হলেও পরবর্তীতে আঞ্চলিক অফিসের রাজস্ব, প্রশাসন, হিসাব, পরিবহনসহ বিভিন্ন শাখায় নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। অথচ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের কর্মকর্তারা এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলেও জানা গেছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা।
অন্যদিকে, পরীক্ষা বাতিলের খবরে চাকরি প্রার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সচিব খান মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন,  মন্ত্রণালয়ে বৈঠকে এ নিয়োগ প্রক্রিয়াটি বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ